বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

সেকশন

 

রমজানের পর মুমিনের ৮ করণীয়

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:০৫

ছবি: সংগৃহীত কোনো এক বুজুর্গ ব্যক্তি বলেছিলেন, ‘রব্বানি হও, রমজানি নয়।’ অর্থাৎ, কেবল পবিত্র রমজান মাসে আল্লাহর ইবাদত করবেন এবং বাকি ১১ মাস গুনাহের মধ্যে ডুবে থাকবেন, তা হতে পারে না। রমজান অবশ্যই ইবাদতের মৌসুম এবং এ মাসে বেশি বেশি ইবাদত করতে হবে। তবে এর অর্থ কখনোই অন্য সময়ে ইবাদত ছেড়ে দেওয়া নয়। কারণ বছরের অন্য সময়েও ফরজ ও নফল ইবাদতের মাধ্যমে নিজের আমলনামা সমৃদ্ধ করা মুমিনের দায়িত্ব।

আমল শুরু করার পর এর ধারাবাহিকতা রক্ষা করা আল্লাহ তাআলার অত্যন্ত প্রিয়। কারণ ধারাবাহিকতা রক্ষার অর্থ হলো, আল্লাহ তাআলা আগের আমলগুলো কবুল করেছেন বলেই পরেও একই আমল করার সুযোগ হচ্ছে। হাদিসে এসেছে, আয়েশা (রা.) বলেন, রাসুল (সা.)কে জিজ্ঞাসা করা হলো, ‘আল্লাহর কাছে কোন আমল সর্বাধিক প্রিয়?’ তিনি উত্তর দিলেন, ‘যে আমল সর্বদা করা হয়—চাই তা পরিমাণে কম হোক।’ (বুখারি)

রমজানের পর আমলের ধারাবাহিকতা কীভাবে রক্ষা করতে পারি আমরা? আলিমগণ এর বেশ কিছু উপায় বাতলে দিয়েছেন।
এখানে কয়েকটি তুলে ধরা হলো—
১. মহান আল্লাহর সাহায্য কামনা করা। আল্লাহ যেন রমজানের মতো পুরো বছর আমাদের আমলের ওপর রাখেন, সে জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তাঁর সাহায্য। পবিত্র কোরআনে তিনি আমাদের দোয়া করতে বলেছেন এভাবে, ‘হে আমাদের রব, আপনি আমাদের পথ প্রদর্শন করার পর আমাদের অন্তরকে বিপথগামী করবেন না। আর আপনার কাছ থেকে আমাদের প্রতি রহমত দান করুন। আপনিই একমাত্র দাতা। (আল ইমরান: ৩: ৮)

২. রমজানের পর নিয়মিত নফল রোজা আদায় করা। যেমন—শাওয়াল মাসের ছয় রোজা, ৯ জিলহজ আরাফাতের দিনের রোজা, ১০ মহররম আশুরার রোজা, সোম ও বৃহস্পতিবারের রোজা, আইয়ামে বিজের রোজা ইত্যাদি।

৩. তাহাজ্জুদ নামাজ অব্যাহত রাখা। তাহাজ্জুদ আল্লাহর প্রিয় নফল নামাজ। এর গুরুত্ব অপরিসীম। তাহাজ্জুদের ফজিলত সম্পর্কে মহানবী (সা.) বলেন, ‘আল্লাহ তাআলা রাতের শেষ তৃতীয়াংশে কাছের আসমানে অবতরণ করেন এবং বলেন, কে আছো দোয়া করবে এবং আমি তার দোয়া কবুল করব। কে আছো আমার কাছে (তার প্রয়োজন) চাইবে এবং আমি তাকে দান করব। কে আছো আমার কাছে ক্ষমা চাইবে এবং আমি তাকে ক্ষমা করব।’ (বুখারি) অন্য হাদিসে এসেছে, মহানবী (সা.) বলেন, ‘নিশ্চয়ই জান্নাতে রয়েছে এমন কিছু প্রাসাদ, যার বাইরে থেকে ভেতরাংশ দেখা যাবে, ভেতর থেকে বাইরের অংশ দেখা যাবে। এগুলো আল্লাহ তাদের জন্য প্রস্তুত করেছেন, যারা মানুষকে খাবার খাওয়ায়, কোমল ভাষায় কথা বলে, ধারাবাহিকভাবে রোজা রাখে, সালামের প্রসার ঘটায় এবং রাতে সবাই যখন ঘুমিয়ে পড়ে, তখন তারা নামাজে দাঁড়িয়ে যায়।’ (মুসনাদে আহমাদ)

৪. কোরআন তিলাওয়াত এবং সে অনুযায়ী আমল করা। রমজান কোরআন নাজিলের মাস বলে অন্য মাসে তা তিলাওয়াত করা, অর্থ অনুধাবন করা ও আমল করা যাবে না, তা কিন্তু সঠিক নয়। বরং রমজানের পরও কোরআনের সঙ্গে নিজেদের সম্পর্ক অব্যাহত রাখা উচিত। মহানবী (সা.) কিয়ামতের দিন আল্লাহর কাছে উম্মতের ব্যাপারে অভিযোগ করবেন, ‘হে আমার রব, আমার উম্মত তো এই কোরআনকে পরিত্যাজ্য মনে করেছে।’ (সুরা ফুরকান: ৩০) আল্লাহ যেন আমাদের সেদিনের অভিযুক্তদের সঙ্গে অন্তর্ভুক্ত না করেন।

৫. অসহায়দের পাশে দাঁড়ানো অব্যাহত রাখা। রমজানে আমরা সদকাতুল ফিতর, জাকাত ও অন্যান্য দানের মাধ্যমে অসহায়দের পাশে দাঁড়িয়েছি। রমজানের পরও যেন আমরা সেই কাজ অব্যাহত রাখতে পারি, সে জন্য চেষ্টা করতে হবে। এক দীর্ঘ হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, কিয়ামতের দিন আল্লাহ বলবেন, ‘হে আদমসন্তান, আমি খাবার চেয়েছিলাম, তুমি আমাকে খাদ্য দাওনি।’ মানুষ বলবে, ‘হে আমার রব, কীভাবে আপনাকে খাদ্য দেব, আপনি তো সৃষ্টিকুলের রব?’ আল্লাহ বলবেন, ‘তুমি কি জানতে না, আমার অমুক বান্দা খাবার চেয়েছিল? তুমি তো খাবার দাওনি। তুমি কি জানতে না, যদি তাকে খাবার দিতে, তাহলে তা (প্রতিদান) আমার কাছে পেতে?’ (মুসলিম)

৬. পছন্দের আমলগুলো অব্যাহত রাখা। আপনি যে আমলগুলো সহজে ও স্বাচ্ছন্দ্যে করতে পারেন, তা করতে থাকুন। সেই আমল যত ক্ষুদ্রই হোক না কেন। মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘হে লোক সকল, কেবল সেই নেক কাজগুলো করতে থাকো, যা তুমি করতে পারো। কারণ তুমি বিরক্ত না হওয়া পর্যন্ত আল্লাহ সওয়াব দিতে বিরক্ত হন না। আর আল্লাহর কাছে সর্বোত্তম আমল হলো, যা ধারাবাহিক—যদিও তা পরিমাণে অল্প হয়।’ (বুখারি)

৭. আল্লাহকে বেশি বেশি স্মরণ করা। তাঁর পবিত্র নামসমূহ উচ্চারণ করে তাঁকে ডাকাকে জিকির বলা হয়। জিকির বড় ফজিলতপূর্ণ ইবাদত। বান্দা যখন আল্লাহকে ডাকে, তখন তিনি তাদের ডাকে সাড়া দেন এবং তাদের ক্ষমা করে দেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আমাকে ডাকো, আমি তোমাদের ডাকে সাড়া দেব।’ (সুরা মুমিন: ৬০)

৮. গুনাহমুক্ত জীবনযাপনের চেষ্টা করা। রমজানে যেমন আমরা আল্লাহ তাআলার বিধিনিষেধ মেনে চলতাম, দিনের বেলায় নিষেধাজ্ঞা থাকায় আমরা খাওয়াদাওয়া থেকে বিরত থাকতাম, তেমনি আমাদের আয়-উপার্জন, খাদ্য, চলাফেরা, কাজকর্মেও সব বিধিনিষেধ মেনে চলব। হালাল গ্রহণ করব এবং হারাম বর্জন করব। মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘এমন শরীর কখনো জান্নাতে প্রবেশ করবে না, যা হারাম দ্বারা বর্ধিত। জাহান্নামই তার উপযুক্ত স্থান।’ (মুসনাদে আহমাদ)

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    সাদাসিধে জীবনযাপনে নবীজির উৎসাহ

    আমলে কাসিরের মর্ম ও বিধান

    ফরজ হজ আদায় না করার শাস্তি

    লোকমান হাকিমের ১২ উপদেশ

    নামাজ ভঙ্গের ১৮ কারণ

    হজের প্রেক্ষাপট ও আধ্যাত্মিক গুরুত্ব

    সেতু ভেঙে যাওয়ায় গোপালগঞ্জ-টুঙ্গিপাড়ার একাংশের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

    লালন বিজ্ঞান ও কলা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক পদে চাকরি

    নতুন আঙ্গিকে এথিক নাট্যদলের ‘হাঁড়ি ফাটিবে’

    জাতিসংঘে রাইসির স্মরণসভা বয়কট যুক্তরাষ্ট্রের 

    নিজেকে ঈশ্বর প্রেরিত দাবির পর এবার দুই দিনের ধ্যানে বসছেন মোদি

    বিচিত্র

    কিসের লোভে মানুষের ঘরে ঢুকে চুরি করে ভালুকটি