রোববার, ১৯ মে ২০২৪

সেকশন

 

হজে স্বাস্থ্যসেবা দল: তিন লাখ টাকায় তালিকায় নাম, ৩৯ জনের বহর বেড়ে ১৮৯

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ১৩:৫৫

ফাইল ছবি টাকার বিনিময়ে সমন্বিত হজ চিকিৎসক (স্বাস্থ্যসেবা) দলে অন্তর্ভুক্তির অভিযোগ উঠেছে এবারও। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত তালিকার ১৮৯ সদস্যের একাংশ আগে একাধিকবার হজ স্বাস্থ্যসেবা দলে ছিলেন। কেউ কেউ গেছেন সাতবারও। অথচ একবার হজে যাওয়া স্বাস্থ্যকর্মীর পরবর্তী সময়ে একই সুযোগ পাওয়া হজ নীতিমালা, ২০১৮-এর পরিপন্থী।

স্বাস্থ্যসেবা দলের সদস্যরা সরকারি খরচে হজ পালনের সুযোগের পাশাপাশি পদ অনুযায়ী সম্মানীও পাবেন। সর্বনিম্ন পদধারী সদস্য পাবেন ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা। অভিযোগ উঠেছে, এই দ্বৈত সুবিধাই স্বাস্থ্যসেবা দল নিয়ে বাণিজ্যের সুযোগ দিয়েছে অসাধু কর্মকর্তাদের; যে বাণিজ্যে লাভবান হচ্ছে উভয় পক্ষ।

স্বাস্থ্যসেবা দলের চূড়ান্ত তালিকা নিয়ে অনিয়মের লিখিত অভিযোগ জমা পড়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান, স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে। গত বছরও এমন অভিযোগ জমা পড়েছিল।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন আজকের পত্রিকাকে বলেন, হজ স্বাস্থ্যসেবা দলে তালিকাভুক্তিতে অনিয়মের কোনো অভিযোগ এখনো তিনি পাননি। এমন কোনো অনিয়ম হয়ে থাকলে জড়িতদের বিরুদ্ধে অবশ্যই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় চলতি বছরের সমন্বিত হজ চিকিৎসক দল গঠন করে ৯ এপ্রিল। ১৮৯ জনের এই বহরে চিকিৎসক ৮৫ জন, নার্স ৫৫ জন, ফার্মাসিস্ট ২৪ জন এবং ওটি/ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট ২৫ জন। দলটি পবিত্র হজ পালনে সৌদি আরবে যাওয়া বাংলাদেশি হাজিদের চিকিৎসাসেবা দেবে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে ১৬ জুন পবিত্র হজ হতে পারে। 

এবার বাংলাদেশ থেকে ৮৫ হাজার ২৫৭ জন হজ পালন করবেন। ৯ মে হজ ফ্লাইট শুরু হবে। গত বছর স্বাস্থ্যসেবা দলে ছিলেন ২০০ জন। গতবার হজ পালনে গিয়েছিলেন ১ লাখ ২২ হাজারের বেশি হাজি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশীদ আলম বলেন, ‘অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা থেকে ২৮ জন চিকিৎসক, ৮ জন ফার্মাসিস্ট এবং ৩ জন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের নামের তালিকা পাঠানো হয়েছিল। বাকি ৫৭ চিকিৎসক, ১৬ ফার্মাসিস্ট এবং ২৫ ওটি/ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট কীভাবে মনোনীত হয়েছেন, সেটি আমার জানা নেই।’

তালিকায় দেখা গেছে, দলের চিকিৎসকদের ১৪ শতাংশ ইসলামিক মিশন নামের একটি এনজিওর সঙ্গে জড়িত। এই এনজিও একটি বিশেষ রাজনৈতিক দলের মতাদর্শী। এ ছাড়া চিকিৎসকদের দলে ৯ দশমিক ৪ শতাংশ সামরিক বাহিনী থেকে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট থেকে ৭ শতাংশ করে চিকিৎসক আছেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সূত্র বলেছে, মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত তালিকায় নাম থাকা অনেক চিকিৎসক একাধিকবার সরকারি খরচে হজে গেছেন। হজে অপারেশন থিয়েটার (ওটি) ও ল্যাবরেটরি সুবিধা না থাকলেও এসব পদের ২৫ জন যাচ্ছেন। তাঁদের তালিকা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর দেয়নি।

মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তরের সূত্র এবং একাধিক চিকিৎসক ও নার্স বলেন, হজ দলে গেলে একজন চিকিৎসক ১০ থেকে ১২ লাখ টাকা, একজন নার্স সাড়ে ৬ থেকে সাড়ে ৭ লাখ টাকা এবং অন্যান্য কর্মচারী ৪ থেকে ৫ লাখ টাকা পান।

অভিযোগ উঠেছে, হজ স্বাস্থ্যসেবা দলে একবারের বেশি যাওয়ার সুযোগ না থাকলেও ‘ঘুষ’ অনেকের ক্ষেত্রে তা সহজ করেছে। জনপ্রতি ‘ঘুষের’ পরিমাণ ৩ থেকে ৫ লাখ টাকা। এর সঙ্গে মন্ত্রণালয়ের একজন নারী উপসচিব, নার্সিং অধিদপ্তরের কয়েকজন কর্মকর্তা জড়িত। ওই টাকার অর্ধেক অগ্রিম দিতে হয়েছে এবং বাকি অর্ধেক দিতে হবে ফেরার পর। এমন আর্থিক লেনদেনসংক্রান্ত তথ্য এবং এ নিয়ে একাধিক অডিও রেকর্ড আজকের পত্রিকার কাছে এসেছে। যেখানে দুজন কর্মকর্তা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের একজন নারী উপসচিবের বিরুদ্ধে অভিযোগ করছেন। তবে অনিয়ম বন্ধ হয়নি।

স্বাস্থ্যসেবা দলে তালিকাভুক্তিতে অনিয়ম নিয়ে ১৫ এপ্রিল দুদকের চেয়ারম্যান, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিবকে লিখিত অভিযোগ করেছেন সিনিয়র স্টাফ নার্স খান মো. গোলাম মোরশেদ। তিনি জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কার্যালয়ে কর্মরত। তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেন, গত ৭ ফেব্রুয়ারির বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আবেদন করলেও সমন্বিত হজ চিকিৎসক দল, ২০২৪-এর ৫৫ জন নার্সের তালিকায় তাঁর নাম নেই। পরে খোঁজ নিয়ে জেনেছেন, অনেকে তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকা উৎকোচ দিয়ে নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন। যাঁদের কেউ কেউ তিন থেকে সাতবার পর্যন্ত এভাবে হজে গেছেন।

খান মো. গোলাম মোরশেদ আজকের পত্রিকাকে বলেন, নার্সিং অধিদপ্তরের যে দপ্তর থেকে এসব বিষয় নিশ্চিত করার কথা, সেখানেই আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে অনিয়ম হয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, চূড়ান্ত তালিকায় নাম থাকা শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স মোসা. ইয়াসমিন ও সিনিয়র স্টাফ নার্স মো. আনিসুজ্জামান ইতিমধ্যে চারবার হজে গেছেন। ঢাকা নার্সিং কলেজের প্রভাষক নাজমা পারভীন সাতবার, ঢাকা মেডিকেলের সিনিয়র স্টাফ নার্স মোসা. কামরুন নাহার চারবার ও সিনিয়র স্টাফ নার্স হামিদা আক্তার তিনবার গেছেন। মতিঝিল জিওভি মাতৃসদন কেন্দ্রের সিনিয়র স্টাফ নার্স শিল্পী আক্তারও তিনবার হজ দলে ছিলেন। তালিকায় এমন নাম আরও আছে।

তালিকায় নাম থাকা চিকিৎসকদের মধ্যে সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের সিনিয়র কনসালট্যান্ট (সার্জারি) ডা. মো. একরামুল হক, সিনিয়র কনসালট্যান্ট (গাইনি) ডা. আরিফা জাহের, বাংলাদেশ সচিবালয় ক্লিনিকের দুই মেডিকেল অফিসার ডা. মোহাম্মদ শওকত হোসেন ও ডা. মো. মাহমুদুল হাসান, এজিবি জিওডি সেগুনবাগিচার মেডিকেল অফিসার ডা. ইশরাত জাহান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডা. মোস্তফা মাহমুদ ও ডা. মো. দুলাল উদ্দিন, ঢাকা ডেন্টাল কলেজ হাসপাতালের ডেন্টাল সার্জন ডা. আশিক আব্দুল্লাহ, বিআইডব্লিউটিএ বরিশালের সিনিয়র মেডিকেল অফিসার ডা. মো. জয়নাল আবেদীনসহ কয়েকজন একাধিকবার হজ দলে ছিলেন বলে জানা গেছে।

এ ছাড়া জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের নার্সিং সুপারভাইজার ফিরোজা আক্তারের নাম রয়েছে নার্সদের তালিকার ৬ ও ৪৫ নম্বরে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    বাড়তি ভাড়ার খড়্গ আম রপ্তানিতে

    সাক্ষাৎকার

    ট্রলকে কখনোই পাত্তা দিই না, আমার যোগ্যতা আমি জানি

    উপাচার্য-শিক্ষকদের দ্বন্দ্বে ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীরা

    মুজিবনগর সরকার এবং প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিভঙ্গি

    ইউরোপে অভিবাসন: কপাল পুড়ছে বাংলাদেশিদের

    বিদ্যুৎ নিয়ে সরকারের অনেক চ্যালেঞ্জ

    ৭২ লাখ টাকা জরিমানা দিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়ল বিদেশি জাহাজ

    শরীয়তপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ওপর হামলা, আহত ১০ 

    মাকে হত্যার আসামি হওয়ার পর জানলেন তিনি আসলে পালিত কন্যা

    চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

    কিরগিজস্তানে বিদেশি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার নেপথ্যে

    ইরানে দুই নারীসহ সাতজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর, ফাঁসিতে ঝুলতে পারে আরেক ইহুদি