বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

সেকশন

 

২৬৩ কোটি টাকা বিলিয়ে দিয়ে ছেলে-মেয়ের পথে হাঁটলেন ভারতীয় দম্পতি

আপডেট : ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১৯:৫৩

গত ফেব্রুয়ারিতে একটি শোভাযাত্রায় অংশ নিয়ে সব অর্থ সাধারণ মানুষের মাঝে বিলিয়ে দেন ভবেশ ও তাঁর স্ত্রী। ছবি: সংগৃহীত ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ২০০ কোটি রুপি সাধারণ মানুষের মাঝে বিলিয়ে দিয়েছেন ভারতের গুজরাটের এক জৈন দম্পতি। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ২৬৩ কোটি টাকারও বেশি। মূলত সন্ন্যাস জীবন বেছে নিতেই সর্বস্ব ত্যাগ করেছেন ওই দম্পতি। 

আজ সোমবার এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পরিত্রাণের আশায় গুজরাটের হিম্মতনগর থেকে শিগগির বেরিয়ে পড়বেন ভবেশ ভান্ডারি এবং তাঁর স্ত্রী। গত ফেব্রুয়ারিতে এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তাঁরা তাঁদের অর্জিত সব সম্পদ বিলিয়ে দিয়েছেন। চলতি মাসের শেষ দিকে আরেকটি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সন্ন্যাস জীবনে প্রবেশ করবেন তাঁরা। 

ধারণা করা হচ্ছে, ছেলে-মেয়ের অনুপ্রেরণাতেই সন্ন্যাস জীবন বেছে নিয়েছেন গুজরাটের হিম্মতনগরের ব্যবসায়ী ভবেশ এবং তাঁর স্ত্রী। ২০২২ সালেই তাঁদের ১৯ বছরের কন্যা এবং ১৬ বছরের পুত্র সন্ন্যাস জীবন বেছে নিয়েছিলেন। 

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২২ এপ্রিল দীক্ষা গ্রহণের পর পারিবারিক সব সম্পর্ক ছিন্ন করবেন ভবেশ ও তাঁর স্ত্রী। এর পর থেকে তাঁরা আর কোনো বৈষয়িক জিনিস স্পর্শ করবেন না। বাকি জীবন খালি পায়ে তাঁরা ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে হেঁটে বেড়াবেন এবং ভিক্ষা করে জীবন চালাবেন। 

সন্ন্যাসী হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর দুটি সাদা কাপড় নিজেদের মালিকানায় রাখতে পারবেন ভবেশ এবং তাঁর স্ত্রী। ভিক্ষার জন্য তাঁদের কাছে একটি পাত্রও থাকবে। আর থাকবে একটি ঝাড়ু, যেন কোথাও বসার আগে তাঁরা ওই স্থানটি পরিষ্কার করে নিতে পারেন। 

ভান্ডারি পরিবারের এমন দৃষ্টান্ত পুরো রাজ্যজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। তবে তাঁদের আগেও এই রাজ্যে আরও অনেকেই বিপুল সম্পদ ত্যাগ করে এমন পথ বেছে নিয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ভবরালাল জৈনের নামটি বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। সন্ন্যাস জীবন বেছে নিতে তিনি শতকোটির সম্পদ ত্যাগ করেছিলেন।

জানা গেছে, গত ফেব্রুয়ারিতে আরও ৩৫ জনসহ ভান্ডারি দম্পতি চার কিলোমিটারের একটি শোভাযাত্রায় অংশ নিয়েছিলেন। সে সময় তাঁরা তাঁদের মোবাইল ফোন, এয়ার কন্ডিশনার থেকে শুরু করে সব সম্পত্তি দান করেছিলেন। শোভাযাত্রার একাধিক ভিডিওতে ওই দম্পতিকে রাজকীয় পোশাকে একটি রথের ওপরে দেখা যায়। 

জৈন ধর্মে ‘দীক্ষা’ গ্রহণ এমন একটি অঙ্গীকার, যেখানে বস্তুগত কোনো আরাম-আয়াস ছাড়াই একজন মানুষ জীবন যাপন করেন। তিনি খালি পায়ে হেঁটে হেঁটে ভিক্ষা সংগ্রহ করে বেঁচে থাকেন।

এর আগে গত বছর গুজরাটে আরেক কোটিপতি হিরা ব্যবসায়ী এবং তাঁর স্ত্রী একই ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। পাঁচ বছর আগে তাঁদের ছেলেও মাত্র ১২ বছর বয়সে সন্ন্যাস জীবন গ্রহণ করেছিল। 

২০১৭ সালে ভারতের মধ্যপ্রদেশে সুমিত ও অনামিকা রাঠোর নামে আরেক দম্পতি ১০০ কোটি রুপির সম্পদ দান করেছিলেন এবং তাঁদের তিন বছর বয়সী কন্যাকে দাদা-দাদির কাছে রেখে তাঁরা ঘর ছেড়েছিলেন।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    মালাবদলের সময় কনেকে বরের চুমু, ভারতে আহত ৬ 

    শিখ নেতা পান্নুন হত্যাচেষ্টা: অভিযুক্তকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণের অনুমতি চেক আদালতের

    পুনের পোর্শেকাণ্ড: আড়াই হাজার টাকার জন্য লাইসেন্স ছিল না সাড়ে ৩ কোটির গাড়িটির

    আমার জন্ম হয়নি, ঈশ্বর আমাকে পাঠিয়েছেন: মোদি

    অনাগত সন্তান ছেলে নাকি মেয়ে—জানিয়ে বিপদে ভারতীয় ইউটিউবার

    লোকসভায় ৪০০ আসন না পেলেও ‘জিতবে মোদির জোট’

    ডাসারে পানিতে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু

    অর্ধকোটি টাকা আত্মসাৎ: স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ইউএনওর কাছে অভিযোগ 

    মিয়ানমার থেকে ছোড়া গুলিতে বাংলাদেশি জেলে আহত 

    এইচএসসির ফরম পূরণের সময় ফের বাড়ল

    এমপি আনোয়ারুল হত্যা তদন্তে কলকাতা পুলিশের দুই সদস্য ঢাকায়

    এনজিওর ঋণের চাপে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করেন আলী: পুলিশ