রোববার, ১৬ জুন ২০২৪

সেকশন

 

ভোটের প্রশ্নে ভাঙনের মুখে ‘ইন্ডিয়া’ 

আপডেট : ২৪ জানুয়ারি ২০২৪, ১৬:১৩

রাহুলের (মাঝে) দল কংগ্রেসের সঙ্গে না থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের মমতা (বামে) ও আম আদমি পার্টির কেজরিওয়াল (ডানে)। ছবি: সংগৃহীত  ভারতে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে ক্ষমতাসীন হিন্দু জাতীয়তাবাদী দল বিজেপির মোকাবিলায় বিরোধী দলগুলো গত বছরের জুলাইয়ে ‘ইন্ডিয়া—আইএনডিআইএ’ বা ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইনক্লুসিভ অ্যালায়েন্স নামে একটি জোট গঠন করেছিল। লোকসভা নির্বাচনে লড়ার প্রশ্নে সেই ইন্ডিয়া জোটে ভাঙনের সুর দেখা দিয়েছে। স্থানীয় পর্যায়ে শক্তিশালী দুই দল পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল কংগ্রেস ও দিল্লির আম আদমি পার্টি  নির্বাচন প্রশ্নে কংগ্রেসের সঙ্গে এই জোটে না থাকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বেঁধে নয় পশ্চিমবঙ্গে ৪২ লোকসভা আসনে একাই লড়বে তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলে প্রধান ও পশ্চিমবঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজ বুধবার এই ঘোষণা দিয়েছেন। 

মমতা বলেছেন, ‘কংগ্রেসের সঙ্গে (ঐক্যবদ্ধভাবে জাতীয় নির্বাচনে লড়ার বিষয়ে) আমার কোনো আলোচনা হয়নি। আমি সব সময় বলেছি যে, বাংলায় আমরা একাই লড়ব। আমি তাদের (কংগ্রেসকে) অনেক প্রস্তাব দিয়েছিলাম...কিন্তু তারা সেগুলো প্রত্যাখ্যান করেছে। কী হবে, তা নিয়ে উদ্বিগ্ন নই আমি। আমরা একটি ধর্মনিরপেক্ষ দল এবং বাংলায় আমরা একাই বিজেপিকে পরাজিত করব।’ 

তৃণমূল কংগ্রেসের সিদ্ধান্তের কয়েক ঘণ্টার মাথায় একই ধরনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে আরেক আঞ্চলিক দল আম আদমি পার্টিও। দলটি জানিয়েছে, তারাও কংগ্রেস বা ইন্ডিয়া জোটের সঙ্গে নয় আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে পাঞ্জাব থেকে এককভাবে লড়বে। এরই মধ্যে তারা লোকসভা নির্বাচনের জন্য তাদের সম্ভাব্য প্রার্থীর একটি তালিকাও তৈরি করেছে। পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ও আম আদমি পার্টির নেতা ভগবন্ত মান বিষয়টি জানিয়েছেন। 

ভগবন্ত মান বলেছেন, ‘আম আদমি পার্টি পাঞ্জাবের ১৩ লোকসভা আসনের জন্য ৪০ জন প্রার্থীর একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা তৈরি করেছে। বিস্তারিত সমীক্ষার পর প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।’ তবে দিল্লিতে লোকসভা নির্বাচনের বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি মান। 

উল্লেখ্য, গত বছরের জুলাইয়ে কর্ণাটকের রাজধানী বেঙ্গালুরুতে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী, মল্লিকার্জুন খাড়গে, সোনিয়া গান্ধী, তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী এমকে স্তালিন, বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নিতীশ কুমার, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বিহারের আরজেডি দলের প্রধান লালু প্রসাদ যাদবের উপস্থিতিতে ইন্ডিয়া জোট গঠন করা হয়। কিন্তু এক বছর না পার হতেই জোটে ভাঙন দেখা দিল। তাও আবার নির্বাচনের ঠিক আগে এসে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ইন্দিরা গান্ধীকে ‘মাদার অব ইন্ডিয়া’ বললেন বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী

    ভারতের উত্তরাখণ্ডে মিনিবাস উল্টে নদীতে, নিহত অন্তত ১৪

    ভগবান বিজেপিকে থামিয়ে দিয়েছেন, মন্তব্য আরএসএস নেতার

    ডাকাতি করতে গিয়ে গৃহকর্ত্রীর সঙ্গে খোশগল্প, একজন ঘুমিয়েও পড়লেন

    ঈদের নামাজ যেন রাস্তায় না আসে, যোগীর রাজ্যে নির্দেশনা

    অহংকারের কারণে বিজেপি সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি, বললেন আরএসএস নেতা

    রাজধানীতে ঈদের দিন হতে পারে বৃষ্টি

    রাজধানীর মহাখালীতে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে বাস চালকসহ ৪ জন

    কেন্দ্রীয় কারাগারের এক আসামির ঢামেকে মৃত্যু

    সুদের টাকা দিতে না পারায় কৃষকের ষাঁড় নিয়ে গেল দাদন ব্যবসায়ীরা

    টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেরা দশে রিশাদ

    ‘তুফান’ সিনেমার ট্রেলার, শাকিব-চঞ্চলের সেয়ানে সেয়ানে লড়াইয়ের পূর্বাভাস