বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

সেকশন

 

বেদখল জমির দখল ফিরে পেতে কী করবেন

আপডেট : ১২ এপ্রিল ২০২৪, ১৯:৪৪

বেদখল জমির দখল ফিরে পেতে কী করবেন বাংলাদেশে গ্রামে কিংবা শহরে প্রভাবশালীদের হাতে জমি বেদখল হয়ে যাওয়া একটি সাধারণ ঘটনা। জমি বেদখল হলে কী করতে হবে, তা বেশির ভাগ মানুষই ঠিকমতো জানেন না। প্রভাবশালীদের হুমকি-ধমকির ভয়েও অনেকে চুপ থাকেন। কিন্তু এই ধরনের কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে বসে থাকলে চলবে না। দ্রুত আইনের আশ্রয় নিতে হবে। জমি বেদখল হলে, দখল পুনরুদ্ধারের জন্য দুই রকমের উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে। 

প্রথমত: স্থানীয়ভাবে সালিসের মাধ্যমে বিরোধের নিষ্পত্তি করার চেষ্টা করা যেতে পারে। যেসব অঞ্চলে স্থানীয় গণ্যমান্যদের নেতৃত্বে সালিস পরিচালিত হয়, তাঁরা এই উপায়ে বিরোধের নিষ্পত্তির চেষ্টা করতে পারেন। যদি উভয়পক্ষ সম্মত থাকে, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা সালিসে বসে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের মধ্য দিয়ে জমির আসল মালিককে তাঁর জমির দখল বুঝিয়ে দিতে পারেন। 

দ্বিতীয়ত: জমি বেদখল হলে প্রতিকারের আরেকটি উপায় আদালতে মোকদ্দমা করা। ফৌজদারি ও দেওয়ানি—এই দুই ধরনের আইনেই জমি বেদখল হওয়ার প্রতিকার পাওয়া যায়। 

ফৌজদারি প্রতিকার
জমি দখলকে কেন্দ্র করে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি দেখা দিলে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৪৫ ধারা অনুযায়ী প্রতিকার চাইতে পারেন। এ ধারা অনুযায়ী প্রতিকার চাইতে হবে প্রথম শ্রেণির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে। আর এ মামলা করতে হবে জমি বেদখল হয়ে যাওয়ার দুই মাসের মধ্যে। 

কোনো মামলা হলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সমন জারি করবেন। একই সঙ্গে বিরোধপূর্ণ জমি নিয়ে যাতে মারামারি বা খুনোখুনির মতো কোনো ঘটনা না ঘটে তা দেখার জন্য পুলিশকে দেখভালের নির্দেশ দিতে পারেন। পরবর্তীকালে উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনবেন এবং সাক্ষ্যপ্রমাণ শেষে সম্পত্তির দখলদারকে তা নির্ধারণ করবেন। 

১৪৫ ধারায় প্রতিকার চাইতে গেলে এখানে স্বত্ব বা মালিকানা দাবি করা যাবে না। এর মাধ্যমে শুধু প্রকৃত দখলদার নির্ণয় করার জন্য প্রতিকার চাওয়া যাবে।

ফৌজদারি কার্যবিধির ১৪৪ ধারায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে উৎপাত বা আশঙ্কার প্রতিকারের ক্ষেত্রে তৎক্ষণাৎ আদেশ জারির ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে।

ফৌজদারি কার্যবিধির ১৪৫ ধারায় বলা হয়েছে, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বা সরকার কর্তৃক বিশেষভাবে ক্ষমতাপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট যদি পুলিশ প্রতিবেদন বা অন্য কোনোভাবে সংবাদ পেয়ে যৌক্তিকতার নিরিখে সন্তুষ্ট হন যে তাঁর এখতিয়ারভুক্ত এলাকার মধ্যে জমি বা পানি বা সীমানা সম্পর্কে এমন বিরোধ রয়েছে, যা শান্তিভঙ্গ ঘটাতে পারে, তখন তিনি ব্যবস্থা নিতে পারে। পদক্ষেপের মধ্যে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বিরোধে জড়ানো পক্ষগুলোকে ব্যক্তিগতভাবে বা উকিলের মাধ্যমে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিতে পারেন। অথবা বিরোধের বিষয়বস্তুতে প্রকৃত দখল সম্পর্কে উভয় পক্ষের নিজ নিজ দাবিসংবলিত লিখিত বিবৃতি পেশ করার নির্দেশ দিয়ে লিখিত আদেশ দিতে পারেন।

উভয়পক্ষের বক্তব্য ও সাক্ষ্যাদি বিবেচনা করার পর যদি ম্যাজিস্ট্রেট মনে করেন, বিরোধপূর্ণ সম্পত্তি পূর্ববর্তী দুই মাসের মধ্যে বলপূর্বক ও অন্যায়ভাবে দখল করা হয়েছে, তাহলে দখলকৃত পক্ষকে ‘দখলদার’ বলে ঘোষণা করবেন। আর যদি ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে যৌক্তিকভাবে মনে হয় যে জমির প্রকৃত দখলকার কেউ ছিলেন না কিংবা কোনো পক্ষ দখলকার ছিল তা নির্ণয় করা দুঃসাধ্য তাহলে, এমন ক্ষেত্রে ম্যাজিস্ট্রেট ওই সম্পত্তি জব্দ করবেন। জব্দকৃত সম্পত্তি দেখভালের জন্য একজন ‘রিসিভার’ নিয়োগ করবেন।

আর যদি ওই জব্দকৃত সম্পত্তি ক্ষয়শীল বা দ্রুত পচনশীল হয় তবে, ম্যাজিস্ট্রেট চাইলে সেটি বিক্রি করতে পারবেন।

এ ছাড়া আইন সংগতভাবে উচ্ছেদ না হওয়া পর্যন্ত দখলে থাকা পক্ষ দখল বহাল রাখবেন। 

দেওয়ানি প্রতিকার
জমি বেদখল হওয়ার দুই মাসের মধ্যে ফৌজদারি আদালতে মামলা করতে ব্যর্থ হলে দেওয়ানি আদালতে মামলা করার সুযোগ রয়েছে। দেওয়ানি আইন অনুযায়ী, দেওয়ানি আদালতে মামলা করতে হলে জমি বেদখল হওয়ার তারিখ থেকে ছয় মাসের মধ্যে মামলা করতে হবে। তবে এ ক্ষেত্রে মামলার রায় পেতে কিছুটা সময় লাগবে।

সম্পত্তি বেদখল হলে জমির মূল্য বিবেচনায় দেওয়ানি আদালতের জজ আদালতে যেতে হবে এবং সে অনুযায়ী কোর্ট ফি দিতে হবে।

যেমন:
১. বেদখল সম্পত্তির মূল্য যদি ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত হয়, তাহলে জমিটি যে এলাকায় অবস্থিত সেই এলাকার সহকারী জজের কাছে মামলা করতে হবে। 

২. বেদখল সম্পত্তির মূল্য ১৫ লাখ ১ টাকা থেকে ২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত হলে জমিটি যে এলাকায় অবস্থিত সেই এলাকার সিনিয়র সহকারী জজের কাছে মামলা করতে হবে। 

৩. বেদখল সম্পত্তির মূল্য ২৫ লাখ টাকার বেশি হলে জমিটি যে এলাকায় অবস্থিত সেই এলাকার যুগ্ম জেলা জজের কাছে মামলা করতে হবে।

সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইন
সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইন ১৮৭৭-এর ৮ ধারামতে, জমিতে বৈধ মালিকানা থাকলে বেদখল হওয়ার ১২ বছরের মধ্যে এই আইনে মামলা করে জমির দখল ফিরে পেতে পারেন। তবে মালিকানা প্রমাণ (নথিপত্র) না থাকলে এই আইনে এই ধারায় প্রতিকার পাওয়া যায় না।

সুনির্দিষ্ট প্রতিকার আইনের ৯ ধারামতে, জমি বেদখল হলে ছয় মাসের মধ্যে এই ধারায় মামলা করে দখল ফিরে পেতে পারেন। জমিতে আপনার মালিকানা না থাকলেও শুধু আপনার দখলে ছিল—এটি প্রমাণ করতে পারলেই রায় পেতে পারেন। এই ধারায় দখল মূল বিষয়, মালিকানা কার সেটি দেখার বিষয় না।

তবে সরকার দখল করলে এই ধারায় মামলা করা যাবে না। এই ধারায় ডিক্রি লাভ করলে এর বিরুদ্ধে আপিল ও রিভিউ চলবে না। তবে রিভিশন করা যাবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    নারীর জীবনমান উন্নয়নে বাংলাদেশের পাশে থাকবে জাতিসংঘ

    থ্রিডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ বানিয়ে চমক দেখাল এপিএসসিএল

    সব ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার বিরুদ্ধে মামলা নয়, তালিকাও তৈরি হয়নি

    তিন মন্ত্রণালয়ে নতুন সচিব, পদোন্নতি পেলেন দুজন 

    মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার বন্ধ হবে না, কোটা পেতে সরকার কাজ করছে: প্রবাসী প্রতিমন্ত্রী

    মৃত্যুদণ্ডাদেশ চূড়ান্ত হওয়ার আগে কনডেম সেলে না রাখার রায় স্থগিত

    উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

    দ্বিতীয় ধাপের ভোটে যাঁরা চেয়ারম্যান হলেন

    সিলেটে নির্বাচনে হেরে আ.লীগ নেতাকে বেইজ্জতি করার হুমকি

    সিলেট থেকে সরাসরি হজ ফ্লাইট চালু

    পুনের পোর্শেকাণ্ড: আড়াই হাজার টাকার জন্য লাইসেন্স ছিল না সাড়ে ৩ কোটির গাড়িটির

    এমপি আনোয়ারুল আজীমকে খুন করতে ৫ কোটি টাকার চুক্তি

    যেসব কারণে ভ্রমণ ও পর্যটন সূচকে তলানিতে বাংলাদেশ