শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

পুরুষের দখলে সীতাকুণ্ড মহিলা মার্কেট, কোণঠাসা একমাত্র নারী উদ্যোক্তা

আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:৪১

সীতাকুণ্ড মহিলা মার্কেটটি এখন পুরোপুরি পুরুষ ব্যবসায়ীর দখলে রয়েছে। ছবি: আজকের পত্রিকা মার্কেটের গায়ে ব্যানারের লেখা ‘সীতাকুণ্ড মহিলা মার্কেট’। কিন্তু ২৪টি দোকানের মধ্যে ২৩টিতেই বসে আছেন পুরুষ ব্যবসায়ীরা। প্রতিটি দোকানে পুরুষ ক্রেতার আনাগোনা। পুরুষের আড্ডায় সরগরম মার্কেট।

দ্বিতল ভবনের মার্কেটটির একটি দোকানে রেহানা আক্তার নামে একমাত্র নারী উদ্যোক্তাম পরিচালনা করছে বিউটি পারলার ও লেডিস টেইলার্স। পুরুষ ব্যবসায়ীর ভিড়ে তাঁকে ক্রেতারা খুঁজেই পান না। বহু দোকান পেরিয়ে, পুরুষদের ভিড় ঠেলে যেতে হয়, তাই নারী ক্রেতারা রেহানার দোকানে যেতে ইতস্তত বোধ করেন। এতে ব্যবসায় মার খেয়ে যাচ্ছেন বলে জানান রেহেনা।

জানা যায়, নারী উদ্যোক্তাদের স্বাবলম্বী করার জন্য চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে সরকারিভাবে গড়ে তোলা হয় মহিলা মার্কেট। ২০০৫ সালে গড়ে তোলা দ্বিতল ভবনের ২৪টি কক্ষের সবগুলো দোকান প্রকৃত নারী উদ্যোক্তাদের নামে বরাদ্দ হওয়ার কথা ছিল। সেখানে ক্রয়-বিক্রয়ে জড়িত সবাই হবেন নারী। এসব দোকান কাউকে হস্তান্তর করা যাবে না। ফলে মার্কেটটির নির্মাণকাজ শুরু হলে স্থানীয় নারীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ দেখা যায়। কিন্তু তৎকালীন প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতারা দোকান বরাদ্দের নিয়ম লঙ্ঘন করে অধিকাংশ দোকান তাঁদের স্ত্রীর নামে বরাদ্দ নেন। শুধু তা-ই নয়, বরাদ্দ পাওয়ার পর সেসব দোকান আবার অন্যকে ভাড়া দিয়েছেন তাঁরা।

সরেজমিনে মহিলা মার্কেটে গিয়ে দেখা যায়, মার্কেটের ২৪টি দোকানের মধ্যে ২৩টি দোকানই এখন পুরুষদের নিয়ন্ত্রণে। ভবনের নিচ তলার ছয়টি দোকানে থাই অ্যালুমিনিয়াম ও গ্রিলের ওয়ার্কশপ চলছে। আছে একটি টাইলস, একটি আফ্রিকান হারবালের দোকান। এ ছাড়া চারটি দোকান ময়দার গোডাউন হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। আছে দলিল লেখকের একটি অফিস। 

এই মার্কেটের একমাত্র নারী দোকানি উদ্যোক্তা রেহানা আক্তার আজকের পত্রিকাকে বলেন, মার্কেটটি মহিলাদের স্বাবলম্বী করার জন্য গড়ে তোলা হলেও পুরো মার্কেট পুরুষদের দখলে। মার্কেটের নিচতলায় প্রবেশমুখে গ্রিল ওয়ার্কশপ ও অন্যান্য দোকান খোলায় নারীরা এখানে প্রবেশে ইতস্তত বোধ করেন। আমিও এ মহিলা মার্কেটের উপ-ভাড়াটিয়া। আমার দোকানটিও অন্য একজনের নামে বরাদ্দ দেওয়া।

মার্কেটের দোকানিদের সঙ্গে কথা হলে তাঁরা বলেন, বর্তমানে যারা এসব দোকান পরিচালনা করছেন তাঁরা সবাই উপ-ভাড়াটিয়া।

মার্কেটের ২ নম্বর দোকানি নাজিম উদ্দিন বলেন, আমার দোকানটি বিএনপি নেতা আলী নেওয়াজ মাসুমের স্ত্রী মাসুমা বেগমের নামে বরাদ্দ করা। আমি উপ-ভাড়াটিয়া হিসেবে ১ লাখ টাকা সেলামি ও মাসিক দেড় হাজার টাকা ভাড়ায় দোকানটি নিয়েছি। 

মার্কেটের ২য় তলার ২ নম্বর দোকানটি ব্যক্তিগত অফিস করেছেন দলিল লেখক আবুল কালাম। তিনি বলেন, দোকানটি বিএনপি নেতা ও সাবেক চেয়ারম্যান (বর্তমানে আমেরিকা প্রবাসী) গোফরান বাহারের স্ত্রী সখিনা আক্তারের নামে বরাদ্দ করা। উপ-ভাড়াটিয়া হিসেবে মাসিক ১ হাজার টাকা ভাড়ায় দোকানটি নিয়েছি। 

এ বিষয়ে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জয়নব বিবি জলি আজকের পত্রিকাকে বলেন, বিএনপি সরকারের সময় এটি নির্মাণ ও বরাদ্দ হওয়ায় তাঁরা তাঁদের মতো করে এগুলো বরাদ্দ দেন। মার্কেটটি নারীদের প্রতিষ্ঠিত করতে গড়ে তোলা হয়। কিন্তু মার্কেটের দোকানগুলো পুরুষদের মাঝে বরাদ্দ দেওয়ায় সে উদ্দেশ্য সফল হয়নি। 

সীতাকুণ্ড উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহাদাত হোসেন বলেন, মহিলা মার্কেটের দোকানগুলো কাদের নামে বরাদ্দ আছে তা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    মাদ্রাসা ও দলে উপেক্ষিত শফি

    মাদ্রাসা ও দলে উপেক্ষিত শফি

    ছাগলনাইয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

    ছাগলনাইয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

    তিন দিন পরও নিখোঁজ মায়ের সন্ধান মেলেনি, দুই সন্তানকে দাফন

    তিন দিন পরও নিখোঁজ মায়ের সন্ধান মেলেনি, দুই সন্তানকে দাফন

    সৈকত থেকে ২ যুবকের মরদেহ উদ্ধার

    সৈকত থেকে ২ যুবকের মরদেহ উদ্ধার

    সোনাইমুড়ীতে বিদ্যুতায়িত হয়ে একই বাড়ির ৪ জনের মৃত্যু

    সোনাইমুড়ীতে বিদ্যুতায়িত হয়ে একই বাড়ির ৪ জনের মৃত্যু

    আরেক ছুটির ঘণ্টা! স্কুলের টয়লেট থেকে ১১ ঘণ্টা পর উদ্ধার কিশোরী

    আরেক ছুটির ঘণ্টা! স্কুলের টয়লেট থেকে ১১ ঘণ্টা পর উদ্ধার কিশোরী

    ড্রাগন ফলের পুষ্টিগুণ

    ড্রাগন ফলের পুষ্টিগুণ

    করোনায় ব্যাংকে লাভ ছাঁটাই উভয়েই রেকর্ড

    করোনায় ব্যাংকে লাভ ছাঁটাই উভয়েই রেকর্ড

    ‘নাট্যকলায় পড়তে আমি ঘর পালাইছিলাম’

    ‘নাট্যকলায় পড়তে আমি ঘর পালাইছিলাম’

    ইমো এবং আরও কিছু

    ইমো এবং আরও কিছু

    নিজেই তো বুইসতে পাচ্ছি নাকো আপা!

    নিজেই তো বুইসতে পাচ্ছি নাকো আপা!

    ২০২৩ সাল থেকে নিশ্চিত হবে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ

    ২০২৩ সাল থেকে নিশ্চিত হবে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ