বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

সেকশন

 

‘অবৈধ ভারতীয় চিনির কারণে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে বছরে তিন হাজার কোটি টাকা’

আপডেট : ৩০ মার্চ ২০২৪, ২০:২৫

ফাইল ছবি  ভারতীয় চিনি অবৈধভাবে দেশে প্রবেশ করায় সরকার বছরে তিন হাজার কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ সুগার রিফাইনারি অ্যাসোসিয়েশন। আজ শনিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানিয়েছে সংস্থাটি। 

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রতিদিনই অবৈধভাবে দেশের জনগণের চাহিদার প্রায় ২৫ শতাংশ নিম্নমানের চিনি অবৈধভাবে সীমান্ত দিয়ে দেশের বাজারে প্রবেশ করছে। ফলে সরকার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে বছরে আনুমানিক তিন হাাজর কোটি টাকা রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। একই সঙ্গে ভোক্তা নিম্নমানের চিনি ক্রয় করে প্রতারিত হচ্ছে। এ ছাড়া বিপুল পুঁজি লগ্নি করে প্রতিষ্ঠিত চিনিকলসমূহ বন্ধ হওয়ার সম্মুখীন হয়েছে। 

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, পবিত্র মাহে রমজান মাসজুড়ে চিনির ব্যাপক চাহিদা থাকায় কিছু অসাধু ব্যবসায়ী নিম্নমানের চিনি বাজারজাত করে আসছে। এই চিনিগুলো মূলত চোরাই পথে পার্শ্ববর্তী দেশগুলো থেকে আসে। অবৈধভাবে প্রবেশকৃত চিনির মান নিয়ন্ত্রণের কোনো ব্যবস্থা নেই। সংগত কারণে ভোক্তা সাধারণ এই নিম্নমানের চিনি গ্রহণের মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যায় ভুগতে পারেন। এসব নিম্নমানের চিনি মানব শরীরে নানা জটিল রোগের সৃষ্টি করে। 

অসাধু ব্যবসায়ীরা দেশি ব্র্যান্ড ফ্রেশ, দেশবন্ধু, তীর, এস আলমসহ বিভিন্ন নামীদামি ব্র্যান্ডের নাম এবং বস্তা ব্যবহার করছে। এসব নিম্নমানের চিনি জালিয়াতি করে ব্র্যান্ডের চিনির বস্তায় ঢুকিয়ে বাজারে ছড়িয়ে দিচ্ছে। এতে করে প্রথমত, ওই সব ব্র্যান্ড আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে ও ব্র্যান্ড ইমেজ নষ্ট হচ্ছে। দ্বিতীয়ত, এসব চিনি জনসাধারণের জীবনে-মরণের বিষয় হয়ে উঠেছে দিনদিন। 

দেশের আপামর জনসাধারণের কথা বিবেচনা করে বাজার থেকে এসব নিম্নমানের চোরাই চিনি অতিসত্বর অপসারণ এবং এর সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শান্তির জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। এতে করে জনগণও বাঁচবে, দেশের ব্যবসায়ীরাও বাঁচবে এবং উন্নত হবে দেশের অর্থনৈতিক কাঠামো। সার্বিক বিষয়টি বিবেচনায় জরুরি ভিত্তিতে অবৈধভাবে নিম্নমানের ভারতীয় চিনি অনুপ্রবেশ বন্ধে অবিলম্বে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারকে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি। 

দেশের সাধারণ ভোক্তাদের চাহিদা মেটাতে দেশীয় চিনি কোম্পানিগুলো দীর্ঘদিন ধরে ভালো এবং গুণগত মানসম্পন্ন চিনি বাজারজাত করে আসছে। এই রমজানেও তার ব্যতিক্রম নেই। 

দেশে রোজা ও কোরবানির ঈদ সহ সারা বছরে চিনির চাহিদা আনুমানিক ২৪ লাখ টন। বেসরকারি বৃহৎ চিনির মিলের সংখ্যা ৫ টি। যার উৎপাদন ক্ষমতা দৈনিক ১৫ হাজার টন। সারা দেশে দৈনিক চাহিদা ৬ হাজার ৫০০ টনের বেশি নয়। অর্থাৎ আমাদের দেশের মিলগুলোতে চাহিদার দ্বিগুণ উৎপাদন ক্ষমতা রয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    বিমানের কাছে ৬টি উড়োজাহাজ বিক্রি করতে চায় বোয়িং, অর্থায়নসহ নানা আশ্বাস

    এসএমসির ইলেকট্রোলাইট ড্রিংক প্রত্যাহার করে দুই দিনের মধ্যে জানানোর নির্দেশ

    মিরপুরে নতুন আঙ্গিকে শোরুম উদ্বোধন করল র‍্যাংগ্‌স ইলেকট্রনিকস

    রংপুরে ঢালাই স্পেশাল সিমেন্টের ডিলার হাউসের উদ্বোধন

    চলতি মাসে ৪৫ হাজার টন পেঁয়াজ রপ্তানি ভারতের, অধিকাংশই মধ্যপ্রাচ্য ও বাংলাদেশে

    বাড়তি শুল্ক-ভ্যাটে কসমেটিকস শিল্প অসম প্রতিযোগিতার মধ্যে পড়ছে: উদ্যোক্তারা

    উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

    দ্বিতীয় ধাপের ভোটে যাঁরা চেয়ারম্যান হলেন

    সিলেটে নির্বাচনে হেরে আ.লীগ নেতাকে বেইজ্জতি করার হুমকি

    সিলেট থেকে সরাসরি হজ ফ্লাইট চালু

    পুনের পোর্শেকাণ্ড: আড়াই হাজার টাকার জন্য লাইসেন্স ছিল না সাড়ে ৩ কোটির গাড়িটির

    এমপি আনোয়ারুল আজীমকে খুন করতে ৫ কোটি টাকার চুক্তি

    যেসব কারণে ভ্রমণ ও পর্যটন সূচকে তলানিতে বাংলাদেশ