বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

সেকশন

 

আমাদের কোনো প্রভু নেই, আছে বন্ধু: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ২৫ মার্চ ২০২৪, ২১:৪১

সোমবার মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: বাসস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়—জাতির পিতা নির্দেশিত এই বৈদেশিক নীতি অনুসরণ করেই আমরা দেশ পরিচালনা করি। আমাদের কোনো প্রভু নেই, আছে বন্ধু। তাই কারও রক্তচক্ষু বাঙালি জাতি কোনো দিন মেনে নেবে না। প্রয়োজন হলে বুকের রক্ত দিয়ে বাঙালি জাতি দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব-সম্মান রক্ষা করবে।’

আজ সোমবার মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ওপর আবারও আস্থা রাখার জন্য দেশবাসীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য, যে উন্নয়ন-অগ্রগতি আমরা এখন পর্যন্ত সাধন করেছি, তা আরও এগিয়ে নিয়ে বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা। যে বাংলাদেশ হবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলাদেশ।’

জনগণকে উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আসুন, সকল কূটকৌশল-ষড়যন্ত্রের বেড়াজাল ছিন্ন করে ঐক্যবদ্ধভাবে বাংলাদেশের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রাকে আরও সামনে এগিয়ে নিয়ে যাই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যুগ যুগ ধরে আমাদের এই ভূখণ্ড ঔপনিবেশিক শক্তির লক্ষ্যবস্তু ছিল। নানা সময়ে বিদেশি শক্তিরা এ দেশ নিজেদের কবজায় নিয়ে শাসন করেছে, সম্পদ লুট করেছে, শোষণ করেছে। কোনো দিনই বাঙালি পরিপূর্ণ স্বাধীনতার স্বাদ পায়নি। জাতির পিতার নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে একটি স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র গঠনের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো সম্পূর্ণভাবে মুক্তি লাভ করে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অপ্রিয় হলেও সত্য যে আমাদের এই স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে খর্ব করার এবং অর্থনৈতিক মুক্তির আকাঙ্ক্ষা নস্যাৎ করার ষড়যন্ত্র আজও থামেনি। ষড়যন্ত্রকারীরা এখনো ওত পেতে বসে আছে, কীভাবে বাংলাদেশের অগ্রসরমাণ অভিযাত্রাকে স্তব্ধ করা যায়। একাত্তরের পরাজিত শক্তি ও পঁচাত্তরের ঘাতক এবং তাদের দোসররা এখনো তৎপর রয়েছে পরাজয়ের বদলা নিতে। সুযোগ পেলেই তারা আঘাত হানবে। তাদের সামনে একমাত্র বাধা আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগকে ছলে বলে কৌশলে নিশ্চিহ্ন বা দুর্বল করতে পারলেই পরাজিত শক্তির উত্থান অনিবার্য। কাজেই কান্ডারি হুঁশিয়ার।’

আওয়ামী লীগ জন্মের পর থেকেই গণতন্ত্র, মানবাধিকার এবং মানুষের মৌলিক অধিকার আদায়ের লড়াই করে আসছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘হাজারো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত গণতন্ত্র আওয়ামী লীগ কখনই ভূলুণ্ঠিত হতে দেবে না। উচ্চ আদালতের রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে সংবিধান সংশোধনীর মাধ্যমে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলের পথ আমরা চিরতরে বন্ধ করে দিয়েছি। দেশের সকল গণতান্ত্রিক দল এবং সাধারণ মানুষকে গণতন্ত্রকে সমুন্নত রাখার জন্য অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকা পালন করতে হবে। মনে রাখতে হবে, আমাদের সংবিধানই গণতন্ত্রকে সুরক্ষা দেওয়া ও সমুন্নত রাখার সর্বোচ্চ রক্ষাকবচ। সংবিধানকে পাশ কাটিয়ে বা পদদলিত করে কোনো কিছু করার চেষ্টার অর্থ হচ্ছে গণতন্ত্রকে খর্ব করা।’ তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার সব সময়ই সংবিধানকে সমুন্নত রেখে রাষ্ট্র পরিচালনা করে আসছে। জাতীয় সংসদকে আমরা রাষ্ট্রের সকল কার্যক্রমের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করেছি। স্থানীয় সরকারের সকল স্তরে নির্বাচনের মাধ্যমে জনপ্রতিনিধিগণের দ্বারা স্থানীয় পর্যায়ের উন্নয়ন নিশ্চিত করা হয়েছে।’ 

টানা দায়িত্ব পালনকালে দেশের সাধারণ মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের মাধ্যমে তাদের মুখে হাসি ফোটানোর চেষ্টার কথা তুলে ধরেন সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার ৫৩তম বার্ষিকীতে আমি দ্ব্যর্থহীনভাবে বলতে চাই, আমরা দেশবাসীর প্রত্যাশা অনেকাংশেই পূরণ করতে সক্ষম হয়েছি। এটা কোনো অসার বাগাড়ম্বর দাবি নয়। বাংলাদেশ আজ আর্থসামাজিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে উন্নয়নশীল বিশ্বে একটি উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। আমরা প্রমাণ করেছি, রাজনৈতিক সদিচ্ছা এবং সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে সীমিত সম্পদ দিয়েও একটি দেশকে এগিয়ে নেওয়া যায়।’ 

দেশবাসীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের ম্যান্ডেট নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বিগত ১৫ বছরের অধিক সময় ধরে সরকার পরিচালনা করছে। এই ১৫ বছরের অভিযাত্রা একেবারেই কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না। প্রাকৃতিক ও মনুষ্যসৃষ্ট দুর্যোগ, মহামারি, যুদ্ধ, আন্তর্জাতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি এবং সর্বোপরি দেশি-বিদেশি শক্তির নানা ষড়যন্ত্র আমাদের চলার পথকে বাধাগ্রস্ত করেছে বারবার। ঘূর্ণিঝড় আইলা ও সিডর এবং কয়েক দফা প্রলয়ংকরী বন্যা উপকূলীয় এবং নিম্নাঞ্চলের মানুষের জীবন-জীবিকায় ব্যাপক প্রভাব ফেলে।’ 

এবারের রমজান মাসকে সামনে রেখে চিনি, ছোলা, ডাল, ভোজ্যতেলসহ কয়েকটি পণ্যের পর্যাপ্ত মজুত গড়ে তোলা হয়েছে বলে জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, একচেটিয়া বাজার তৈরি করে অধিক মুনাফা যাতে কেউ করতে না পারে, সে জন্য ভারত থেকে ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ এবং প্রায় সমপরিমাণ আলু আমদানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে। ঈদ উপলক্ষে সারা দেশের ১ কোটি ৬২ হাজার ৮০০ পরিবারের জন্য সরকার ১ লাখ ৬২৮ টন চালের বিশেষ বরাদ্দ দিয়েছে। প্রতি পরিবার বিনা মূল্যে ১০ কেজি করে চাল পাবে। 

এ বছর সরকারি ও আওয়ামী লীগের দলগতভাবে ইফতার পার্টির নিরুৎসাহিত করার কথা তুলে ধরেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ এবং এর সকল সহযোগী সংগঠন নির্দেশমতো তৃণমূল পর্যায় পর্যন্ত গরিব-দুস্থদের মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করছে।’

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রমজান মাসের শুরুতে খেজুর, আমদানি করা ফল, লেবু, তরমুজ, পেঁয়াজসহ কয়েকটি পণ্যের দাম কিছুটা চড়া ছিল। তবে এসব পণ্যের দাম কয়েক দিনের মধ্যেই স্বাভাবিক ও সহনীয় পর্যায়ে নেমে এসেছে। জিনিসপত্রের দাম বাড়লে সাধারণ মানুষের, বিশেষ করে সীমিত আয়ের মানুষের কষ্ট হয়। আমরা আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি মানুষের কষ্ট লাঘবের।’ 

করোনাভাইরাস ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে নিষেধাজ্ঞা-পাল্টা নিষেধাজ্ঞায় বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো চরম সংকটের মুখে পড়েছে বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, নিত্যপণ্যের উৎপাদন ও বিপণন যেমন ব্যাহত হচ্ছে, তেমনি এসব পণ্যের স্বাভাবিক চলাচলও বাধাগ্রস্ত হওয়ায় পণ্যের মূল্য অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    এমপি আনোয়ারুল হত্যার সঙ্গে ভারতের কেউ জড়িত নাই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    এমপি আনোয়ারুল আজিমকে পরিকল্পিতভাবে খুন, বাংলাদেশে গ্রেপ্তার ৩: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    এমপি আনারের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক 

    মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সূচকে বাংলাদেশের অবস্থা এখনও ‘সংকটজনক’

    ভারতে নিখোঁজ এমপি আজিম হয়ত ফাঁদে পড়েছেন, পুলিশের ধারণা

    ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

    এইচএসসির ফরম পূরণের সময় ফের বাড়ল

    এমপি আনোয়ারুল হত্যা তদন্তে কলকাতা পুলিশের দুই সদস্য ঢাকায়

    এনজিওর ঋণের চাপে স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হত্যা করেন আলী: পুলিশ 

    নির্জন এলাকায় বাগানবাড়ি, শাহীনের বিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ গ্রামবাসী

    ওবায়দুল কাদেরের ভাইয়ের প্রার্থিতা হাইকোর্টে বহাল