সোমবার, ২০ মে ২০২৪

সেকশন

 
ফ্যাক্টচেক

লাল চিনি না সাদা চিনি, উপকারিতা কোনটার বেশি

আপডেট : ২৭ এপ্রিল ২০২৪, ১৬:০৪

বাস্তবে লাল চিনি এবং সাদা চিনির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। দুটিই পুষ্টিগতভাবে এক। ছবি: সংগৃহীত মানুষের খাদ্যতালিকার অন্যতম প্রাকৃতিক উপাদান চিনি। শুদ্ধ সাদা রঙের পাশাপাশি কিছুটা লালচে চিনি বাংলাদেশের বাজারে সাদা ও লাল চিনি হিসেবে পরিচিত। এই দুই চিনির মধ্যে কোনটি ভালো? সাদা চিনির তুলনায় লাল চিনি বেশি স্বাস্থ্যসম্মত বলে অনেকে দাবি করেন। এর পেছনে উৎপাদন প্রক্রিয়ার ভিন্নতা, স্বাদ ও রঙের ভিন্নতাকে কারণ হিসেবে দেখানো হয়। আসলেই কী তাই? চলুন জেনে নেওয়া যাক। 

যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদ মাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস সাদা চিনির চেয়ে লাল চিনি বেশি স্বাস্থ্যসম্মত দাবিটির সত্যতা যাচাইয়ে ২০০৭ সালে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে সংবাদ মাধ্যমটি জানায়, সাদা চিনির চেয়ে লাল চিনি বেশি স্বাস্থ্যসম্মত এমন দাবি আসলে বিভ্রম এবং বিপণন প্রতিষ্ঠানগুলোর চতুর বিজ্ঞাপনী কৌশল। বাস্তবে লাল চিনি এবং সাদা চিনির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই, পুষ্টিগুণের দিক থেকে এক। লাল চিনির রং ভিন্ন হয় উৎপাদন প্রক্রিয়ার ভিন্নতার কারণে। 

লাল চিনিতে গুড়ের উপাদান থাকায় এটির রং ভিন্ন হয় এবং একই কারণে লাল চিনিতে কিছু নির্দিষ্ট পরিমাণ খনিজ যেমন ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, আয়রন এবং ম্যাগনেশিয়াম থাকে। এসব উপাদান সাদা চিনিতে থাকে না। কিন্তু যেহেতু এই খনিজগুলো খুবই অল্প পরিমাণে থাকে, তাই লাল চিনি ব্যবহারে কোনো প্রকৃত স্বাস্থ্যগত উপকারিতা নেই। দুটির মধ্যে আসল পার্থক্য হল স্বাদে। 

নিউ ইয়র্ক টাইমসে উল্লিখিত এসব তথ্যের সঙ্গে মিল পাওয়া যায় স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েবসাইট হেলথ লাইনে প্রকাশিত এ সম্পর্কিত প্রতিবেদন থেকে। তাতে দেখা যায়, সাদা চিনি ও লাল চিনি দুটিই একই ধরনের শস্য থেকে উৎপাদিত হয়। হতে পারে সেটা আখ বা বিট থেকে। নামে ভিন্ন হলেও উপাদানে দুটিই প্রায় কাছাকাছি। প্রকৃতপক্ষে অধিকাংশ লাল চিনিই সাদা চিনি এবং গুড়ের মিশ্রণ। গুড়ের কারণেই লাল চিনির রং ভিন্ন হয় এবং এর পুষ্টিগুণে সামান্য পরিমাণে ভিন্নতা আসে। সাদা চিনি তৈরি করা হয় পরিশোধন প্রক্রিয়ায় এর মধ্যে থাকা গুড় সরিয়ে ফেলার মাধ্যমে। অন্যদিকে লাল চিনি গুড়ের উপাদান ধরে রাখতে কম প্রক্রিয়াজাতকরণের মধ্য দিয়ে যায় বা গুড়ের সঙ্গে সাদা চিনি মিশিয়ে উৎপাদিত হয়। 

এই দুই চিনির মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য পুষ্টিগত পার্থক্য হলো- লাল চিনিতে সামান্য পরিমাণে ক্যালসিয়াম, আয়রন ও পটাশিয়াম থাকে। তবে এই পরিমাণ এতই কম যে লাল চিনিকে ভিটামিন বা খনিজের সুষম উৎস ভাবার সুযোগ কম। সাদা চিনি ও লাল চিনির মধ্যে ক্যালরির পার্থক্যও খুব বেশি না। এক টেবিল চামচ বা ৪ গ্রাম লাল চিনি থেকে ১৫ ক্যালরি পাওয়া যায়। বিপরীতে সমপরিমাণ সাদা চিনি থেকে পাওয়া যায় ১৬ দশমিক ৩ ক্যালরি। ছোট ছোট এই পার্থক্যগুলো ছাড়া দুই প্রকার চিনিই পুষ্টিগতভাবে এক।

দুটির মধ্যে কোনটিকে স্বাস্থ্যগত দিক বিবেচনায় কোনটি গ্রহণ করা উচিত? এমন প্রশ্নের উত্তরে হেলথ লাইন জানায়, এটি মূলত ব্যক্তিগত পছন্দ। দুই প্রকার চিনিই পুষ্টিগতভাবে এক এবং স্বাস্থ্যের ওপর সমান প্রভাব রাখে। তবে যেকোনো ধরনের চিনি খাওয়া সীমার মধ্যে রাখা বাঞ্ছনীয়। 

পুষ্টিগতভাবে লাল চিনি এবং সাদা চিনির মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই উল্লেখ করে স্বাস্থ্য বিষয়ক ম্যাগাজিন মেডিকেল নিউজ টুডে জানায়, এই দুই প্রকার চিনির মধ্যে স্বাদের ভিন্নতা বিদ্যমান। তবে দুই চিনিতেই প্রায় একই পরিমাণ ক্যালরি থাকে। যেমন, প্রতি ১০০ গ্রাম লাল চিনিতে ক্যালরি থাকে ৩৮০ এবং একই পরিমাণ সাদা চিনিতে ক্যালরি থাকে ৩৮৫। লাল চিনিতে সাদা চিনির তুলনায় ক্যালসিয়ামও থাকে বেশি। একইভাবে আয়রন, খনিজের উপস্থিতিও লাল চিনিতে সামান্য বেশি। তবে এসব সামান্য পার্থক্যকে স্বাস্থ্যগতভাবে বিবেচনায় নেওয়ার খুব সুযোগ নেই। কারণ, কোনো চিনিই পুষ্টিসমৃদ্ধ খাবার নয়। 

লাল চিনি সাদা চিনির তুলনায় স্বাস্থ্যসম্মত- এমন দাবিকে প্রচলিত ধারণা উল্লেখ করেছে সিঙ্গাপুরের হেলথ প্রমোশন বোর্ড। প্রতিষ্ঠানটি জানায়, লাল চিনিকে সাদা চিনির তুলনায় বেশি স্বাস্থ্যসম্মত মনে করা হয়। কারণ, এতে ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম এবং আয়রনের মতো কিছু খনিজ পাওয়া যায়। কিন্তু এই খনিজের পরিমাণ খুবই অল্প এবং লাল চিনিতে প্রকৃতপক্ষে পরিশোধিত সাদা চিনির মতোই একই পরিমাণ ক্যালরি থাকে। অর্থাৎ দুইয়ের মধ্যে কোনো পার্থক্য নেই। 

চিনি নিয়ে মানুষের মধ্যে প্রচলিত আছে বিভিন্ন ভ্রান্ত ধারণা। ছবি: হেলথ প্রমোশন বোর্ড, সিঙাপুর লাল চিনি ও সাদা চিনির স্বাস্থ্যগত প্রভাব ও পুষ্টিমান নিয়ে ফিলিপাইনের ন্যাশনাল নিউট্রিশন কাউন্সিলের ওয়েবসাইটে আলোচনা পাওয়া যায়। ন্যাশনাল নিউট্রিশন কাউন্সিল জানায়, এই দুই প্রকার চিনিই পুষ্টিগত, ক্যালরির হিসেবে একই। সাদা চিনি বিশুদ্ধ কার্বোহাইড্রেট, যা শরীরে চর্বি যোগ করে এবং অন্যান্য সমস্যার সৃষ্টি করে। 

বিপরীতে লাল চিনিতে তরলের পরিমাণ তুলনামূলক বেশি থাকে এবং প্রতি গ্রাম সাদা চিনির তুলনায় প্রায় শূন্য দশমিক ২৫ ক্যালরি কম থাকে। অর্থাৎ লাল চিনিতে সাদা চিনির চেয়ে কিছুটা বেশি খনিজ রয়েছে, যা এটিকে সাদা চিনির তুলনায় স্বাস্থ্যগত দিক থেকে বেশি গ্রহণযোগ্য করেছে। তবে সাধারণ বিশ্বাসের বিপরীতে সাদা ও লাল চিনি পুষ্টির দিক থেকে সমান। তাই যে ধরনের চিনিই হোক সর্বোত্তম স্বাস্থ্যের জন্য তা সীমিত খাওয়া উচিত।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
    ফ্যাক্টচেক

    গাছে বাজ পড়ার অবিশ্বাস্য মুহূর্ত ভাইরাল, ছবিটি নিয়ে যা জানিয়েছেন শিল্পী 

    ফ্যাক্টচেক

    কিরগিজস্তানে হিন্দু শিক্ষার্থীদের হামলায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থী মৃত্যুর দাবিটি অসত্য 

    ফ্যাক্টচেক

    কোকাকোলা, পেপসি হারাম— মুফতি ত্বকী উসমানী কি এমন ফতোয়া দিয়েছেন

    ফ্যাক্টচেক

    ভারতীয় পণ্য বয়কটে পুষ্টিহীনতায় বাংলাদেশিরা! ভারতীয় মিডিয়ায় বিভ্রান্তিকর প্রচার 

    ফ্যাক্টচেক

    ভদকার বোতলে ‘ফ্রি প্যালেস্টাইন’, কেরুও কি ক্যাম্পেইনে যোগ দিল

    ফ্যাক্টচেক

    ‘আমার জন্য ভালো হয়েছে’—বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ায় এমন মন্তব্য করেননি মিরাজ

    মিরপুরে পুলিশ বক্সে অটোরিকশা চালকদের হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩০ 

    প্রিমিয়ার ব্যাংক ব্রাঞ্চ কিউআর টেলার সার্ভিসের উদ্বোধন

    উত্তরা ইউনিভার্সিটিতে রিসার্চ অ্যান্ড পাবলিকেশন অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠিত

    সুনামগঞ্জে ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের প্রকল্পে ২৮৫ কৃষি উদ্যোক্তা পেলেন প্রশিক্ষণ

    বাংলাদেশের ছবি দিয়ে টিকিট বিক্রি করছে যুক্তরাষ্ট্র

    মিনিস্টারের ‘হাম্বা অফারে’ স্ক্র্যাচ কার্ড ঘষলেই গরুসহ পেতে পারেন ফ্রিজও