রোববার, ১৯ মে ২০২৪

সেকশন

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সড়কে ৪ লেনের কাজে ঈদযাত্রায় ভোগান্তির শঙ্কা

আপডেট : ৩০ মার্চ ২০২৪, ১১:২৯

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের এক পাশ দিয়ে চলছে গাড়ি। চারদিক ধুলায় আচ্ছন্ন। গত বৃহস্পতিবার দুপুরে আশুগঞ্জের সোনারামপুরে। ছবি: আজকের পত্রিকা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ নদীবন্দর থেকে আখাউড়া স্থলবন্দর পর্যন্ত ৫০ দশমিক ৫৮ কিলোমিটার সড়ক চার লেনে উন্নীত করা হচ্ছে, যা আশুগঞ্জ থেকে বিশ্বরোড মোড় পর্যন্ত ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে এবং বিশ্বরোড থেকে ধরখার পর্যন্ত কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কে পড়েছে। এই কাজের জন্য প্রতিদিনই ভয়াবহ যানজট হচ্ছে। এ কারণে এবার ঈদযাত্রা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

মহাসড়ক দুটি দিয়ে চলাচল করা যানবাহনের চালক ও যাত্রীরা জানান, রাস্তার কাজ শুরু হওয়ার পর থেকে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া অংশে মহাসড়ক দুটির দৈর্ঘ্য যথাক্রমে ৩৪ ও ৪৩ কিলোমিটার হলেও প্রতিটি পাড়ি দিতে কোনো কোনো সময় দু-তিন ঘণ্টা লাগছে। এই যানজট হয়েছে নিত্যদিনের সঙ্গী; পাশাপাশি আছে ধুলাবলু। কুয়াশার মতো ধুলার কারণে প্রায়ই সড়কে সামনের গাড়ি দেখার উপায় থাকে না।

গত বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা গেছে, আশুগঞ্জ থেকে বিশ্বরোড হয়ে ধরখার পর্যন্ত সড়কের বেশির ভাগ অংশে দুই লেনের কাজ শেষ হয়েছে। আর যেসব অংশ শেষ হয়নি, সেখানে যান চলাচলে চরম দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে। বিশেষ করে কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের পুরোনো সড়কে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সবচেয়ে খারাপ অবস্থা উজানিসার থেকে আহরন্দ পর্যন্ত। আর ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আশুগঞ্জ রেলগেট, সোনারামপুর, বেড়তলা ও বিশ্বরোড এলাকায় খানাখন্দ রয়েছে। 

কুমিল্লাগামী বাসযাত্রী লিয়াকত হোসেন বলেন, ‘উন্নয়নকাজ হবে ভালো কথা, তবে এত দীর্ঘ সময় ধরে কেন? আমরা এই ধুলাবালুতে অতিষ্ঠ হয়ে গেছি।’ অটোরিকশাচালক জাহাঙ্গীর আলমের মতে, এটি সড়ক নয়, যেন ধুলার রাজ্য। সুনামগঞ্জগামী হানিফ পরিবহনের বাসচালক আবদুল আলিম বলেন, রাস্তার অবস্থা খুবই খারাপ। গাড়ি ভালো করে চালানো যায় না। গাড়ির ক্ষতি হচ্ছে। সময় লাগছে অনেক বেশি। যাত্রীদের চরম সমস্যা হচ্ছে।

এ বিষয়ে কথা হলে আশুগঞ্জ নদীবন্দর-আখাউড়া স্থলবন্দর চার লেন মহাসড়ক প্রকল্পের উপব্যবস্থাপক শামিম আহাম্মেদ জানান, ঈদ সামনে রেখে তাঁদের কিছু পরিকল্পনা আছে। রামরাইল এলাকায় পুরোনো সড়কে যেখানে বেশি ভাঙা, সেটির এক পাশে নতুন সড়কের এক অংশ হয়ে গেছে। কিছুদিনের মধ্যে সেটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হবে। তবে আহরন্দ এলাকায় যে এক-দুই কিলোমিটার অংশ খারাপ অবস্থায় আছে, সেটিতে কিছু ভোগান্তি হবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মীর নিজাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, এবারের ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ধুলাবালু নিয়ন্ত্রণে সড়কে নিয়মিত পানি দেওয়া হবে।

ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে হাইওয়ে পুলিশের পাশাপাশি জেলা পুলিশ নানা পদক্ষেপ নেবে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাখাওয়াত হোসেন। তিনি বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কন্ট্রোল বুথ স্থাপন করা হবে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ৭২ লাখ টাকা জরিমানা দিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়ল বিদেশি জাহাজ

    চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

    কেএনএফের নারী সমন্বয়কসহ ২ জন কারাগারে

    পেঁয়াজ চুরির অপবাদে সাবেক ইউপি সদস্যকে খুঁটিতে বেঁধে নির্যাতন 

    ‘জ্ঞান ও প্রযুক্তির সমন্বয়ে নিজেকে তৈরি করতে পারলেই স্মার্ট নাগরিক হওয়া সম্ভব’

    রামগঞ্জে উপজেলা নির্বাচনের প্রচারে অংশ না নিতে এমপিকে সতর্ক

    ৭২ লাখ টাকা জরিমানা দিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়ল বিদেশি জাহাজ

    শরীয়তপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থীর ওপর হামলা, আহত ১০ 

    মাকে হত্যার আসামি হওয়ার পর জানলেন তিনি আসলে পালিত কন্যা

    চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

    কিরগিজস্তানে বিদেশি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার নেপথ্যে

    ইরানে দুই নারীসহ সাতজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর, ফাঁসিতে ঝুলতে পারে আরেক ইহুদি