শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

মেদভেদেভের একে জোকোর হলো না ২১

আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:৩৯

অশ্রুভেজা জোকোভিচ ফ্ল্যাশিং মিডোসে পুরুষ এককের ফাইনালে রোববার রাতে প্রথম সেটের পর দ্বিতীয় সেটে তখনো ৬-৪ গেমে পিছিয়ে নোভাক জোকোভিচ। তখনো হয়তো আশা হারাননি জোকোভিচভক্তরা। এভাবে পিছিয়ে পড়ে ঘুরে দাঁড়ানোর অসংখ্য উদাহরণ আছে জোকোভিচের। এমনকি এবারের ইউএস ওপেনেও একাধিকবার পিছিয়ে থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে জিতেছেন সার্বিয়ান শীর্ষ বাছাই।

পরশু জোকোভিচ নিজেও হয়তো ভাবছিলেন ঘুরে দাঁড়ানোর কথা। তবে রাশিয়ান তারকা দানিল মেদভেদেভ অন্য কিছুই ভেবে এসেছিলেন। এবার জোকোভিচকে ফেরার কোনো সুযোগই দেননি। সরাসরি ৬-৪, ৬-৪, ৬-৪ গেমে উড়িয়ে ম্যাচ নিজের করে নেন মেদভেদেভ।

দ্বিতীয় বাছাই মেদভেদেভের এটিই প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম জয়। মেদভেদেভের এই জয়ে একাধিক মাইলফলক গড়ার স্বপ্ন ভেঙে গেছে জোকোভিচের। এবারের ফাইনাল জিতলে রজার ফেদেরার-রাফায়েল নাদালকে টপকে গ্র্যান্ড স্লাম জয়ে সবার ওপরে উঠতেন জোকোভিচ। ইতিহাসের ষষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে ‘ক্যালেন্ডার ইয়ার গ্র্যান্ড স্লাম’ জয়ের কীর্তিও গড়তেন। এই হারে দুটো মাইলফলকই অধরা থেকে গেল জোকোভিচের।

জোকোভিচের মাইলফলক পূরণ না হলেও মেদভেদেভ অবশ্য বিবাহবার্ষিকীর উপহার হিসেবে শিরোপাটা স্ত্রীর হাতে তুলে দিতে পেরেছেন। দুর্দান্ত শিরোপা জিতে মেদভেদেভ বলেছেন, ‘টুর্নামেন্ট খেলার সময় তাকে উপহার দেওয়া নিয়ে ভাবিনি। যখন ফাইনালে উঠি, তখন ভেবেছিলাম; যদি হারি, তার জন্য একটি ভালো উপহার কিনতে হবে। আমার আসলে উপহার খোঁজার মতো সময় ছিল না। আমাকে ম্যাচটা জিততে হতো।’

হারিয়েও কঠিন প্রতিপক্ষ জোকোভিচকে নিয়ে মেদভেদেভের শ্রদ্ধা কমছে না, ‘আমি নোভাক ও তার সমর্থকদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করছি। আমরা সবাই জানি, এখন তোমার কেমন লাগছে। আগে কখনো বলিনি, তুমি ইতিহাসের সেরা খেলোয়াড়।’

কাছাকাছি গিয়েও শিরোপা জিততে না পারার হতাশায় পুড়ছেন জোকোভিচ। আটকাতে পারেননি কান্নাও।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    নবাবগঞ্জে ১৫  জনের করোনা শনাক্ত

    নবাবগঞ্জে ১৫ জনের করোনা শনাক্ত

    বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর প্রতিবাদ

    বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানোর প্রতিবাদ

    গবিতে যোগ দিলেন ফাতেমা নাসরিন

    গবিতে যোগ দিলেন ফাতেমা নাসরিন

    বাল্কহেড চলায় সেতু নিয়ে শঙ্কা

    বাল্কহেড চলায় সেতু নিয়ে শঙ্কা

    ধামরাইয়ে ৫ দোকানে আগুন, বিপুল ক্ষয়ক্ষতি

    ধামরাইয়ে ৫ দোকানে আগুন, বিপুল ক্ষয়ক্ষতি

    দোহারে করোনা শনাক্ত বেড়ে ৩১২৩

    দোহারে করোনা শনাক্ত বেড়ে ৩১২৩

    সিগারেটের আগুন না দেওয়ায় হোটেল মালিককে ঘুষি মেরে হত্যা

    সিগারেটের আগুন না দেওয়ায় হোটেল মালিককে ঘুষি মেরে হত্যা

    বৈরী আবহাওয়ার বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবি নিখোঁজ ১

    বৈরী আবহাওয়ার বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবি নিখোঁজ ১

    কাঁকড়া চাষ হতে পারে সুন্দরবন নির্ভর জনগোষ্ঠীর অন্যতম বিকল্প কর্মসংস্থান

    কাঁকড়া চাষ হতে পারে সুন্দরবন নির্ভর জনগোষ্ঠীর অন্যতম বিকল্প কর্মসংস্থান

    দিনাজপুরে মসজিদ আটককৃতদের মধ্যে ১১ জনের নামে মামলা

    দিনাজপুরে মসজিদ আটককৃতদের মধ্যে ১১ জনের নামে মামলা

    ৩০ সেপ্টেম্বর উচ্চ মাধ্যমিকের জন্য খুলছে ঢাকা কলেজের ছাত্রাবাস

    ৩০ সেপ্টেম্বর উচ্চ মাধ্যমিকের জন্য খুলছে ঢাকা কলেজের ছাত্রাবাস

    শিশু হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি চাচির

    শিশু হত্যার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি চাচির