বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

জীবন রক্ষায় ‘সঞ্চালন ’

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৩

রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ে কাজ করছে সঞ্চালনের সদস্যরা। tফাইল ছবি রক্ত দিয়ে মানুষের জীবন বাঁচাতে কাজ করছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) ‘সঞ্চালন’ নামের একটি সংগঠন। ‘রক্তের প্রবাহে গড়ি আত্মার বন্ধন’ এই স্লোগান সামনে রেখে একদল শিক্ষার্থী এ সংগঠনে কাজ করছেন। করোনাকালে প্রায় এক হাজার মানুষকে রক্ত দিয়েছেন সংগঠনটির সদস্যরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৭ জন স্বপ্নবাজ শিক্ষার্থীর প্রচেষ্টায় ২০০৮ সালের ১৩ নভেম্বর যাত্রা শুরু করে এ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। সব মিলিয়ে প্রায় ২০ হাজার মানুষকে রক্ত দিয়েছেন তাঁরা। তাঁদের দেওয়া রক্তে অনেক মুমূর্ষু রোগী যেমন নতুন জীবন পেয়েছেন। তেমনি অনেক মা তাঁর সন্তানকে পৃথিবীর আলো দেখিয়েছেন।

সংগঠনটির সভাপতি সর্দার ইমন বলেন, প্রতিষ্ঠার পর থেকেই সর্বদা মানবসেবায় নিয়োজিত আছেন এর সদস্যরা। শুরুতে ২৭ জন তরুণ এর উদ্যোগ নিলেও এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি শিক্ষার্থীই এর সদস্য।

শুধু রক্তদান নয়, সঞ্চালনের আরেকটি সেবামূলক কাজ হচ্ছে অর্থাভাবে যাঁরা চিকিৎসা করাতে পারেন না, তাঁদের চিকিৎসায় সহযোগিতা করা। এ লক্ষ্যে সংগঠনটি বিভিন্ন চ্যারিটি অনুষ্ঠানের পাশাপাশি সহযোগিতার বাক্স নিয়ে যায় প্রতিটি শিক্ষার্থীদের কাছে। সবার সহযোগিতা নিয়ে পাশে দাঁড়ায় অসহায় মানুষের। এ ছাড়া শীতবস্ত্র বিতরণ, বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিনা মূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করে থাকে সংগঠনটি।

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অমিতাভ গোস্বামী বলেন, প্রতিবছর শাবিপ্রবির নবীন শিক্ষার্থীদেরও রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করে থাকে সঞ্চালন, যা পরে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে শিক্ষার্থীদের পরিচয়পত্রে সংযুক্ত করা হয়। রক্তের গ্রুপ নির্ণয় শিক্ষার্থীদের একটা তালিকাও সংগঠনের কাছে থাকে। কারও রক্তের প্রয়োজন হলে এই তালিকা থেকে আগ্রহী রক্তদাতা খুঁজে বের করা হয়।

সিলেটের যেখানেই রক্তের প্রয়োজন পড়ে, সেখানেই পাশে দাঁড়ান এর সদস্যরা। মানুষকে ভালোবেসেই নিঃস্বার্থভাবে কাজ করে যাচ্ছেন এই তরুণেরা। রক্তের অভাবে কারও অকাল মৃত্যু হবে না—এ স্বপ্নকে লালন করে ১১ বছর ধরে প্রচেষ্টার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন তাঁরা।

সংগঠনটির সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফুল আলম বলেন, রাত-বেরাতে কিংবা প্রাকৃতিক বৈরী সময়েও রক্ত দিয়ে জীবন বাঁচাতে গেছেন সংগঠনটির অনেক সদস্য। শত প্রতিকূলতা ডিঙিয়ে মুমূর্ষু রোগী কিংবা প্রসূতি মাকে রক্ত দিয়ে জীবন বাঁচানোর অনেক গল্প আছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সমাজের জন্য অনেক কাজ করছে। উদ্যমী কিছু তরুণ সঞ্চালন নামের সংগঠনটিতে কাজ করছেন। তাঁদের এ উদ্যোগ সত্যিই প্রশংসনীয়। রক্ত দিয়ে মানুষের জন্য কাজ করার স্বপ্নটাকে সারা দেশে ছড়িয়ে দিয়ে রক্তের প্রবাহে আত্মার বন্ধন গড়তে চায় এই তরুণ শিক্ষার্থীরা।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    কবুতরের সঙ্গে দিন কাটছে ইব্রাহীমের

    সেতু পুনর্নির্মাণের দাবি

    পোকার আক্রমণে বিবর্ণ ধান

    গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানালেন সেই ইকবালের মা

    সুপার টুয়েলভসের টিকিট পেল শ্রীলঙ্কা 

    বিদ্যুতের খুঁটি থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

    গোমস্তাপুরে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের হামলায় দুধ বিক্রেতা নিহত

    আশুগঞ্জে সৎ মায়ের বিরুদ্ধে শিশু হত্যার অভিযোগ

    ওবায়দুল কাদের মিথ্যুক: কাদের মির্জা