শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

সেকশন

 

শুক্রবার মঙ্গল প্রার্থনায় শেষ হবে রাখাইনদের জলকেলি উৎসব

আপডেট : ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ২২:১২

তিন দিনের জলকেলি উৎসবে মেতেছে রাখাইন তরুণ-তরুণীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা তিন দিনের জলকেলি বা সাংগ্রাই পোয়ে উৎসবে মেতেছে কক্সবাজারে রাখাইন সম্প্রদায়ের জনগোষ্ঠীরা। গতকাল বুধবার জেলার আট উপজেলায় শুরু হওয়া এ উৎসব আগামীকাল শুক্রবার মঙ্গল প্রার্থনার মধ্য দিয়ে শেষ হবে। 

রাখাইন সম্প্রদায় প্রতি বছর বৈশাখের সঙ্গে রাখাইন অব্দ (মগীসন) উদ্‌যাপন করে। পুরোনো বছরকে বিদায় ও নতুন বছরকে বরণ করে নিতে তারা পয়লা বৈশাখ থেকে সাত দিনব্যাপী এ উৎসব পালন করে থাকে। 

এ জনগোষ্ঠীর নাগরিকেরা জানান, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টায় রাখাইন অব্দের ১৩৮৫ বিদায় নিয়েছে এবং ১৩৮৬ অব্দ শুরু হয়েছে। পুরোনো বছরে হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে নতুন বছরে যাতে সুখে-শান্তিতে বসবাস করতে পারেন-তার জন্য এ উৎসব ভূমিকা রাখে। 

এ সময় রাখাইনদের ঘরে ঘরে উৎসব ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান পালন করা হয়। নারী-পুরুষেরা দল বেঁধে মন্দিরে গিয়ে বুদ্ধস্নানের মাধ্যমে সামনের বছর দুর্দশা থেকে মুক্তিলাভের প্রার্থনা করেন। এ উৎসব চলাকালে রাখাইন তরুণ-তরুণীরা ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে সেজেগুজে মণ্ডপে মণ্ডপে ঘুরে উৎসব পালন করে। 
 
তিন দিনের জলকেলি উৎসবে মেতেছে রাখাইন তরুণ-তরুণীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা সরেজমিনে দেখা যায়, জলকেলি উৎসবকে ঘিরে কক্সবাজার শহরের টেকপাড়া, চাউলবাজার, বৌদ্ধমন্দির সড়ক, বড় বাজারের রাখাইনপল্লিতে অন্তত ২০টি মণ্ডপ তৈরি করা হয়েছে। পাশাপাশি সদরের চৌফলদণ্ডী ও খুরুশকুল, মহেশখালী, টেকনাফ, রামু, চকরিয়া পেকুয়ায় শতাধিক মণ্ডপে চলছে জলকেলি উৎসব। তিন দিনের জলকেলি উৎসবে মেতেছে রাখাইন তরুণ-তরুণীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা শহরের টেকপাড়ায় দেখা যায়, শামিয়ানা টাঙানো বিশাল প্যান্ডেল। প্যান্ডেলের একপাশে নৌকাভর্তি পানি নিয়ে সারিবদ্ধ দাঁড়িয়ে আছেন রাখাইন তরুণীরা। পাশেই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের প্যান্ডেল। নানা বয়সের মানুষের আনাগোনা উৎসবস্থলে। দল বেঁধে রাখাইন তরুণেরা নৌকার পাশ দিয়ে যেতেই তরুণীরা পানি ছিটিয়ে মারছে। জবাবে তরুণেরাও পানি ছুটে মারছে। 

এ সময় নেচে গেয়ে এক মণ্ডপ থেকে আরেক মণ্ডপে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তরুণ-তরুণীরা। 

তিন দিনের জলকেলি উৎসবে মেতেছে রাখাইন তরুণ-তরুণীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা উৎসবে আসা নীলা রাখাইন আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘এটি আমাদের প্রাণের উৎসব। মঙ্গল জলে নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর অনুভূতি অন্যরকম।’ 

বৌদ্ধমন্দির সড়কের মং হ্লা রাখাইন জানান, সাংগ্রাই পোয়েই তাদের সবচেয়ে বড় উৎসব। জেলার আট উপজেলার রাখাইন পল্লির ঘরে ঘরে এ উৎসব চলছে। 

জলকেলির এ উৎসবে প্রতিবছর সহযোগিতা দিয়ে আসছে কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্র। এ কেন্দ্রের পরিচালক ও রাখাইন বুড্ডিস্ট ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মং চেং হ্লা বলেন, ‘খুবই উৎসবমুখর পরিবেশে জেলার ৪০ হাজার রাখাইন তিন দিনের এই জলকেলিতে বা সাংগ্রাই উৎসবে মেতেছেন। শুক্রবার মঙ্গল প্রার্থনায় এ উৎসব শেষ হবে।’ 

তিন দিনের জলকেলি উৎসবে মেতেছে রাখাইন তরুণ-তরুণীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা এ বিষয়ে কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার মো. মাহাফুজুল ইসলাম জানান, রাখাইন সম্প্রদায়ের অন্যতম এই উৎসব যেন শান্তিপূর্ণ ও নির্বিঘ্ন হয় এ জন্য পুলিশ সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    বিএনপি ভোট বর্জন করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতন্ত্রের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে: দুদু

    ভূঞাপুরে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেলচালক কলেজছাত্র নিহত

    চাঁদপুরে ‘নো হেলমেট নো ফুয়েল’ কার্যক্রম শুরু

    কালিহাতীতে ধান কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে প্রাণ গেল ২ ভাইয়ের

    মুলাদীতে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর সন্ধান ৬ দিনেও মেলেনি

    রাঙামাটিতে প্রতিপক্ষের গুলিতে ২ ইউপিডিএফ সদস্য নিহত

    বিএনপি ভোট বর্জন করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও গণতন্ত্রের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে: দুদু

    সারা দেশে কমবে তাপমাত্রা, বাড়বে বৃষ্টির প্রবণতা 

    ভূঞাপুরে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেলচালক কলেজছাত্র নিহত

    চাঁদপুরে ‘নো হেলমেট নো ফুয়েল’ কার্যক্রম শুরু

    কালিহাতীতে ধান কাটতে গিয়ে বজ্রপাতে প্রাণ গেল ২ ভাইয়ের

    মুলাদীতে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর সন্ধান ৬ দিনেও মেলেনি