শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

ভারতে ইডির এখতিয়ারে লাগাম টানল সুপ্রিম কোর্ট

আপডেট : ১৬ মে ২০২৪, ১৮:১৩

ফাইল ছবি  ভারতের শীর্ষ আদালত সুপ্রিম কোর্ট আজ বৃহস্পতিবার একটি যুগান্তকারী রায়ে বলেছে, বিশেষ আদালত বিবেচনা করার পরে ভারতের জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডাইরেক্টরেট (ইডি) এবং এর কর্মকর্তারা মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনের ১৯ ধারার অধীনে অর্থ পাচারের অভিযোগে কোনো অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করতে পারে না। 

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি অজয় এস ওকা এবং উজ্জ্বল ভূয়ানের বেঞ্চ যোগ করেছে যে, ইডি যদি এই ধরনের অভিযুক্তকে হেফাজতে রাখতে চায়, তাহলে বিশেষ আদালতে আবেদন করতে হবে। 

আইনে ধারা ৪৪-এর অধীনে একটি অভিযোগের ভিত্তিতে পিএমএলএ ধারা ৪-এর অধীনে শাস্তিযোগ্য অপরাধের স্বীকৃতি নেওয়ার পরে, ইডি এবং ইডির কর্মকর্তারা অভিযোগে অভিযুক্ত হিসাবে দেখানো ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করার জন্য ১৯ ধারার অধীনে ক্ষমতা প্রয়োগ করার ক্ষমতাহীন। 

একই অপরাধের আরও তদন্ত পরিচালনার জন্য সমন জারির পরে হাজির হওয়া অভিযুক্তের হেফাজত ইডি যদি চায় তাহলে বিশেষ আদালত আবেদন করে ইডিকে অভিযুক্তের হেফাজত চাইতে হবে। 

অভিযুক্তের শুনানি শেষে বিশেষ আদালতকে সংক্ষিপ্ত কারণ রেকর্ড করে আবেদনের ওপর আদেশ দিতে হবে। আবেদনের শুনানির সময়, আদালত কেবল তখনই হেফাজতের অনুমতি দিতে পারে যদি আদালত এ বিষয়ে সন্তুষ্ট হয় যে হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ করার প্রয়োজন রয়েছে। 

যদিও অভিযুক্তকে ১৯ ধারার অধীনে গ্রেপ্তার করা না হয়। এদিন আদালত লাইভ ল বেঞ্চকে উদ্ধৃত করে এ কথা বলেছে। 

একবার পিএমএলএর ধারা ৪৪ (১) (বি)-এর অধীনে একটি অভিযোগ দায়ের করা হলে এটি ফৌজদারি কার্যবিধির ২০০ থেকে ২০৫ ধারা দ্বারা পরিচালিত হবে। এই বিধানগুলোর কোনটিই পিএম এল এ এর সঙ্গে অসংগতিপূর্ণ নয়। 

অভিযোগ দায়ের না হওয়া পর্যন্ত যদি অভিযুক্তকে ইডি গ্রেপ্তার না করে তবে বিশেষ আদালত অভিযোগটি আমলে নেওয়ার সময় একটি স্বাভাবিক নিয়ম হিসেবে অভিযুক্তকে সমন জারি করতে হবে, গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নয়। 

অভিযুক্ত যদি সমন অনুসারে বিশেষ আদালতে হাজির হয়, তাহলে তাঁকে হেফাজতে রাখা যাবে না। তাই আসামিদের জামিনের আবেদন করার প্রয়োজন নেই। 

ধারা ৪৪-এর অধীনে বন্ড গ্রহণের আদেশটি জামিন মঞ্জুর করার পরিমাণ নয় এবং তাই বন্ড গ্রহণ করার জন্য পিএম এল এ-এর ধারা ৪৫ এর জোড়া শর্ত পূর্ণ করা আবশ্যক নয়।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ভগবান বিজেপিকে থামিয়ে দিয়েছেন, মন্তব্য আরএসএস নেতার

    ডাকাতি করতে গিয়ে গৃহকর্ত্রীর সঙ্গে খোশগল্প, একজন ঘুমিয়েও পড়লেন

    ঈদের নামাজ যেন রাস্তায় না আসে, যোগীর রাজ্যে নির্দেশনা

    অহংকারের কারণে বিজেপি সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি, বললেন আরএসএস নেতা

    ভারী বর্ষণে সিকিমে ভূমিধস: নিহত ৬, দেড় হাজার পর্যটক আটকা

    শপথের পরদিনই সিকিমের বিধানসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রীর পদত্যাগ, নানা প্রশ্ন

    হজযাত্রীদের অতিগরম থেকে মুক্তি দেবে রোড-কুলিং প্রযুক্তি

    ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ১০ ঘণ্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিক

    ইতিহাস গড়ে আরও এক সুখবর পেল যুক্তরাষ্ট্র

    বিচিত্র

    খাবার চুরি করতে দুই ঘণ্টায় ৫ বাড়িতে ঢুকল ভালুক

    ঈদযাত্রা: সড়কে স্বস্তি মিললেও বাড়তি ভাড়ায় অস্বস্তি

    ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার হয়ে লড়ছে ৭ লাখ সেনা, জানালেন পুতিন