শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

‘জায়গা জমি নাই আমাগোর’

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:০৬

 ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে পদ্মা পাড়ের মানুষেরা। ছবি: আজকের পত্রিকা  ‘গাঙ্গে ঘর ভাঙে গেল। আপনারা দেহেন না। আমি অসুস্থ, কনতে কনে যাব, সরার জাগা (জায়গা) নাই, জাগা-জমি নাই আমাগোর’—এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন সদর উপজেলার ৮০ বছর বয়সী মহিরন বেগম। উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়নের সিলিমপুর গ্রামের পদ্মা পাড়ের বাসিন্দা তিনি।

সরেজমিনে দেখা যায়, পদ্মার পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে নদী তীরবর্তী এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে পদ্মা নদী তীর সংরক্ষণকাজের ৫০ মিটার এলাকার সিসি ব্লক। ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে চরসিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ নদী পাড়ের ৩৫টি বসত বাড়ি। এরই মধ্যে বিদ্যালয়টির ভবনে পাঠদান বন্ধ করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ভাঙন রোধে জিও ব্যাগ ফেলছে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো)।

এলাকাবাসী জানান, মঙ্গলবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে চরসিলিমপুর এলাকায় হঠাৎ ভাঙন শুরু হয়। পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে নদী ভাঙন শুরু হওয়ায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন স্থানীয় বাসিন্দারা। দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে আরও ক্ষয়ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন তাঁরা।

স্থানীয় খোদেজা বেগম বলেন, ঘুম ভেঙে তিনি দেখেন নদীতে বুদ্‌বুদ উঠছে। নদীর পাড়ের বাঁকগুলো ভেঙে চলে যাচ্ছে। তখনই তাঁর স্বামী পাউবোকে মোবাইল ফোনে বিষয়টি জানান। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পাউবোর লোকেরা এসে কিছু বালুর বস্তা ফেলে। এখন বসতঘর নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন তিনি।

 ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে পদ্মা পাড়ের মানুষেরা। ছবি: আজকের পত্রিকা  এবারের ভাঙন আলী আকবরের মতো অনেককেই ফেলেছে ভয়াবহ অনিশ্চয়তায়। অনেকের জমিই এর আগে গেছে পদ্মার পেটে। এখন আবার চলছে চোখ রাঙানি। আলী আকবর বলেন, এর আগে নদী ভাঙনে তাঁদের বসতঘরসহ দুই বিঘা জমি বিলীন হয়েছে। তাঁর সহায় সম্বল সবই কেড়ে নিয়েছে নদী। এবার নদীতে আবার বসতঘর ভাঙলে ছেলেমেয়ে নিয়ে রাস্তায় দাঁড়াতে হবে।

ভাঙনে বিলীন হওয়ার শঙ্কায় থাকা চরসিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাঠদান কার্যক্রম বন্ধর কথা আগেই উল্লেখ করা হয়েছে। স্কুলটির শিক্ষা কার্যক্রম নিয়ে দুশ্চিন্তা থাকলেও এখন এর অস্তিত্বই সবচেয়ে বড় শঙ্কার মধ্যে রয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষক মো. ইমান আল ফকির বলেন, স্কুল থেকে ১০ গজ দূরে ভাঙন দেখা দিয়েছে। এরই মধ্যে ভবনের শিক্ষার্থীদের পাঠদান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আতঙ্কের মধ্যে রয়েছি, কখন যেন স্কুলটি নদীতে বিলীন হয়ে যায়।’

পাউবোর উপসহকারী প্রকৌশলী মো. রনি বলেন, খবর পেয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড তাৎক্ষণিকভাবে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলার কাজ শুরু করে। এখন ওই এলাকার ভাঙন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    প্রতিবেশী দুই পক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে বৃদ্ধা নিহত

    প্রতিবেশী দুই পক্ষের সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে বৃদ্ধা নিহত

    নাটোরে যুবলীগের বর্ধিত সভায় চেয়ার ছোড়াছুড়ি

    নাটোরে যুবলীগের বর্ধিত সভায় চেয়ার ছোড়াছুড়ি

    তেজগাঁওয়ে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

    তেজগাঁওয়ে ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত

    বিয়ে বাড়িতে গান-বাজনা নিয়ে দ্বন্দ্বে নিহত ১ 

    বিয়ে বাড়িতে গান-বাজনা নিয়ে দ্বন্দ্বে নিহত ১ 

    হাসপাতালে প্রাথমিক  চিকিৎসা শেষে ফের থানায় রাসেল 

    হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ফের থানায় রাসেল 

    ড্রাগন ফলের পুষ্টিগুণ

    ড্রাগন ফলের পুষ্টিগুণ

    করোনায় ব্যাংকে লাভ ছাঁটাই উভয়েই রেকর্ড

    করোনায় ব্যাংকে লাভ ছাঁটাই উভয়েই রেকর্ড

    ‘নাট্যকলায় পড়তে আমি ঘর পালাইছিলাম’

    ‘নাট্যকলায় পড়তে আমি ঘর পালাইছিলাম’

    ইমো এবং আরও কিছু

    ইমো এবং আরও কিছু

    নিজেই তো বুইসতে পাচ্ছি নাকো আপা!

    নিজেই তো বুইসতে পাচ্ছি নাকো আপা!

    ২০২৩ সাল থেকে নিশ্চিত হবে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ

    ২০২৩ সাল থেকে নিশ্চিত হবে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ