বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

সেকশন

 

কড়াপুর মিয়াবাড়ি জামে মসজিদ মোগল আমলের দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা

আপডেট : ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:৪৮

ছবি: সংগৃহীত কড়াপুর মিয়াবাড়ি জামে মসজিদ শুধু নান্দনিক নকশার জন্য নয়; বরং প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন হিসেবেও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রাচীন স্থাপত্যশৈলীর আকর্ষণীয় মসজিদটি বরিশালের সদর উপজেলার রায়পাশা-কড়াপুর ইউনিয়নের কড়াপুর গ্রামে অবস্থিত। মোগল আমলে নির্মিত বাংলাদেশের প্রাচীন মসজিদগুলোর একটি এটি। বরিশাল মহানগর থেকে মাত্র ৯ কিলোমিটার দূরে দ্বিতল ঐতিহাসিক এই মসজিদ ১৮ শতকের শেষ দিকে নির্মাণ করা হয়েছে বলে ধারণা করা হয়।

কিছুটা অস্পষ্ট ইতিহাস ও স্থানীয় লোকজনের সূত্রে জানা যায়, হায়াত মাহমুদ নামক এক ব্যক্তি অভিনব ডিজাইনের এই মিয়াবাড়ি মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা। তৎকালীন ইংরেজ শাসনের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে প্রিন্স অব ওয়েলস দ্বীপে নির্বাসিত হন তিনি। একই সঙ্গে তাঁর উমেদপুরের জমিদারিও কেড়ে নেওয়া হয়। দীর্ঘ ১৬ বছর পর দেশে ফিরে এই এলাকায় দুটি দিঘি ও দৃষ্টিনন্দন দ্বিতল এই মসজিদ নির্মাণ করেন তিনি। কথিত আছে, তাজমহল নির্মাণকারী কতিপয় কারিগর দিয়ে নির্মাণ করা হয় মসজিদটি।

ভ্রমণপিপাসু লোকজনকে মসজিদের সৌন্দর্য দারুণভাবে মুগ্ধ করে। অনন্য নির্মাণশৈলীর এই মসজিদ দৈর্ঘ্যে প্রায় ৭০ ফুট এবং প্রস্থে ৪০ ফুট। বলা হয়, চুন-সুরকির সঙ্গে মাষকলাই ও চিটাগুড় পচিয়ে এর নির্মাণসামগ্রী তৈরি করা হয়েছিল। এর অন্যতম নির্মাণবৈশিষ্ট্য হলো, ছাদে কোনো ধরনের রড কিংবা লোহা ব্যবহার করা হয়নি। ইট, সুরকি ও চুনের মিশ্রণ দিয়ে তৈরি ছাদের পুরুত্ব প্রায় এক ফুট। দোতলা এই মসজিদের নিচতলার দেয়ালের পুরুত্ব ৪০ ইঞ্চি এবং দ্বিতীয় তলার দেয়ালের পুরুত্ব ৩০ ইঞ্চি।

কারুকার্যখচিত মসজিদের উপরিভাগে তিনটি ছোট আকারের গম্বুজ রয়েছে। মাঝখানের গম্বুজটি অন্য দুই গম্বুজের চেয়ে আকারে কিছুটা বড়। মসজিদের সামনের দিকে চারটি মিনার এবং পেছনের দিকে চারটি মিনারসহ মোট আটটি বড় মিনার রয়েছে। মোগল রীতির চারকোনা এই মসজিদের সামনে ও পেছনের দেয়ালের মধ্যবর্তী স্থানে আরও ১২টি ছোট মিনার রয়েছে। মসজিদের উপরিভাগ, গম্বুজ এবং সব মিনার ও দেয়ালে নিখুঁত ও অপূর্বসুন্দর কারুকাজ করা হয়েছে, যা দর্শনার্থীদের সহজেই কাছে টানে। 

শুধু তা-ই নয়, মসজিদ লাগোয়া দিঘির স্বচ্ছ পানিতে মসজিদের প্রতিবিম্ব যেকোনো মানুষকেই মুগ্ধ করে। মসজিদটির নিচতলায় ছয় দরজাবিশিষ্ট কামরা থাকলেও দ্বিতীয় তলায় মূল মসজিদের আসল সৌন্দর্য ফুটে উঠেছে। এই অংশজুড়ে রয়েছে চমৎকার সব নকশার কাজ। বর্তমানে মসজিদটির দ্বিতীয় তলায় নামাজের ব্যবস্থা রয়েছে। দ্বিতীয় তলায় উঠতে বাইরে থেকে দোতলা পর্যন্ত একটি প্রশস্ত সিঁড়ি রয়েছে। আর নিচতলায় রয়েছে ৯টি কক্ষ। এর কয়েকটি কক্ষে বর্তমানে একটি মাদ্রাসার কার্যক্রম চলছে।

চোখে পড়ার মতো বিষয় হলো, সিঁড়ির নিচের ফাঁকা জায়গায় দুটি কবরও রয়েছে। কিন্তু এই কবর দুটি কাদের, তা আজও অজানা। মসজিদটির শৈল্পিক নকশার সৌন্দর্য উপভোগ করতে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসেন অসংখ্য পর্যটক। স্থানীয় লোকজনের দাবি, যথাযথ রক্ষণাবেক্ষণ হলে দীর্ঘদিন মুগ্ধতা ছড়াবে প্রাচীন এই মসজিদ, যা আমাদের সোনালি ইতিহাসকে করবে সমৃদ্ধ।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    সাদাসিধে জীবনযাপনে নবীজির উৎসাহ

    আমলে কাসিরের মর্ম ও বিধান

    ফরজ হজ আদায় না করার শাস্তি

    লোকমান হাকিমের ১২ উপদেশ

    নামাজ ভঙ্গের ১৮ কারণ

    হজের প্রেক্ষাপট ও আধ্যাত্মিক গুরুত্ব

    হামলার হুমকি পাওয়ায় ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে নিরাপত্তা জোরদার

    তিন খানকে টেক্কা, আইএমডিবির ভারতীয় তারকার তালিকার শীর্ষে দীপিকা

    উপায়ের আয়োজনে ময়মনসিংহে ‘ফ্রিল্যান্সার মিটআপ’

    সব প্রস্তুতি সম্পন্ন, প্রধানমন্ত্রীর আগমনে কলাপাড়ার মানুষের মধ্যে উচ্ছ্বাস

    ডামুড্যায় সংসদ সদস্যের পিএসই হলেন নতুন চেয়ারম্যান

    ‘ক্রলিং পেগ’ চালু করেও স্বস্তি ফিরছে না ডলার বাজারে