শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

ব্রাহ্মণপাড়ায় সোনালু ফুলে শোভিত প্রকৃতি

আপডেট : ২০ মে ২০২৪, ১১:৩৪

কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় সোনালুগাছগুলো ফুলে ফুলে শোভিত হয়ে আছে। ছবি: আজকের পত্রিকা কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়ায় সোনালুগাছে গাছে ঝুলছে ফুল। সবুজ পাতা ছাপিয়ে সোনালি রঙের ফুলে সেজেছে গাছ। প্রতিটি গাছের শরীর থেকে যেন হলুদ ঝরনা নেমে এসেছে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বাড়ির আঙিনায়, পুকুরের পাড়ে ও রাস্তার ধারে সোনালুগাছগুলো ফুলে ফুলে শোভিত হয়ে আছে। এ ফুল আকৃষ্টে হচ্ছেন পথচারীরা। সড়কে চলাচলকারী মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন যানবাহন আরোহীরাও মুগ্ধ চোখে দেখছেন সোনালু ফুলের গাছগুলো।
 
সোনালুগাছ পাতা ঝরা মাঝারি আকৃতির বৃক্ষ। আট থেকে নয় মিটার উঁচু হয়। হলুদ এ ফুল দেখতে যেমন সুন্দর, তেমনি আছে বাহারি সব নাম। পরিচিত নামগুলোর মধ্যে আছে সোনালু, সোনাইল, সোঁদাল, বান্দরলাঠি ইত্যাদি। সোনালুর বৈজ্ঞানিক নাম ক্যাসিয়া ফিস্টুলা, ইংরেজি নাম গোল্ডেন শাওয়ার ট্রি। বানরের প্রিয় খাবার সোনালুর ফুল, ফল ও পাতা। সোনালু কাঠের রং ইটের মতো লাল। 

ব্রাহ্মণপাড়ায় সবচেয়ে বেশি সোনালুগাছ চোখে পড়েছে মাধবপুর ইউনিয়নের মকিমপুর এলাকায়। এই ফুলের সৌন্দর্যে মুগ্ধ উপজেলার মকিমপুর গ্রামের সজল আহমেদ বলেন, ‘আমরার গেরামতে বাইরনের সময় সড়কের ধারে দুইডা হুনাইল গাছ আছে। এইডিতে অহন ফুল ধরছে। অনেক সুন্দর লাগে। আমরার এগুল এই ফুলেরে হুনাইল ফুল আর না হয় বান্দরের লাডি ফুল কয়। এলাকার ছুডু ছুডু পুলা, পুরিপাইন এই ফুল পাইরা নিয়া খেলায়।’
 
একটি বেসরকারি সংস্থার কর্মী শাহদাত হোসেন বলেন, ‘এই সময়ে আমি যতবার মোটরসাইকেল নিয়ে মকিমপুর গ্রামের সড়ক দিয়ে যাতায়াত করি, কিছুটা সময় হলেও মোটরসাইকেল থামিয়ে এই ফুলের শোভা উপভোগ করি। তবে যখন দেখি স্থানীয় শিশু-কিশোররা এসব ফুল ও ডালা ভেঙে নিয়ে যায় তখন মন খারাপ হয়।’
 
স্কুলশিক্ষক এরশাদ মিয়া বলেন, ‘আমি মকিমপুর এলাকার বাসিন্দা এবং স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। বিদ্যালয়ে যাওয়া-আসার পথে মকিমপুর সড়কের সোনালু ফুলের সৌন্দর্য উপভোগ করি। শিক্ষার্থীরাও বিদ্যালয় থেকে আসা-যাওয়ার পথে এসব ফুল গাছের নিচে দাঁড়িয়ে তার সৌন্দর্য উপভোগ করে। অনেক শিক্ষার্থী আবার গাছ থেকে সোনালু ফুল পেড়ে বাড়িতে নিয়ে যায় খেলা করার জন্য।’
 
সোনালু পাতা ঝরা মাঝারি আকৃতির বৃক্ষ। ছবি: আজকের পত্রিকা ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইউনানি চিকিৎসক সোহেল রানা বলেন, এটি খুবই ওষধি গুণসম্পন্ন উদ্ভিদ। ইউনানি চিকিৎসায় এখনো এই গাছের ব্যবহার রয়েছে। সোনালুগাছের বাকল এবং পাতায় ওষধি গুণাগুণ রয়েছে। ব্লাডপ্রেসারে নাক দিয়ে রক্ত পড়লে সোনালুর ফলমজ্জা আধা কাপ পানিতে মিশিয়ে তা ছেঁকে চিনি বা মধু দিয়ে পান করলে এ সমস্যার সমাধান হয়। অন্ত্রের সমস্যায় চার-পাঁচ গ্রাম ফলমজ্জা চার কাপ পানিতে সেদ্ধ করে ছেঁকে সকালে ও বিকেলে পান করলে সুবিধা পাওয়া যায়। কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর হয়। 

ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা বন কর্মকর্তা মাহাবুব আলম বলেন, সোনালুগাছ একটি বনজ শোভাবর্ধনকারী গাছ। এটি ভারত উপমহাদেশের একটি গাছ। এই শোভাবর্ধনকারী বৃক্ষ, পাখিদের আশ্রয়স্থল হিসেবে কাজ করে। গাছের উজ্জ্বল হলুদ ফুল মৌমাছি ও প্রজাপতিদের আকর্ষণ করে পরাগায়নের সহযোগিতা করে। এই গাছ মূলত সৌন্দর্যবর্ধনের জন্য লাগানো হয়ে থাকে। সোনালুগাছের সঙ্গে কৃষ্ণচূড়া, পলাশ প্রভৃতি গাছ লাগালে আরও বেশি সৌন্দর্যবর্ধন করে। ব্রাহ্মণপাড়ার বিভিন্ন সড়কের সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য এসব গাছের চারা রোপণ করা হবে বলে জানান এ বন কর্মকর্তা।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    পশুর হাটে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেল দুটি গরু, শিশুসহ আহত খামারি

    শঙ্খ নদীর দূষিত পানিই ভরসা কানাজিও পাড়ার অর্ধশতাধিক পরিবারের

    কাজ শেষের ২০ দিনেও মজুরি পাননি ইজিপিপির ২৮১৪ শ্রমিক, ঈদের আনন্দ মাটি

    টেকনাফে খুনের বদলা নিতে যুবককে কুপিয়ে হত্যা 

    সুন্দরগঞ্জে কোরবানির হাটে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয়দের সংঘর্ষ, গ্রেপ্তার আতঙ্কে মানুষ

    চাঁদপুরে পানিতে ডুবে ভাই-বোনের মৃত্যু

    পশুর হাটে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেল দুটি গরু, শিশুসহ আহত খামারি

    ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়কে ২১ কিলোমিটারজুড়ে যানজট 

    জাপানি ব্যান্ডের মিউজিক ভিডিও নিয়ে আপত্তি, কোক স্টুডিও থেকে প্রত্যাহার

    ঘরে বসেই কোরবানির পশু কেনা যাবে নগদে

    ঈদের আগমুহূর্তে জমজমাট ওয়ালটন ফ্রিজের বিক্রি

    বিশ্বকাপ থেকে পাকিস্তানের বিদায়, সুপার এইটে যুক্তরাষ্ট্র