বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

সেকশন

 

নতুন শিল্প ধ্বংস করে চীনা আমদানি অনুমোদন করবে না যুক্তরাষ্ট্র: ইয়েলেন

আপডেট : ০৮ এপ্রিল ২০২৪, ১৮:২০

চীন সফরে পিপলস ব্যাংক অব চায়নার (পিবিওসি) গভর্নর প্যান গংশেংয়ের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থমন্ত্রী জেনেট ইয়েলেন। ছবি: এএফপি। যুক্তরাষ্ট্রের অর্থমন্ত্রী জেনেট ইয়েলেন আজ সোমবার চীনকে সতর্ক করে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের নতুন শিল্পকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে, এমন চীনা আমদানিকে অনুমোদন করবে না ওয়াশিংটন। বেইজিংকে তার অতিরিক্ত শিল্প ক্ষমতার লাগাম টেনে ধরার জন্য অনুরোধ করে চার দিনের চীন সফরের ইতি টেনেছেন ইয়েলেন। বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে খবরটি দিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জেনেট ইয়েলেন বলেন, ২০০০-এর দশকের শুরুতে চীনা আমদানি পণ্যের ধাক্কায় প্লাবিত হয়ে গিয়েছিল বাজার, ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ২০ লাখ উৎপাদন সংশ্লিষ্ট কর্মসংস্থান। সে ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন আর না ঘটে, সে ব্যাপারে সতর্ক করে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

বৈদ্যুতিক যানবাহন, ব্যাটারি, সৌর প্যানেল এবং অন্যান্য সবুজ শক্তির পণ্যগুলোতে বেইজিং তার বিশাল রাষ্ট্রীয় সহায়তা অব্যাহত রাখলে যুক্তরাষ্ট্র চীনের ওপর নতুন করে শুল্ক বা অন্যান্য বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞার হুমকি দেবে না বলে জানান ইয়েলেন।

নয় মাসের মধ্যে দ্বিতীয়বার চীন সফর করলেন জেনেট ইয়েলেন। এই সফরে তিনি অভিযোগ করেন যে, চীনের অত্যধিক বিনিয়োগের ফলে দেশটির কারখানায় উৎপাদিত পণ্য অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়েও বেশি থেকে যাচ্ছে। এই বাড়তি পণ্য রপ্তানির ফলে যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্য দেশের শিল্পগুলো পড়ছে হুমকির মুখে।

এই অতিরিক্ত উৎপাদন-সম্পর্কিত সমস্যার সমাধান নিয়ে আলোচনার জন্য নতুন একটি এক্সচেঞ্জ ফোরামের কথাও বলেন তিনি। একই ধরনের ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রকে যে অতীতেও ভুগতে হয়েছে সে কথাও মনে করিয়ে দেন মার্কিন অর্থমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমরা এর আগেও এমনটি দেখেছি। এক দশকেরও বেশি আগে সরকারি সহায়তার ফলে কম দামে প্রচুর পরিমাণে ইস্পাত উৎপাদন করেছিল চীন। সেই কম দামি ইস্পাতে সয়লাব হয়ে গিয়েছিল বিশ্ব বাজার। এতে ধ্বংস হয় গিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠান।’

ইয়েলেন বলেন, ‘আমি পরিষ্কার করছি যে প্রেসিডেন্ট বাইডেন এবং আমি কোনোভাবেই আর তেমনটা ঘটতে দেব না। বিশ্ববাজার কৃত্রিমভাবে সস্তা চীনা পণ্যে সয়লাব হলে মার্কিন এবং অন্য বিদেশি সংস্থাগুলোর কার্যকারিতা প্রশ্নবিদ্ধ হয়।’

যুক্তরাষ্ট্রের অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, চীনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে তাঁর বৈঠকে মার্কিন স্বার্থকে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। সে সঙ্গে, চীনের অতিরিক্ত শিল্পোৎপাদন ক্ষমতা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মতো একই উদ্বেগে রয়েছে ইউরোপ, জাপান, মেক্সিকো, ফিলিপাইন এবং অন্যান্য উদীয়মান বাজার।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    প্রেমে মেতেছেন চীনা তরুণী ও চ্যাটবট! 

    শিখ নেতা পান্নুন হত্যাচেষ্টা: অভিযুক্তকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রত্যর্পণের অনুমতি চেক আদালতের

    এশীয় রেশম কীটের ব্যবহার কারিগরদের শেখাতে কিউবার পরীক্ষামূলক প্রকল্প

    বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ‘কঠোর শাস্তি’ দিতে তাইওয়ান ঘিরে চীনের সামরিক মহড়া শুরু

    সৌদি-ইসরায়েল সম্পর্ক স্বাভাবিক না হওয়ার শঙ্কা ব্লিঙ্কেনের

    সংক্রমিত রক্ত কেলেঙ্কারি: যুক্তরাজ্যে আক্রান্ত ৩০ হাজার, মৃত ৩ হাজার

    হিডাহুডা খাইয়েন না, কেন্দ্রে টেন্দ্রে যাইয়েন না: কাদের মির্জার হুমকি 

    কর্ণফুলী গ্যাসের এমডির বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল

    ঈদকে ঘিরে ১১ দিন বাল্কহেড চলাচল বন্ধ থাকবে: নৌ প্রতিমন্ত্রী

    ওয়ারীতে নেশার টাকার জন্য মায়ের সঙ্গে ঝগড়ার পর ছেলের ঝুলন্ত লাশ

    পোস্টে কারা লাইক দিয়েছে, সেই তালিকা লুকিয়ে রাখবে এক্স

    বেনারসি তাঁত শিল্পকে আমরা ধ্বংস হতে দেব না: নানক