বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

সেকশন

 

রিজার্ভের পতন ঠেকাতে আমদানিতে কড়াকড়ি থাকবে, আভাস দিল বিশ্বব্যাংক

আপডেট : ০২ এপ্রিল ২০২৪, ১৩:৪১

ঢাকায় বিশ্বব্যাংক কার্যালয়ে প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট আপডেট’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এ পূর্বাভাস দেওয়া হয়।  ছবি: সংগৃহিত

বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমা ঠেকাতে পণ্য আমদানির ওপর কড়াকড়ি চলতে থাকবে। মূল্যস্ফীতিও বাড়তে থাকবে। আজ মঙ্গলবার এক পূর্বাভাসে বিশ্বব্যাংক এসব কথা বলেছে। 

ঢাকায় বিশ্বব্যাংক কার্যালয়ে প্রকাশিত ‘বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট আপডেট’ শীর্ষক এক প্রতিবেদনে এই পূর্বাভাস দেওয়া হয়। বিশ্বব্যাংকের আবাসিক পরিচালক আবদুলায়ে সেক প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেন।

সংস্থাটি বলছে, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক খাতে নানা ঝুঁকি বিরাজ করছে। উপযুক্ত দৃঢ় ব্যবস্থা না নিলে তা প্রকট হওয়ার আশঙ্কা আছে। 

বাংলাদেশ ব্যাংকের গত ২৮ মার্চের তথ্য অনুযায়ী, বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ ছিল ২৪ দশমিক ৮১ বিলিয়ন ডলার। আর আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের গণনায় তা দাঁড়ায় ১৯ দশমিক ৪৫ বিলিয়ন ডলারে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি  চলতি অর্থবছরের (২০২৩-২০২৪) তুলনায় আগামী অর্থবছরে (২০২৪-২০২৫)  সামান্য বাড়বে।

৫.৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধির আগের পূর্বাভাস বহাল
 
চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৫ দশমিক ৬ শতাংশ হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। গত অক্টোবরেও একই পূর্বাভাস দিয়েছিল সংস্থাটি। 

বিশ্বব্যাংক বলেছে, আগামী ২০২৪-২৫ সালে প্রবৃদ্ধি কিছুটা বেড়ে ৫ দশমিক ৭ শতাংশ হতে পরে। যদিও গত অক্টোবরে এটা ৫ দশমিক ৮ হওয়ার কথা বলেছিল ব্যাংকটি। তবে ২০২৫-২৬ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি আরও বেড়ে ৫ শতাংশ হতে পারে। কিন্তু যথাযথ সংস্কার পদক্ষেপ না নিলে অর্থনৈতিক দুর্বলতা আরও প্রকট হতে পারে বলে সতর্ক করেছে সংস্থাটি।

বিদ্যমান মূল্যস্ফীতি, ব্যালান্স অব পেমেন্টের ঘাটতি ও আর্থিক খাতের দুর্বলতা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত করছে বলে মনে করছে বিশ্বব্যাংক। তবে কিছু ইতিবাচক পদক্ষেপও নেয়া হয়েছে বলছে সংস্থাটি। এর মধ্যে আছে জ্বালানির মূল্য সমন্বয়, রপ্তানি ভর্তুকি কমানো ও সংকোচনমূলক মুদ্রানীতি গ্রহণ।

বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর আবদুল্লায়ে সেক বলেন, উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে অনেক পরিবার ভোগান্তিতে পড়েছে। আমদানি নিয়ন্ত্রণে সরবরাহ ঘাটতি তৈরি হতে পারে। ব্যাংকে ঋণখেলাপির পরিমাণ অনেক বেশি। এ খাতে সংস্কার আনতে সহায়তা করতে প্রস্তুত বিশ্বব্যাংক। ব্যাংক একীভূতকরণের ক্ষেত্রে সতর্কতার সঙ্গে সঠিক বিধিমালা অনুসরণ করা উচিত। বাজারভিত্তিক বিনিময় হার করা উচিত। সব মিলিয়ে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জের মুখে রয়েছে বাংলাদেশ।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, দক্ষিণ এশিয়ায় ২০২৩-২৪ সালের আঞ্চলিক প্রবৃদ্ধি হতে পারে ৬ শতাংশ। আর ২০২৪-২৫ সালে তা ৬.১ শতাংশ হবে। ভারত, বাংলাদেশ এতে মূল ভূমিকা রাখবে। তাছাড়া পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার অবস্থারও উন্নতি হচ্ছে।

বিশ্বব্যাংক বলছে, ২০২৩-২৪ অর্থবছরে ভারতে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে। পাকিস্তানে ২০২৩-২৪ অর্থবছরে হবে ১.২ শতাংশ। এছাড়া ভুটানে ২০২৩-২৪ অর্থবছরে ৪ দশমিক ৯ শতাংশ, নেপালে ৩ দশমিক ৩ শতাংশ এবং শ্রীলঙ্কায় ২ দশমিক ২ শতাংশ, মালদ্বীপে ৪.৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    রোহিঙ্গা ও স্থানীয়দের জন্য ৭০ কোটি ডলার অনুদান দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক

    বাজেটে মূল্যস্ফীতি রোধে দেওয়া হবে সর্বোচ্চ গুরুত্ব: অর্থ প্রতিমন্ত্রী

    বাজেটে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতায় নজর দিতে হবে: আতিউর রহমান

    ক্রলিং পেগের কার্যকারিতা নিয়ে সংশয়, বাংলাদেশের ঋণমান ফের কমাল ফিচ

    গাড়ি আমদানিকারকেরা অবচয়-শুল্কসুবিধা চান

    ডলারের মজুত বাড়াতে আরও কড়াকড়ি হবে আমদানিতে

    বিচিত্র

    কিসের লোভে চুরি করে মানুষের ঘরে ঢুকে এ ভালুকটি

    ব্যাংক এশিয়ার প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়া কর্মকর্তাদের মধ্যে সনদ বিতরণ

    হামলার হুমকি পাওয়ায় ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে নিরাপত্তা জোরদার

    তিন খানকে টেক্কা, আইএমডিবির ভারতীয় তারকার তালিকার শীর্ষে দীপিকা

    উপায়ের আয়োজনে ময়মনসিংহে ‘ফ্রিল্যান্সার মিটআপ’

    সব প্রস্তুতি সম্পন্ন, প্রধানমন্ত্রীর আগমনে কলাপাড়ার মানুষের মধ্যে উচ্ছ্বাস