রোববার, ১৯ মে ২০২৪

সেকশন

 

ঈদের বাজার সেমাই-মাংস-পেঁয়াজের দাপটে নাকাল ক্রেতা

আপডেট : ০৯ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৩৬

গরুর মাংস, মুরগি, মসলা, সেমাই ও চিনির দাম বেড়েছে। খানিকটা স্বস্তি এসেছে ডিম-সবজির বাজারে। গতকাল রাজধানীর কারওয়ান বাজারে। ছবি: আজকের পত্রিকা মা-মেয়ের দুই সদস্যের পরিবারে মাছ-মাংস সবসময় খাওয়া হয় না। কিন্তু ঈদের দিন বাসায় মেহমান আসায় এসব না হলে চলেও না। তাই মেয়ে তিশাকে নিয়ে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে এসেছিলেন শাহনাজ আক্তার। তিনি আজকের পত্রিকাকে বললেন, ঈদের দিন দরকার হয়, এমন প্রতিটি জিনিসের দাম বাড়তি। সেমাই, মাছ-মাংস আর আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র কিনতেই মাসের খরচ অর্ধেক শেষ। বাকি মাস চলতে জমা টাকায় হাত দিতে হবে।

গতকাল সোমবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, গরুর মাংস, মুরগি, মসলা, সেমাই ও চিনির দাম এক বছরের ব্যবধানে ৪ থেকে ২১ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে। তবে ডিম-সবজির কিছুটা কমেছে।

ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) তথ্য বলছে, গত বছর এ সময়ে গরুর মাংসের দাম ছিল কেজিপ্রতি ৭২০-৭৫০ টাকা। এখন বিক্রি হচ্ছে ৭৫০-৭৮০ টাকায়। গত বছর ব্রয়লার মুরগি ছিল কেজিপ্রতি ১৯০-২১৫ টাকা। গতকাল বাজারে ২৫০-২৬০ টাকায় তা বিক্রি হতে দেখা গেছে। সোনালিকা ও দেশি মুরগির দামও এক বছরের ব্যবধানে কেজিতে বেড়েছে ৪০-১০০ টাকা পর্যন্ত।

মুরগির দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে কারওয়ান বাজারের ভাই ভাই মুরগির আড়তের বিক্রেতা তানভীর হোসেন বলেন, ‘খামারিদের বেশি দামে মুরগির বাচ্চা কিনতে হইতেছে। তাই আমরাও বেশি দামে পাইতেছি। সেভাবেই বিক্রি করতে হইতেছে।’

গতকাল বাজারে সুগন্ধি চিনিগুঁড়া চাল ৯৫-১৫০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। লাচ্ছা সেমাই ৮০০ গ্রামের প্যাকেট বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকায়। আর খোলা সেমাই ২২৫ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। বিক্রেতারা জানান, সেমাইয়ের দাম কেজিতে ২৫-৩০ টাকা বেড়েছে। গুঁড়া দুধ ১ কেজির প্যাকেট ৭০০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

ঈদের বাজারে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে মসলার দাম। টিসিবির হিসাবমতে, নতুন পেঁয়াজের দাম গত বছর এ সময়ে ছিল ৩০-৪০ টাকা। এখন তা বিক্রি হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকায়। আমদানি করা পেঁয়াজের দামও বেড়েছে। বছরের ব্যবধানে রসুনের দাম ৬১ শতাংশ বেড়ে ২০০-২২০ টাকা হয়েছে। শুকনা মরিচ ৪৫০-৫০০, আদা ১৯০-২৩০, জিরা ৬৫০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আড়াই শ গ্রাম গরম মসলার দাম এখন ৪০০-৪৫০ টাকা। গত বছর ছিল ২৫০-৩০০ টাকা।

টিসিবির তথ্য বলছে, বছরের ব্যবধানে ২১ শতাংশ বেড়ে চিনি এখন ১৩৫-১৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে বাজারে ১৫০ টাকা দরেও চিনি বিক্রি হতে দেখা গেছে। বিভিন্ন ধরনের বাদামের দামও কেজিতে ২০  থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

কারওয়ান বাজারের তুহিন জেনারেল স্টোরের ব্যবসায়ী শাহাদাত ব্যাপারী বলেন, তিন মাস আগেও মসলা, বাদামের দাম একটু কম ছিল। এখন কিছুটা বেড়েছে। 

ডিম-সবজির দাম কিছুটা কম
গতকাল প্রতি ডজন ফার্মের লাল ডিম ১২০-১৩০ ও সাদা ডিম ১১০-১২০ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। সবজির দামও কিছুটা কম। শসা ৩০-৪০, গাজর ৪০-৫০, টমেটো ৪০-৫০, কাঁচা মরিচ ৬০-৭০, বেগুন ও করলা ৬০-৭০ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। লেবুর হালি ১৫-৩০ টাকা। তবে সপ্তাহের ব্যবধানে ৫-১০ টাকা বেড়ে প্রতি কেজি আলু ৪৫-৫৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন আজকের পত্রিকাকে বলেন, দুদিনের মধ্যে মুরগির দাম কেজিতে ৩০-৪০ টাকা বেড়ে গেল। আমদানির পরও আলু-পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। রমজান, ঈদকে ব্যবসায়ীরা মোক্ষম সুযোগ হিসেবে নেন। বড় ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে পাড়ার মুদিদোকানি—সবাই বেশি মুনাফা করতে চান। বাজার তদারকি না থাকায় এমন হচ্ছে। বাজার ফ্রিস্টাইলে ব্যবসায়ীদের হাতে চলে গেছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    বাড়তি ভাড়ার খড়্গ আম রপ্তানিতে

    সাক্ষাৎকার

    ট্রলকে কখনোই পাত্তা দিই না, আমার যোগ্যতা আমি জানি

    উপাচার্য-শিক্ষকদের দ্বন্দ্বে ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীরা

    মুজিবনগর সরকার এবং প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিভঙ্গি

    ইউরোপে অভিবাসন: কপাল পুড়ছে বাংলাদেশিদের

    বিদ্যুৎ নিয়ে সরকারের অনেক চ্যালেঞ্জ

    ৭২ লাখ টাকা জরিমানা দিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়ল বিদেশি জাহাজ

    শরীয়তপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ওপর হামলা, আহত ১০ 

    মাকে হত্যার আসামি হওয়ার পর জানলেন তিনি আসলে পালিত কন্যা

    চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

    কিরগিজস্তানে বিদেশি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার নেপথ্যে

    ইরানে দুই নারীসহ সাতজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর, ফাঁসিতে ঝুলতে পারে আরেক ইহুদি