বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪

সেকশন

 

রুমার সোনালী ব্যাংকের অপহৃত ম্যানেজার ভালো আছেন, জানালেন ভাই

আপডেট : ০৪ এপ্রিল ২০২৪, ১৭:৪৫

বান্দরবানে সোনালী ব্যাংকের রুমা শাখার ব্যবস্থাপক নেজাম উদ্দিন। ছবি: সংগৃহীত বান্দরবানের রুমার সোনালী ব্যাংক শাখার ব্যবস্থাপককে সন্ত্রাসীরা অপহরণের পরদিন তাঁর স্ত্রীকে কল করেন এক প্রতারক। ইন্টারনেটের মাধ্যমে আসা ওই কলে দাবি করা হয় ব্যবস্থাপক নেজাম উদ্দিন তাদের কাছে আছেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে কথা বলতে চাইলে আর যোগাযোগ করেনি তারা।

তবে কোনো প্রতারক চক্র ওই কলটি করেছিল বলে নিশ্চিত করেছেন অপহরণের শিকার ইমতিয়াজের ভাই পুলিশ উপপরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান। 

আজ বৃহস্পতিবার ব্যবস্থাপক নেজাম উদ্দিনের স্ত্রী মাইছুরা ইসফাতের সঙ্গে কথা হয় আজকের পত্রিকার। তিনি বলেন, ‘মঙ্গলবার রাতে আমার স্বামী অপহরণের পর এখন পর্যন্ত কোনো যোগাযোগ করতে পারিনি। তবে, বুধবার সকালে ইন্টারনেটের মাধ্যমে একটি কল পেয়েছি। রিসিভ করার পর ওপাশ থেকে বলে-আপনার হাসবেন্ড আমাদের কাছে আছে। কথা বলায় দেব? তারপর আমি কথা বলতে চাইলে, তারা আর কথা বলায় দেননি। পরে, অনেকবার কল দিয়েও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।’ 

এ বিষয়ে নিজাম উদ্দিনের ভাই ও কর্ণফুলী থানার উপপরিদর্শক মিজানুর রহমান আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘বড় ভাবিকে যে নম্বর থেকে কল দিয়েছিল, ওই নম্বর আমরা চেক করে দেখেছি। কোনো প্রতারক চক্র ফোন দিয়েছে। তারা ভাবির সঙ্গে ভাইয়ার কথা বলায় দেবে বলে আর দিতে পারেনি। পরে অনেকবার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা অনেক চিন্তায় আছি। পুরো পরিবার স্তব্ধ। তবে, আমরা জানতে পেরেছি, বড় ভাই ভালো আছেন।’

গত মঙ্গল ও বুধবার পার্বত্য অঞ্চলে তিন ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনায় কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) সম্পৃক্ততা দেখছে প্রশাসন। প্রশাসনের একটি সূত্র জানিয়েছে, আজকে কুকি-চিনের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। ব্যাংক ব্যবস্থাপক নেজাম উদ্দিন ভালো আছেন। 
 

এদিকে সন্ত্রাসী হামলার আশঙ্কায় বান্দরবানের রুমা, রোয়াংছড়ি ও থানচি উপজেলায় সোনালী ব্যাংক শাখার সব কার্যক্রম অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ রয়েছে। একই সঙ্গে জেলা সদরের প্রতিটি ব্যাংক এবং এটিএম বুথে নিরাপত্তাব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তিন উপজেলায় আগের মতো ব্যাংকিং কার্যক্রম চালু হবে। 

অন্যদিকে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) সঙ্গে সব ধরনের আলোচনা বন্ধ ঘোষণা করেছে বান্দরবান শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটি। আজ বৃহস্পতিবার সকালে জেলা পরিষদ সম্মেলন কক্ষে আলোচনা শেষে এ সিদ্ধান্ত জানান শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটির আহ্বায়ক ক্য শৈ হ্লা। 

তিনি বলেন, পাহাড়ের অস্থিতিশীল পরিবেশ শান্ত করতে এবং কেএনএফ সদস্যদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু পাহাড়ে শান্তি ফিরিয়ে আনতে আলোচনার মধ্যেই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়েছেন কেএনএফের সদস্যরা। এর জেরে সব ধরনের আলোচনা স্থগিত করা হয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    কাপ্তাইয়ে অটোরিকশা উল্টে বনপ্রহরী নিহত

    সুনামগঞ্জে পর্যটন স্পটে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা

    তেজগাঁও ট্রাকস্ট্যান্ড হবে ১৫ বিঘা জমিতে: ডিএনসিসি মেয়র

    সিলেটে পানিবন্দী ৮ লাখের বেশি মানুষ

    ‘কিসের ঈদ করমো, হামার সউগ তলে গেইছে’ 

    ‘হামার গ্রামে শনিবার থাকি কারেন্ট নাই, ফ্রিজোত মাংস থুবার পারি নাই’

    ম্যাচসেরা

    ইংলিশ সল্টের ঝাঁজ ভালোই টের পেল ওয়েস্ট ইন্ডিজ

    দুদিনেও উইকেটের দেখা পাননি শান্তরা

    কোটিপতি কমলেও ক্ষুদ্র হিসাব বেড়েছে

    শুধু শান্ত নয়, অন্য দলের টপ অর্ডারও ভুগছে: হাথুরু

    সিলেটসহ পাঁচ জেলায় পানিবন্দী ১৪ লাখ মানুষ