সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪

সেকশন

 

তাপপ্রবাহে বাড়ছে বোরো চাষের খরচ

আপডেট : ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২:২৩

বোরো খেতে ডিজেলচালিত শ্যালো মেশিন দিয়ে সেচ দিচ্ছেন কৃষক। গত মঙ্গলবার মাটিয়ালপাড়া মাঠে। ছবি: আজকের পত্রিকা ‘একে তো গরম, তার ওপর কারেন্ট থাকে না। পাম্পওয়ালা কারেন্ট না থাকায় ঠিকমতো ধানখেতোত পানি দেওছে না। খেত বাঁচার জন্য অ্যালা শ্যালো মেশিন নাগে পানি দেউছি। তাপ বেশি থাকায় রোগবালাইও বাড়ছে। এবার আবাদ খরচ অনেক বেশি হওছে। এমন তাপ থাকলে জীবন, ফসল—দুইটাই বাঁচা কঠিন হয়্যা যাইবে।’

রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার মাটিয়ালপাড়া মাঠের বোরো খেতে ডিজেলচালিত শ্যালো মেশিনে সেচ দেওয়ার সময় কথাগুলো বলছিলেন জুম্মাপাড়া গ্রামের কৃষক কালা মিয়া। ওই মাঠেই খেতে ওষুধ ছিটানো শেষে জোড়বটতলায় বসে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন ফকিরপাড়া গ্রামের কৃষক আখেরুল ইসলাম। তিনি জানান, অতিরিক্ত তাপে খেতে ব্লাস্ট (ছত্রাকজনিত রোগ) দেখা দেওয়ায় একবারেই দেড় হাজার টাকার ওষুধ ছিটিয়েছেন। পুরো বৈশাখ মাসে এমন তাপমাত্রা থাকলে বোরো চাষে প্রতি একরে পানি ও কীটনাশক ব্যয় বাড়বে কমপক্ষে ৮ হাজার টাকা।

চলমান প্রচণ্ড তাপপ্রবাহে শুধু কালা মিয়া ও আখেরুল ইসলামই নন, তাঁদের মতো হাজারো কৃষক বোরো ধান ও সবজি নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন। তাঁরা বলছেন, হিট শক ও ব্লাস্ট সংক্রমণ যাতে না হয়, সে জন্য ঘন ঘন সেচ এবং ওষুধ দেওয়ায় গত বছরের চেয়ে এবার উৎপাদন ব্যয় বাড়বে।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি বোরো মৌসুমে জেলায় ১ লাখ ৩২ হাজার ৬০০ হেক্টরে ধান চাষ হয়েছে। কৃষকেরা ১৫ মার্চ পর্যন্ত এ চারা রোপণ করেছেন।

অন্তত ছয়টি মাঠ ঘুরে দেখা গেছে, প্রচণ্ড রোদে খেত শুকিয়ে গেছে। সেগুলোতে ফসল রক্ষায় ডিজেলচালিত শ্যালো মেশিন দিয়ে সেচ দিচ্ছেন কৃষকেরা। কেউ কেউ করছেন কীটনাশক ও ছত্রাকনাশক প্রয়োগ। কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এক সপ্তাহ ধরে তাপমাত্রা বেশি থাকায় খেতের পানি দ্রুত শুকিয়ে যাচ্ছে। লোডশেডিংয়ের কারণে সেচ পাম্প দিয়ে পানির চাহিদা পূরণ না হওয়ায় কৃষকেরা ব্যক্তি উদ্যোগে ডিজেলচালিত মেশিন দিয়ে এক দিন পর পর সেচ দিচ্ছেন। অনেক খেত শুকিয়ে হিট শক ও ব্লাস্ট দেখা দিয়েছে। এতে ফসল রক্ষায় তাঁরা খেতে নিয়মিত ওষুধ প্রয়োগ করছেন।

হরকলির মাঠে ধান চাষ করা কৃষক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘এবার ছত্রাকনাশক আর সেচ খরচ খুবই বেশি হওছে। ধানের দাম ভালো না পাইলে লোকসান গুনবার নাগবে।’ ডাংগীরহাট মাঠের কৃষক হানিফ মিয়া বলেন, ‘আর কত দিন এইংকা গরম থাকবে? এমতোন থাকলো হামার সবজি খেতোত ফুল-ফল ঠিকমতো আইসার নেয়, উৎপাদন কম হইবে। ধানের শীষ চিটা হয়া যায়বে। আল্লাহ যেন দেশটাক ঠান্ডা করি দেয়।’

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হয় রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক রিয়াজ উদ্দিনের সঙ্গে। তিনি আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় রংপুরে তাপমাত্রা কম। আর এখানে ধানের পরাগায়ন বেলা ১১টার মধ্যে শেষ হয়। এখানে তাপমাত্রা বাড়ে দুপুর ১২টার পরে, তাই ধান ও সবজির তেমন কোনো সমস্যা হবে না। আমরা মাঠপর্যায়ে কৃষকদের খেতে সেচ ধরে রাখার পরামর্শ দিচ্ছি। কৃষকেরা অনেক সচেতন, তাঁরাও মাঠে ফসল রক্ষায় সব ধরনের চেষ্টা করছেন।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    ‘বাড়ি বদলেছি ২১ বার, ভাঙন দেখতে দেখতে চুল সাদা হয়ে গেল’

    বিরামপুরে ঈদের সেমাই কিনতে যাওয়ার পথে বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ নিহত ২ 

    ভারী বৃষ্টিতে সিলেট নগরীতে জলাবদ্ধতা, নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে

    ফুলবাড়ীতে বিদ্যুতায়িত হয়ে কৃষকের মৃত্যু

    হরিপুরে গলায় ফাঁস দেওয়া শিশুর মরদেহ উদ্ধার

    নেত্রকোনায় নদ-নদীর পানি বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই

    পাটকেলঘাটায় বিদ্যুতায়িত হয়ে শ্রমিক নেতার মৃত্যু 

    সাবধানে মাংস কাটাকাটি করতে অনুরোধ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

    ‘বাড়ি বদলেছি ২১ বার, ভাঙন দেখতে দেখতে চুল সাদা হয়ে গেল’

    আগামীকালের মধ্যে কোরবানি শেষ করার আহ্বান মেয়র আতিকের

    খাবারে ব্লেড পাওয়া যাত্রীকে অফার দিয়ে শান্ত করতে চাইল এয়ার ইন্ডিয়া