বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

সেকশন

 

সারাহর কিডনি পেলেও ১৫ মাসের মধ্যে মারা গেলেন হাসিনা ও শামীমা

আপডেট : ০৩ এপ্রিল ২০২৪, ২১:০৪

শামীমা আক্তার। ছবি: সংগৃহীত দেশের প্রথম ক্যাডাভেরিক কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল শামীমা আক্তারের দেহে। তবে তাঁকে বাঁচানো গেল না! গতকাল মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) রাত ৯টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউতে) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। তিনি প্রথম ক্যাডাভেরিক কিডনি দাতা সারাহ ইসলামের কিডনি পেয়েছিলেন। শামীমার আগে আরেক নারীর দেহে সারাহর কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল। তিনিও মারা গেছেন। 

উল্লেখ্য, ক্যাডাভেরিক ট্রান্সপ্লান্টেশন বলতে বোঝায়, ক্লিনিক্যালি বা ব্রেইন ডেড কোনো ব্যক্তির অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ অন্য ব্যক্তির দেহে প্রতিস্থাপন করা। 

গত বছরের জানুয়ারিতে সারাহ ইসলামের অঙ্গদানের মাধ্যমে দেশে প্রথমবারের মতো ক্যাডাভেরিক কিডনি ট্রান্সপ্লান্ট করা হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ শামীমা আক্তার ও হাসিনার শরীরে তাঁর কিডনি প্রতিস্থাপন করে। 

কিন্তু গত বছরের অক্টোবরে হাসিনার মৃত্যু হয়। গতকাল রাতে শামীমা আক্তারের মৃত্যু হয় বলে খবর গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন বিএসএমএমইউয়ের প্রধান প্রতিস্থাপন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. হাবিবুর রহমান দুলাল। তিনি বলেন, ‘প্রথমজনের (হাসিনা) মৃত্যু হয়েছিল ফুসফুসে সংক্রমণে। দ্বিতীয়জনও চলে গেলেন। এটি আমাদের জন্য খুবই কষ্টের! শেষ ছয় মাস আমাদের আওতার বাইরে ছিলেন শামীমা।’

সম্প্রতি শামীমার ভাই তাঁর ক্রিয়েটিনিন বেড়ে যাওয়া এবং একেবারে শুকিয়ে যাওয়ার কথা জানালে তিন সপ্তাহ আগে আবারও বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয় তাঁকে। শুরুর দিকে কিছুটা উন্নতি হলেও কেন শুকিয়ে যাচ্ছিলেন সেটি ধরতে পারছিলেন না চিকিৎসকেরা। ক্রিয়েটিনিন পুনরায় বেড়ে যাওয়ায় ওয়ার্ড থেকে তাঁকে কেবিনে নেওয়া হয়। এরপরও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় চার দিন আগে আইসিইউতে নেওয়া হয়। 

শামীমার মৃত্যুর কারণ জানতে চাইলে অধ্যাপক ডা. হাবিবুর রহমান দুলাল বলেন, ‘তাঁর সি ভাইরাস ও বিরল নিউমোনিয়া ধরা পড়েছিল। সে অনুযায়ী ডায়ালাইসিসও শুরু করেছিলাম। আমাদের এখানে সমস্যা হওয়ায় ওয়ার্ডে নিয়ে সি ভাইরাস ডায়ালাইসিস দিয়েছিলাম। এরপরও উন্নতি হয়নি। বাইরের হাসপাতালেও একদিন নেওয়া হয়েছিল। অবস্থার পরিবর্তন না হওয়ায় আবারও আমাদের আইসিইউতে নেওয়া হয়। সেখানেই তাঁর মৃত্যু হলো।’ 

অধ্যাপক ডা. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘কোনো রোগীর হেপাটাইটিস সি পজিটিভ হলে রক্ত কাজ করে না। এ জন্য বিশেষ রক্ত লাগে, সেটিও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে আর রেসপন্স করেনি। বাড়িতে থাকার সময় অবস্থা খারাপ হলেও সময়মতো আমাদের জানানো হয়নি। কিছুটা অবহেলা তো ছিলই।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    তথ্য ছড়িয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকায় সোশ্যাল মিডিয়া: স্বাস্থ্যের ডিজি

    ‘স্বাস্থ্য তথ্য ও পরামর্শ ছড়িয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকায় সোশ্যাল মিডিয়া’

    এমআরসিপিতে সর্বোচ্চ নম্বরের রেকর্ড গড়লেন ডা. হালিম

    চার কোটি শিশু পাচ্ছে কৃমিনাশক ওষুধ

    খাবারে প্রতিক্রিয়া মানেই অ্যালার্জি নয়, ফুড অ্যালার্জি বুঝবেন যেভাবে

    মস্তিষ্কের বয়স বাড়ার গতি কমাতে পারে পুষ্টিকর খাদ্য: গবেষণা

    পোশাক কারখানা এলাকার পানিতে ভয়ানক রাসায়নিক

    ইংল্যান্ড-পাকিস্তানের ম্যাচ দেখবেন কোথায়

    ইসরায়েল থেকে ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহার

    নোয়াখালীর ৩ উপজেলায় আওয়ামী লীগের জয়

    বিশ্বকাপে যেকোনো দলকে হারানোর দক্ষতা আছে, বলছেন তানজিম সাকিব