শনিবার, ২২ জুন ২০২৪

সেকশন

 

সৌদির নিওম মেগাসিটি প্রকল্পে থাকছে বিশ্বের সর্ববৃহৎ প্রবাল নার্সারি

আপডেট : ২৬ এপ্রিল ২০২৪, ১৮:০১

প্রবাল প্রাচীর অঞ্চলে স্থানান্তরের আগে নার্সারিতে তৈরি করা হচ্ছে প্রবাল। ছবি: কৌস্ত  প্রবাল প্রাচীর পুনরুদ্ধারে বিশ্বের বৃহত্তম প্রকল্পের ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরব। লোহিত সাগরে এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রতি বছর লাখ লাখ প্রবাল উৎপাদন করার উদ্যোগ নিয়েছে সৌদি আরবের কিং আব্দুল্লাহ ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি। 

বিশ্ববিদ্যালয়ের মতে, এই প্রকল্পটি ‘বিশ্বব্যাপী প্রবালপ্রাচীর পুনরুদ্ধারের ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপের প্রতিনিধিত্ব করে’। 

তাপমাত্রা ক্রমেই বেড়ে যাওয়ায় অনেক প্রবাল সাদা হয়ে যাচ্ছে, যাকে কোরাল ব্লিচিং বলা হয়। এতে প্রবলগুলো ক্রমে ক্ষয়ে যেতে থাকে।

কৌস্ত কোরাল রেস্টোরেশন ইনিশিয়েটিভ নামে পরিচিত এই প্রকল্পটির এরই মধ্যে সৌদি আরবের উত্তর–পশ্চিম লোহিত সাগর উপকূলে একটি নার্সারি রয়েছে। নার্সারিটি প্রতি বছর ৪০ হাজার প্রবাল উৎপাদন করতে সক্ষম। এটি একটি বৃহত্তর প্রকল্পের প্রাথমিক ধাপ যা আগামী বছরের শেষ নাগাদ শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তখন এ নার্সারিটির বার্ষিক উৎপাদন সক্ষমতা হবে ৪ লাখ প্রবাল। 

কৌস্তের প্রবাল নার্সারিতে দড়ির ওপর প্রবালের টুকরো স্থাপন করা হয়। এ প্রবালগুলো বেড়ে উঠলে এদের ক্ষতিগ্রস্ত প্রবালপ্রাচীরে স্থাপন করা হবে। কৌস্ত প্রকল্পে গত বছরের শেষের দিকে চারটি স্থানে তিন লাখেরও বেশি প্রবাল খণ্ড স্থাপন করা হয়েছিল। 

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওশেনিক অ্যান্ড অ্যাটমোস্ফেরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এনওএএ) জানিয়েছে, বিশ্বের প্রবাল প্রাচীরগুলো বড় ধরনের ব্লিচিং বিপর্যয়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্ত প্রবালের মধ্যে আরব উপসাগর, লোহিত সাগর, অস্ট্রেলিয়ার গ্রেট ব্যারিয়ার রিফ এবং ক্যারিবীয় অঞ্চলের প্রবাল রয়েছে। 

উচ্চ তাপমাত্রা বা অস্বাভাবিক কম তাপমাত্রার কারণে প্রবালের ভেতরে থাকা জুজ্যানথেলি নামের এককোষী শৈবাল যখন এগুলোকে ত্যাগ করে, তখন প্রবালগুলো এদের শক্তির প্রধান এক উৎস হারিয়ে ফেলে। এ থেকেই ব্লিচিং ঘটে। জুজ্যানথেলি বের হয়ে আসার পর প্রবালগুলো সাদা হয়ে যায়। তবে প্রবালগুলো তাদের জুজ্যানথেলি ফিরে পাওয়ার মাধ্যমে রংও ফিরে পেতে পারে। 

সাম্প্রতিক দশকগুলোতে প্রবাল ব্লিচিং সাধারণ ঘটনা হয়ে উঠছে। এতে প্রবালগুলোর আগের রূপে ফিরে যাওয়া কঠিন হয়ে উঠছে। 

কৌস্তের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক টনি চ্যান বলেন, ‘সাম্প্রতিক ঘটনাগুলো প্রবাল প্রাচীরের “বৈশ্বিক সংকটের” কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। তাই আমাদের উদ্দেশ্য হলো, প্রবাল প্রাচীরের বর্তমান অবক্ষয়ের হারকে কমিয়ে আনার জন্য প্রয়োজনীয় পুনরুদ্ধার ব্যবস্থার গতি বাড়ানোর পথ তৈরি করা।’ 

কৌস্ত কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সৌদি আরবে নির্মাণাধীন ৫০০ বিলিয়ন ডলারের মেগাসিটি নিওমের আওতাভুক্ত এই প্রকল্প। ১০০ হেক্টর জুড়ে এই ‘উদ্ভাবনী পুনরুদ্ধার পদ্ধতি’ পরীক্ষা করা হবে এবং ২০ লাখ প্রবাল টুকরো স্থাপন করা হবে। 

নিওমের প্রধান নির্বাহী নাধমি আল নাসর বলেছেন, এই প্রকল্পটি পরিবেশগত চ্যালেঞ্জগুলোর জন্য দীর্ঘমেয়াদি ও উদ্ভাবনী সমাধানের প্রতিশ্রুতি প্রতিফলিত করে। 

তিনি বলেন, ‘কৌস্তের সঙ্গে আমাদের সহযোগিতার একটি প্রাকৃতিক পদক্ষেপ হিসেবে প্রবাল প্রাচীরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোকে পুনরুজ্জীবিত করা হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে আমাদের দীর্ঘকালীন অংশীদারত্বের মাধ্যমে আমরা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সামুদ্রিক পরিবেশগত ব্যবস্থায় প্রবাল প্রাচীরের ভূমিকা এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য এদের সংরক্ষণের গুরুত্বও তুলে ধরব।’ 

সংযুক্ত আরব আমিরাতও প্রবাল পুনরুদ্ধারের কাজ শুরু করেছে। পরিবেশ সংস্থার সঙ্গে মিলে আবুধাবি ২০২১ সাল থেকে প্রবাল প্রাচীর পুনরুদ্ধারের কাজ করে আসছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    পাঁচজনের মধ্যে ৪ জনই জলবায়ু মোকাবিলায় পদক্ষেপ চায়: জাতিসংঘ

    সিলেটে বিপৎসীমার ওপরে নদীর পানি, কয়েকটি উপজেলা প্লাবিত

    ভারী বৃষ্টি হবে ৩ বিভাগে, জানাল আবহাওয়া অধিদপ্তর

    দখলদারদের পেটে ২০ হাজার পুকুর-দিঘি, হারাচ্ছে আসকারদীঘি-বলুয়ারদীঘিও

    বাংলাদেশে সাগরের পানি বৃদ্ধির হার বিশ্বের অন্যতম দ্রুততম

    উত্তর–পূর্বাঞ্চলে বাড়ছে নদ–নদীর পানি, বন্যার আশঙ্কা

    শিল্পকলায় নবরসের নাটক ‘উনপুরুষ’

    আইইএলটিএসে রিডিং ও রাইটিং প্রস্তুতি (পর্ব-২)

    বিষয়ভিত্তিক পরামর্শ: লোকপ্রশাসন ও সরকার পরিচালনা বিদ্যা

    রাশিয়ার শীর্ষস্থানীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে মাদ্রাসাছাত্র তামিম

    নবীজির রওজা জিয়ারতে আদব

    চোখের স্ট্রোক প্রতিরোধ করা সম্ভব