শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

নাইজেরিয়ায় অস্ত্রের মুখে শতাধিক মানুষকে অপহরণ 

আপডেট : ১২ মে ২০২৪, ১৭:০৮

উত্তর-পশ্চিম নাইজেরিয়ার তিনটি গ্রামে শতাধিক মানুষকে অপহরণ করেছে বন্দুকধারীরা। ছবি: সংগৃহীত  উত্তর-পশ্চিম নাইজেরিয়ার তিনটি গ্রামে শতাধিক মানুষকে অপহরণ করেছে বন্দুকধারীরা। গত শুক্রবার রাতে এই অপহরণের ঘটনা ঘটে। গতকাল শনিবার একজন জেলাপ্রধান এবং বাসিন্দারা এ তথ্য জানিয়ে বলেছেন, সর্বশেষ অপহরণের ঘটনায় ওই অঞ্চলে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বাসিন্দারা। 

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে। 

নাইজেরিয়ার উত্তর-পশ্চিমে প্রায়ই ঘটছে অপহরণের ঘটনা। অস্ত্রধারীরা গ্রাম, মহাসড়ক এবং স্কুল থেকে মানুষকে অপহরণ করে এবং তাদের আত্মীয়দের কাছ থেকে মুক্তিপণের টাকা দাবি করে আসছে। এসব ঘটনায় স্থানীয় বাসিন্দারা ব্যাপক নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। 

জামফারার বিরনিন-মাগাজি স্থানীয় সরকারের জেলাপ্রধান আলহাজি বালা বলেন, বন্দুকধারীরা গোরা, মাদোমাওয়া এবং জাম্বুজু গ্রামে হামলা চালিয়েছে। এ সময় তারা ৩৮ জন পুরুষ ও ৬৭ জন নারী-শিশুকে অপহরণ করেছে। অপহৃতদের সংখ্যা এর চেয়ে বেশি হতে পারে বলেও জানিয়েছেন তিনি। 

অপহরণকারীরা সবচেয়ে বেশি আক্রমণ চালায় জামফারা এলাকায় এবং অপহরণের পর জঙ্গলের ভেতর নিজেদের ক্যাম্পে চলে যায়। নাইজেরিয়ার সামরিক বাহিনী অপহরণকারীদের কয়েকটি শিবিরে বোমা হামলা চালিয়েছে, তবে এতেও বন্ধ হয়নি অপহরণ। 

জামফারা পুলিশের মুখপাত্র ইয়েজিদ আবুবকরের সঙ্গে তাৎক্ষণিকভাবে মন্তব্যের জন্য যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। 

মাদোমাওয়া গ্রামের প্রধান আমিনু আলিউ আশা বলেছেন, বন্দুকধারীরা মোটরবাইকে করে তাঁর গ্রামে আসে এবং বেশ কয়েকজনকে অপহরণ করার আগে বিক্ষিপ্তভাবে গুলি চালায়। 

আলিউ আশা আরও বলেন, ‘অপহরণ করে দস্যুরা শান্তিচুক্তি লঙ্ঘন করেছে। আমাদের অঞ্চলে আক্রমণ বন্ধ রাখার শর্তে এই বছরের ফেব্রুয়ারিতে অনেক মুক্তিপণ দিয়েছিলাম।’ 

নুসা সানি নামে এক বাসিন্দা বলেছেন, অপহৃতদের মধ্যে তার দুই ভাই আছেন। অপর বাসিন্দা গারবা কিরা বলেছেন, অপহৃতদের মধ্যে একটি লরিতে ১৫ জন ছিল, যা গ্রামের মধ্য দিয়ে যাচ্ছিল। 

এক দশক আগে জিহাদি গোষ্ঠী বোকো হারাম প্রথমবার গণ-অপহরণ করেছিল। ওই সময় তারা ২০০ জনের বেশি ছাত্রকে অপহরণ করেছিল। এর পর থেকে দেশটির অন্যান্য সশস্ত্র গোষ্ঠীও একই কাজ শুরু করেছে, যাদের কোনো নির্দিষ্ট মতাদর্শ নেই। এসব কারণে নাইজেরিয়ার অধিবাসীদের আর্থিক দুর্দশাও বেড়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    আইসক্রিমে কামড় দিয়ে বাদামের বদলে মিলল মানুষের আঙুল!

    ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদে আবারও অজিত দোভাল

    দাঙ্গায় উত্তাল আর্জেন্টিনা 

    ৩০০ কোটির সম্পদের জন্য শ্বশুরকে খুন করতে ১ কোটিতে খুনি ভাড়া করেন পুত্রবধূ

    কঙ্গোয় নৌকাডুবে ২১ শিশুসহ ৮৬ জন নিহত

    হত্যার পর পাকিস্তানি অভিনেত্রীকে ফেলে রাখা হয় মাঠে

    ঈদের ছুটিতে মহিলা সমিতির মঞ্চে প্রাঙ্গণেমোরের ‘অভিনেতা’

    ইংল্যান্ডপ্রবাসী তরুণীর ভিডিও ধারণ, যুবক গ্রেপ্তার

    সশস্ত্র সংগ্রামের পক্ষে অধিকাংশ ফিলিস্তিনি, বেড়েছে হামাসের সমর্থন: জরিপ 

    বিশ্বকাপের মাঝপথে বড় ধাক্কা খেল আফগানিস্তান

    গরুর মাংস আমদানিতে ব্রাজিলের বিকল্প উৎসের খোঁজে চীন

    ঈদের দিন কি বৃষ্টি হবে, গরম কেমন থাকবে—জানাল আবহাওয়া অধিদপ্তর