শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল আগামী দিনের সর্বোত্তম শিল্পায়নব্যবস্থা

আপডেট : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:৩৯

শেখ মনোয়ার হোসেন। বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল শিল্পায়নে কীভাবে সহায়তা করবে? সিরাজগঞ্জ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগে কেমন সাড়া আছে? বিদেশি বিনিয়োগে বাধা কী কী? এসব বিষয়ে আজকের পত্রিকার সঙ্গে কথা বলেছেন সিরাজগঞ্জ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের উদ্যোক্তা পরিচালক শেখ মনোয়ার হোসেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ফারুক মেহেদী

আজকের পত্রিকা: বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের বিশেষত্ব কী?
শেখ মনোয়ার হোসেন: বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশ শিল্পের বিকাশের জন্য অর্থনৈতিক অঞ্চল একটি অত্যন্ত যুগোপযোগী ধারণা। এ জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই। বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে একটি পরিকল্পিত শিল্পাঞ্চল, যা আগামী দিনে বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থানে বড় ভূমিকা রাখবে। বিচ্ছিন্নভাবে শিল্পায়ন হলে কর্মসংস্থান হয়, কিন্তু ব্যবসা সহজীকরণের যে বিষয়টি আছে, সেটি আর হয় না। এ জন্য বেজা যে কাজটি করছে, সেটা একই সঙ্গে কর্মসংস্থান বাড়াবে আবার ব্যবসা সহজীকরণেও ভূমিকা রাখবে। সব দিক থেকে একটি কমপ্লায়েন্ট শিল্পায়নের কথা বলছি আমরা। এই রকম একটি শিল্পের আয়োজনই হচ্ছে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল। এখানে কেন্দ্রীয়ভাবে সরকার যাবতীয় লজিস্টিক সহায়তা দিচ্ছে। যেমন গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানি এগুলো একটি কর্তৃপক্ষ নিয়ন্ত্রণ করবে। এর ফলে জমিসহ উপকরণের অপচয় রোধ হবে। বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল হচ্ছে আগামী দিনের সর্বোত্তম শিল্পায়ন ব্যবস্থা।

আজকের পত্রিকা: বিশেষ কী সুযোগ-সুবিধা থাকবে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে?

শেখ মনোয়ার হোসেন: বাইরে শিল্পায়ন হয়, তখন কর্মীরা তার পরিবার ছেড়ে শহরমুখী হয়। সেদিক থেকে নতুন ধারণাটি হচ্ছে শিল্পের কাছে মানুষ নয়; বরং শিল্পই যাবে মানুষের কাছে। সে ঘরে বা বাড়িতে থেকে কাজটি করতে পারবে। এটা অনেকটা প্রধানমন্ত্রীর আমার গ্রাম আমার শহরের ধারণার মতোই। কারণ একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল ঘিরে ৩০ বা ৪০টি গ্রামের আর্থসামাজিক, শিক্ষা, চিকিৎসার ব্যবস্থা গড়ে উঠতে পারে। যাকে বলে সুপরিকল্পিত শিল্পায়ন। এত দিন এটি হয়নি বলেই আজকের ঢাকা কিন্তু মৃত ঢাকায় পরিণত হয়েছে। সবাই মনে করে, বেঁচে থাকার জন্য চাকরি দরকার। এ জন্য ঢাকায় যেতে হবে। সেটাকে ‘না’ বলতে হবে। আর ‘না’ বলাটাকে যদি ‘হ্যাঁ’ বলাতে হয়, তাহলে এমন একটি শিল্পায়ন হতে হবে, যা তাকে ওই সব সুযোগ-সুবিধা দেবে। আর সেটাই হবে টেকসই শিল্পায়ন।

আজকের পত্রিকা: সিরাজগঞ্জ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগকারীর সাড়া কেমন?
শেখ মনোয়ার হোসেন: সিরাজগঞ্জে আমরা বিনিয়োগকারীদের শতভাগ সাড়া পাচ্ছি। বর্তমানে আমরা জায়গা লিজ দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছি। বিনিয়োগের দিক থেকে আমাদের অঞ্চলটি খুবই উপযুক্ত জায়গা। কারণ আমদানি-রপ্তানি, কর্মীর নিশ্চয়তা রয়েছে। উত্তরবঙ্গ থেকে বিপুলসংখ্যক মানুষ ঢাকামুখী হয়। তাদের যাতে আর ঢাকায় না যাওয়া লাগে, তাদের জন্য উপযুক্ত জায়গা আমরা তৈরি করে ফেলেছি। রেলপথ, সড়কপথ, নদীপথ, গ্যাস, বিদ্যুৎ—সবই আছে পর্যাপ্ত। রাজধানী থেকে দূরে সবুজের মধ্যে শিল্পাঞ্চল। একজন বিনিয়োগকারী তো এসবই চায়। আমাদের পরিকল্পনা হলো, এর অন্তত ৩০ কিলোমিটারের ভেতরের মানুষ তাদের বাড়ি থেকে এসে কাজ করতে পারবে। তাদের যাতায়াতের সব ব্যবস্থা করা হবে। তাদের জন্য যখন সব সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হবে, ফলে তাদের কর্মদক্ষতাও বাড়বে। আমাদের স্লোগান হলো, মানুষের কাছে শিল্প যাবে, ঘরে বসে কর্ম হবে। 

আজকের পত্রিকা: বিদেশিরা কেন এখানে বিনিয়োগ করবেন?
শেখ মনোয়ার হোসেন: বিনিয়োগ আকর্ষণের সংস্কৃতি রাষ্ট্রকে তৈরি করতে হবে। আমি তো অর্থনৈতিক অঞ্চল করলাম। এখানে শিল্প স্থাপনের পর সে ঠান্ডা মাথায় কাজ করতে পারবে। কিন্তু এ অঞ্চলের বাইরে বহু বিষয় রয়েছে, সেখানে রাজনীতি, আমলাতন্ত্র, বিভিন্ন ব্যবস্থাপনা থাকতে পারে। আছে কাস্টমস, বন্দর আরও কত-কী। এ সবকিছু রাষ্ট্রকে ব্যবস্থা করে দিতে হবে। যাতে একজন বিদেশি বিনিয়োগকারী অন্য প্রতিযোগী দেশের চেয়ে নিরাপদ মনে করতে পারে। তার উৎপাদন ও মুনাফার নিশ্চয়তা দিতে হবে। মোটকথা, রাষ্ট্রের সব অর্গানকে পুরো বিষয়টি ইতিবাচকভাবে নিতে হবে। 

আজকের পত্রিকা: বিনিয়োগে প্রতিবন্ধকতাগুলো কী কী?
শেখ মনোয়ার হোসেন: একটু ভালো একটু খারাপ করলে হবে না। পুরোটাই ভালো করতে হবে। এক ছাতার নিচে সব সেবা দিলেন ঠিক আছে। কিন্তু পণ্য নিয়ে বাইরে গেলেই তাকে ধরলেন। তার জাহাজ চলে গেল, পণ্য পাঠানো গেল না। এটা যেন না হয়। যখন যে সরকারে থাকে, তাদের কিছু লোকজন অনেক সময় বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এটি খেয়াল রাখতে হবে। সরকারকে দ্ব্যর্থহীনভাবে বলে দিতে হবে যে তোমার কাজ এটি। এর বাইরে আর কিছুতে তুমি হস্তক্ষেপ করবে না। পণ্যের জাহাজীকরণ পর্যন্ত এখানে কোনো রাজনৈতিক গ্রুপ মাতবরি করতে পারবে না। তাহলেই পুরো বিষয়টি পূর্ণতা পাবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ২০২৩ সাল থেকে নিশ্চিত হবে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ

    ২০২৩ সাল থেকে নিশ্চিত হবে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ

    আমানতকারীদের স্বার্থই ব্যাংকের অগ্রাধিকার হওয়া উচিত

    আমানতকারীদের স্বার্থই ব্যাংকের অগ্রাধিকার হওয়া উচিত

    ব্যাংকাররাই ব্যাংকিং শেষ করে দিয়েছেন

    ব্যাংকাররাই ব্যাংকিং শেষ করে দিয়েছেন

    ৮৫ কর্মকর্তা দিয়ে ১৮ কোটি মানুষকে সেবা দেওয়া কঠিন

    ৮৫ কর্মকর্তা দিয়ে ১৮ কোটি মানুষকে সেবা দেওয়া কঠিন

    শিক্ষার্থীদের মাঠে ফেরাতে দুমকিতে শিক্ষকদের ফুটবল ম্যাচ

    শিক্ষার্থীদের মাঠে ফেরাতে দুমকিতে শিক্ষকদের ফুটবল ম্যাচ

    নভেম্বরে ঢাকা থেকে মালে ফ্লাইট শুরু করবে ইউএস-বাংলা

    নভেম্বরে ঢাকা থেকে মালে ফ্লাইট শুরু করবে ইউএস-বাংলা

    যুবলীগে পদ বঞ্চিত হয়ে ঈর্ষা থেকে বন্ধুকে গুলি

    যুবলীগে পদ বঞ্চিত হয়ে ঈর্ষা থেকে বন্ধুকে গুলি

    ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকার ব্যবস্থা করা হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী 

    ১২ থেকে ১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের ফাইজারের টিকার ব্যবস্থা করা হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী 

    ভয়ভীতি দেখাতেই সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব

    ভয়ভীতি দেখাতেই সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব

    কোহলিদের কোচ থাকতে আর আগ্রহী নন রবি শাস্ত্রী

    কোহলিদের কোচ থাকতে আর আগ্রহী নন রবি শাস্ত্রী