শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

শরীয়তপুরের প্রধান শিক্ষক হত্যায় ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড, ৯ জনের যাবজ্জীবন

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:০৬

শরীয়তপুরের চন্দ্রপুরে আলোচিত আব্দুস ছামাদ আজাদ মাস্টার হত্যা মামলায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড ও ৯ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। মামলার অপর পাঁচ আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে। আজ বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মনির কামাল এ রায় দেন। 

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হচ্ছেন চাঁন মিয়া খান, নুরুজ্জামান খান, জাহাঙ্গীর মাদবর ও জুলহাস মাদবর। এই মামলায় আব্দুল হালিম মোল্লা, ফারুক খান, আজিজুর মাদবর, জলিল মাদবর, আজাহার মাদবর, লাল মিয়া মীর, মিজান মীর, এমদাদ মাদবর ও আকতার গাজীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। মামলার অপর পাঁচ আসামি আজিবর বালি, খোকন ব্যাপারী, সোহরাব মোল্লা, আজাহার মোল্লা, আব্দুল খন্দকারকে খালাস দেওয়া হয়েছে। 

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১০ সালের ১৫ জানুয়ারি শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে সদর উপজেলার চন্দ্রপুর ইউনিয়নের লক্ষ্মীরমোড় বাসস্ট্যান্ডে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে নির্মমভাবে হত্যা করা হয় আব্দুস সামাদ আজাদকে। ১৭ জানুয়ারি নিহত ছামাদ মাস্টারের স্ত্রী ফেরদৌসী আজাদ ওই সময়ের চন্দ্রপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম মোল্লাকে ১ নম্বর আসামি করে ৩০ জনের নাম উল্লেখ করে পালং থানায় হত্যা মামলা করেন। এরপর দীর্ঘ আট বছর মামলার তেমন কোনো অগ্ৰগতি না থাকায় ২০১৮ সালে মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নেওয়ার জন্য আবেদন জানান মামলার বাদী। ২০১৮ সালের মার্চ মাসে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৩-এ স্থানান্তর করেন। ২০২১ সালের মার্চ মাসে মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ হয়। গত ৮ সেপ্টেম্বর এই মামলায় উভয় পক্ষের যুক্তিতর্ক শেষ করা হয়। এর আগে তদন্ত শেষে ২০১১ সালের ১১ মে ১৮ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শহীদুল ইসলাম ও সুলতান মাহমুদ। 
নিহত ছামাদ মাস্টার চিকন্দি শরফ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। ২০১০ সালের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী ছিলেন। এর আগে ২০০৩ সালে চন্দ্রপুর ইউপি নির্বাচনেও তিনি প্রার্থী ছিলেন। পরে ২০১০ সালের নির্বাচনের আগে স্থানীয়দের কাছে জনপ্রিয় হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন ছামাদ মাস্টার। 

নিহত ছামাদ মাস্টারের স্ত্রী ফেরদৌসী আজাদ আদালতের রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে আজকের পত্রিকাকে বলেন, `আমার স্বামী একজন জনপ্রিয় মানুষ ছিলেন। নির্বাচনের আগে তখনকার চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম মোল্লা তাঁর লোকজন নিয়ে আমার স্বামীকে নির্মমভাবে কুপিয়ে হত্যা করেন। মামলার রায়ের জন্য দীর্ঘ ১১ বছর অপেক্ষায় থেকেছি। তবে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী আজিবর বালি খালাস পাওয়ায় আমরা বিস্মিত। আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে দণ্ডিতদের রায় কার্যকরের দাবি জানাচ্ছি।' 

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. মাহাবুবুর রহমান জানান, আদালতে ১৪ জন সাক্ষী ও চারজন সাফাই সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণের পর অপরাধ সাংঘাতিকভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডসহ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ২০ বছর ধরে দুর্ভোগের জীবন পৌরবাসীর

    ২০ বছর ধরে দুর্ভোগের জীবন পৌরবাসীর

    শিক্ষার্থীদের মাঠে ফেরাতে দুমকিতে শিক্ষকদের ফুটবল ম্যাচ

    শিক্ষার্থীদের মাঠে ফেরাতে দুমকিতে শিক্ষকদের ফুটবল ম্যাচ

    যুবলীগে পদ বঞ্চিত হয়ে ঈর্ষা থেকে বন্ধুকে গুলি

    যুবলীগে পদ বঞ্চিত হয়ে ঈর্ষা থেকে বন্ধুকে গুলি

    ভয়ভীতি দেখাতেই সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব

    ভয়ভীতি দেখাতেই সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব

    ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে মূলত কী করা হয়?

    ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে মূলত কী করা হয়?

    ২০ বছর ধরে দুর্ভোগের জীবন পৌরবাসীর

    ২০ বছর ধরে দুর্ভোগের জীবন পৌরবাসীর

    দেশে এল সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ ডোজ টিকা

    দেশে এল সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ ডোজ টিকা

    ‘রাস্তাটার জন্য এলাকাত বিয়ার সম্বন্ধ আইসে না’

    ‘রাস্তাটার জন্য এলাকাত বিয়ার সম্বন্ধ আইসে না’

    হেফাজত নেতা মুফতি রিজওয়ান গ্রেপ্তার

    হেফাজত নেতা মুফতি রিজওয়ান গ্রেপ্তার

    বিজেপির দুবারের মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় যোগ দিলেন তৃণমূলে

    বিজেপির দুবারের মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় যোগ দিলেন তৃণমূলে