সোমবার, ২০ মে ২০২৪

সেকশন

 

বগুড়ার চিকন সেমাইয়ের কদর অনেক 

আপডেট : ৩০ মার্চ ২০২৪, ১৬:০৯

পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও সাদা চিকন সেমাই তৈরির বিভিন্ন প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত আছেন। ছবি: আজকের পত্রিকা বগুড়ার চিকন সেমাইয়ের সুনাম আছে। এখানকার বিভিন্ন জায়গায় বিক্রির পাশাপাশি পাইকারেরা কিনে নিয়ে বিক্রি করেন আশপাশের জেলাগুলোতে। বগুড়া শহরতলির বেজোড়া, কালশিমাটি, শ্যামবাড়িয়া নিশ্চিতপুর গ্রামে প্রতি বছর রমজান মাসের শুরু থেকে তৈরি করা হয় এই সাদা চিকন সেমাই। 

কালশিমাটি গ্রামের বাবলু মিয়া গত ২০ বছর ধরে বাড়িতেই পবিত্র শবে বরাতের পর থেকে চিকন সেমাই তৈরির কাজ শুরু করেন। তিনি জানান, ময়দার সঙ্গে পানি মিশিয়ে মেশিনের সাহায্যে তৈরি করা হয় চিকন সেমাই। এরপর রোদে শুকিয়ে বাঁশের তৈরি খাঁচিতে প্যাকেট করে বিক্রির জন্য প্রস্তুত করা হয়। এ বছর ময়দার দাম প্রতি বস্তায় (৩৭ কেজি) ২০০ টাকা কমেছে। তাই খরচও কিছুটা কম হচ্ছে। 

বাবলু মিয়া বলেন, দুই বস্তা ময়দা দিয়ে সেমাই তৈরি হয় ৭০ কেজি। পরে ২৫ কেজি করে সেমাই বাঁশের তৈরি খাঁচিতে প্যাকেট করে বিক্রি করা হয়। প্রতি খাঁচি সেমাই পাইকারি বিক্রি হয় ১ হাজার ৩০০ টাকা করে। কয়েক বছর আগেও রংপুর, দিনাজপুর, সৈয়দপুর, টাঙ্গাইল, গাজীপুর, রাজশাহীসহ বিভিন্ন এলাকার পাইকাররা এই গ্রামে আসতেন চিকন সেমাই কিনতে। কিন্তু এখন বিভিন্ন কোম্পানি নিজেরাই কারিগর দিয়ে মেশিন বসিয়ে চিকন সেমাই তৈরি করে নিজেদের নামে বিক্রি করেন। তার পরেও বগুড়া শহরের কিছু ব্যবসায়ী এখান থেকে সেমাই কিনে আশপাশের জেলাগুলোতে সরবরাহ করেন। 

শুধু ময়দা আর পানির মিশ্রণে তৈরি করা চিকন সেমাই স্বাস্থ্যসম্মত উল্লেখ করে কালশিমাটি গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি নুরুল ইসলাম বলেন, কমপক্ষে ৫০ বছর আগে পার্শ্ববর্তী বেজোড়া গ্রামে চিকন সেমাই তৈরির কাজ শুরু হয়। সেই সময় গ্রামে বিদ্যুৎ না থাকায় হাতে মেশিন ঘুরিয়ে সেমাই তৈরি ছিল বেশ কষ্টকর। বেজোড়া গ্রাম থেকেই পর্যায়ক্রমে আশপাশের গ্রামগুলোতে চিকন সেমাই তৈরির কাজ শুরু হয়। তিনি বলেন, বর্তমানে সব গ্রামেই বিদ্যুৎ সরবরাহ থাকায় বৈদ্যুতিক মোটরের সাহায্যে মেশিন চালানোর কারণে মানুষের যেমন কষ্ট কমেছে, তেমনি অল্প সময়ে বেশি সেমাই তৈরি করা হচ্ছে। 

ময়দার সঙ্গে পানি মিশিয়ে মেশিনের সাহায্যে তৈরি করা হয় চিকন সেমাই। ছবি: আজকের পত্রিকা গ্রামগুলো ঘুরে দেখা গেছে, কমপক্ষে ২০টি বাড়িতে সেমাই তৈরির কাজ চলছে। পানি আর ময়দার মিশ্রণ, রোদে শুকানো, খাঁচিতে প্যাকেটজাত করাসহ বিভিন্ন কাজ করছেন নারীরা। তাঁরা জানান, রমজান মাসে সেমাই তৈরির কাজ করে যে বাড়তি আয় হয়, সেই টাকা দিয়ে ঈদের কেনাকাটা করেন। 

কালশিমাটি গ্রামের লাভলী খাতুন ১৯৮৮ সাল থেকে চিকন সেমাই তৈরি করছেন নিজ বাড়িতে। তিনি একসময় বেজোড়া গ্রামে সেমাই তৈরির কাজ করতেন। সেখান থেকে কাজ শিখে নিজেই বাড়িতে মেশিন বসিয়ে প্রতিবছর রমজান মাসে সেমাই তৈরি করেন। তাঁর ছেলে খাঁচিতে ভরে বগুড়া শহরের রাজাবাজারে পাইকারি দোকানে বিক্রি করে আসেন। রমজান মাসে সেমাই তৈরি করে তিনি বাড়তি ২৫-৩০ হাজার টাকা আয় করেন। 

কয়েকটি গ্রামের কমপক্ষে ২০টি বাড়িতে সেমাই তৈরির কাজ চলছে। ছবি: আজকের পত্রিকা বগুড়া শহরের রাজাবাজারে পাইকারি সেমাই বিক্রেতা হাবিব আকন্দ বলেন, অল্প আয়ের মানুষের মধ্যে বগুড়ার তৈরি চিকন সেমাইয়ের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। পাশাপাশি বিভিন্ন জেলা থেকেও সেমাই বিক্রেতারা রাজাবাজার থেকে কিনে নিয়ে তাঁদের এলাকায় খুচরা বিক্রি করেন। তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন কোম্পানি এই চিকন সেমাই নিজেরাই তৈরি কিংবা আমাদের কাছ থেকে কিনে প্যাকেটজাত করে তাদের নামে বেশি দামে বিক্রি করছে। ফলে যারা গ্রামে সেমাই তৈরি করে, তারা কম দাম পেলেও কোম্পানি নিজেদের নাম ব্যবহার করে অধিক মুনাফা করছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ব্রাহ্মণপাড়ায় সোনালু ফুলে শোভিত প্রকৃতি

    নিখোঁজের ৩ দিন পর পাশের ইউনিয়নের পুকুরপাড়ে মিলল বৃদ্ধার লাশ

    গাজীপুরে ভাতিজার ছুরির আঘাতে চাচার মৃত্যু

    ওএমএস বিতরণে গাফিলতি হলে জেল-জরিমানা: খাদ্যমন্ত্রী 

    লাখাইয়ে আ.লীগ নেতাকে ভোট না দিলে তালাক দিয়ে এলাকাছাড়া করার হুমকি

    যশোর-নড়াইল মহাসড়কের গাছ আপাতত কাটা যাবে না: হাইকোর্ট

    আইসিবির শাখায় শাখায় ঘুরেও মিলছে না টাকা

    কে এই ইব্রাহিম রাইসি

    ইতিহাস গড়ার পর গার্দিওলা কি ম্যান সিটি ছাড়ার ইঙ্গিত দিলেন

    ব্রাহ্মণপাড়ায় সোনালু ফুলে শোভিত প্রকৃতি

    নিম্ন আদালতে পদ খালি, তবু হচ্ছে না বিচারকদের পদায়ন

    হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী