বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

কিছুতেই থামছে না ড্রেজিং নৈরাজ্য

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:১৬

বর্ষাকাল আসলেই জাজিরায় শুরু হয় বাল্কহেড দিয়ে বালু উত্তোলন। ছবি: সংগৃহীত শরীয়তপুরের জাজিরায় বর্ষাকাল আসলেই শুরু হয় ড্রেজিং নৈরাজ্য। এতে করে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে প্রচুর ফসলি জমি। একই সঙ্গে যত্রতত্র স্পিড ব্রেকারের কারণে ঘটছে অনেক দুর্ঘটনা। প্রতি বছর বর্ষাকাল আসলেই ড্রেজার ব্যবসায়ীদের তৎপরতা বেরে যায়।

জানা যায়, স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী মহল উক্ত ড্রেজার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। প্রত্যেকটি ইউনিয়ন ও এলাকায় আলাদা আলাদা সিন্ডিকেট রয়েছে। যারা মোটা অঙ্কের কমিশনের বিনিময়ে ড্রেজার ব্যবসায়ীদের দিয়ে কাজ করান। শুধু মাত্র জাজিরা পৌরসভায়ই রয়েছে ২০০ এর অধিক ড্রেজার। ফলে সড়ক-মহাসড়কে অস্থায়ী ভিত্তিতে যত্রতত্র গড়ে তোলা হয়েছে ড্রেজার পাইপের গতিরোধক। এতে রাস্তায় চলাচলকারী যানবাহন প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।

সড়ক ও মহাসড়কে অস্থায়ী ভিত্তিতে যত্রতত্র ড্রেজার পাইপের গতিরোধক কয়েক মাস যাবৎ বসানো রয়েছে। এমনকি জাজিরা পৌরসভা ও জাজিরা ইউনিয়নসহ আশপাশের এলাকায় বেশ কয়েকটি জায়গায় মাসখানেক আগে ড্রেজার পাইপ সরিয়ে ফেলা হয়। কিন্তু সরানো হয়নি গতিরোধক। অন্যদিকে, কেউ কেউ আবার ফসলি জমি উজাড় করে বালু বিক্রি করছে অন্যত্র। এতে করে ক্রমশ ফসলি জমি কমে আসছে।

গাড়ি চালক শাহিন মাদবর বলেন, জাজিরায় নিয়মিত সড়ক ও মহাসড়কে অস্থায়ী ভিত্তিতে গড়ে তোলা ড্রেজার পাইপের গতিরোধকের কারণে অনেক সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। এমনকি গত বছর জাজিরা-নড়িয়া মহাসড়কে মারাত্মক একটি অ্যাক্সিডেন্ট হয়। এ ছাড়া প্রতিনিয়ত ছোটবড় অ্যাক্সিডেন্টতো হচ্ছেই।

এ বিষয়ে জাজিরা পৌরসভার মেয়র মো. ইদ্রিস মিয়া বলেন, যত্রতত্র জায়গায় যাতে গতিরোধক তৈরি না করা হয় সে বিষয়ে আমরা কাজ করছি। কেউ যত্রতত্র জায়গায় গতিরোধক দিলে আমরা ব্যবস্থা নিব।

জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশরাফুজ্জামান ভূঁইয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অবৈধ ড্রেজিংয়ের বিরুদ্ধে আমরা প্রতিনিয়ত অভিযান পরিচালনা করছি। আবার কখনো কখনো স্থানীয় প্রশাসনিক লোকজনদের দিয়ে সতর্ক করছি। তবুও অনেকে বাল্কহেড দিয়ে ড্রেজিং ব্যবসা করছে। আবার অনেকেই অবৈধভাবে ফসলি জমি কেটে নিচ্ছে। আমরা অতি দ্রুত ব্যবস্থা নিব।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    যাত্রীর জ্যাকেটের ভেতরে মিলল ২ কোটি টাকার স্বর্ণ

    যাত্রীর জ্যাকেটের ভেতরে মিলল ২ কোটি টাকার স্বর্ণ

    ইভ্যালির ব্যবসায় ভুল স্বীকার রাসেলের

    ইভ্যালির ব্যবসায় ভুল স্বীকার রাসেলের

    জাতীয় প্রেস ক্লাব ও প্রেস ক্লাব অব ইন্ডিয়ার মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

    জাতীয় প্রেস ক্লাব ও প্রেস ক্লাব অব ইন্ডিয়ার মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই

    খেয়া মাঝিকে মারধরের ভিডিও ভাইরাল, মামলা নেয়নি পুলিশ

    খেয়া মাঝিকে মারধরের ভিডিও ভাইরাল, মামলা নেয়নি পুলিশ

    এমএলএম ব্যবসার নামে প্রতারণা, পরিচালকসহ গ্রেপ্তার ১৭

    এমএলএম ব্যবসার নামে প্রতারণা, পরিচালকসহ গ্রেপ্তার ১৭

    হাইকোর্টে জামিনের আবেদন শিশু বক্তা রফিকুলের

    হাইকোর্টে জামিনের আবেদন শিশু বক্তা রফিকুলের

    মাখোঁ-বাইডেনের ফোনালাপ, অক্টোবরে সাক্ষাৎ

    মাখোঁ-বাইডেনের ফোনালাপ, অক্টোবরে সাক্ষাৎ

    হাসপাতালে স্ত্রীর মরদেহ রেখে পালালেন স্বামী

    হাসপাতালে স্ত্রীর মরদেহ রেখে পালালেন স্বামী

    যৌন হেনস্তা নারীদের মস্তিষ্কের ক্ষতি করে

    যৌন হেনস্তা নারীদের মস্তিষ্কের ক্ষতি করে

    কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে আর বিনিয়োগ করবে না চীন

    কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে আর বিনিয়োগ করবে না চীন

    বিশ্বের দুই-তৃতীয়াংশ শিশু অপুষ্টিতে ভুগছে

    বিশ্বের দুই-তৃতীয়াংশ শিশু অপুষ্টিতে ভুগছে

    ভারত সীমান্তে মিয়ানমারের হাজারো নাগরিক

    ভারত সীমান্তে মিয়ানমারের হাজারো নাগরিক