সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

কারও মজা, কারও জীবনের কান্না

আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০০

প্রতীকী ছবি কারও মজা, কারও মৃত্যু বা চিরজীবনের কান্না। কারও খামখেয়ালিপনা, অন্যের সারা জীবনের অঙ্গহানি। যারা এ মজা বা খামখেয়ালিপনা করে অন্য মানুষের জীবনে কান্না নিয়ে আসে, তারা জানে না যে মজার ছলে তারা যা করে, এটি রীতিমতো অপরাধ। যে অপরাধ অমার্জনীয়।

বলছি চলন্ত ট্রেনে পাথর ছোড়ার অপরাধ নিয়ে। বাংলাদেশে যুগের পর যুগ ধরে চলছে এ অন্যায়। এ ব্যাধি কমছে না; বরং বাড়ছে। দেশের একটি বা দুটি জায়গায় নয়; এই পাথর ছোড়ার ঘটনা এখন ছড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন অঞ্চলে। আজকের পত্রিকায় প্রকাশিত একটি খবর থেকে জানা যায়, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে আগস্ট পর্যন্ত গত আট মাসে মোট ৮৬টি ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় ট্রেনের ৭৯টি গ্লাস ভেঙেছে। আহত হয়েছেন মোট ২১ জন।

আর পাথর ছোড়ার ঘটনা সবচেয়ে বেশি ঘটছে টঙ্গী, গাজীপুর, নরসিংদী, ভৈরব, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, আখাউড়া, গফরগাঁও, সরিষাবাড়ী, দেওয়ানগঞ্জ, সিলেট, পার্বতীপুর, পঞ্চগড়, সৈয়দপুরসহ অন্তত ৩০টি স্থানে। তালিকা থেকে সহজেই বোঝা যাচ্ছে যে এটি অপ্রতিরোধ্যভাবে ছড়িয়ে পড়ছে নতুন নতুন এলাকায়। এই পাথর নিক্ষেপের ঘটনায় যাঁরা আহতদের বেশির ভাগই চোখে আঘাতপ্রাপ্ত হচ্ছেন।

যেমন ৩ সেপ্টেম্বর ট্রেনের সহকারী লোকোমাস্টার মো. কাওছার আহমেদ ট্রেন চালিয়ে কিশোরগঞ্জ থেকে ঢাকায় আসার পথে ভৈরব স্টেশনের কাছে চলন্ত ট্রেনে পাথর নিক্ষেপের শিকার হন। ট্রেনের জানালার কাচ ভেঙে ঢুকে পড়ে কাওছারের চোখে। ট্রেন থামিয়ে দ্রুত তাঁকে নেওয়া হয় ঢাকার একটি হাসপাতালে। শেষ পর্যন্ত চিকিৎসায় চোখ ফিরে পেলেও এখনো তিনি চোখে সমস্যা বোধ করছেন এবং আতঙ্কে আছেন।

একইভাবে গত ১৫ আগস্ট নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায় চলন্ত ট্রেনে ছোড়া পাথরের আঘাতে আজমির ইসলাম নামের এক শিশুর চোখ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। চিকিৎসকদের আশঙ্কা, এক থেকে দেড় বছরের মধ্যে শিশুটির এক চোখের দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে যেতে পারে!

জানা যায়, স্থানীয় উঠতি বয়সীরা খেলার ছলে ট্রেনে পাথর ছুড়ে মারে। আবার রেললাইনের আশপাশে গড়ে ওঠা বস্তির লোকজন এ ধরনের কার্যকলাপ করে থাকে। তা ছাড়া, ওই সব এলাকার মাদক সেবনকারীরাও ট্রেনে পাথর ছুড়ে থাকে।

যুগের পর যুগ ধরে চলা এ অপকর্ম কি থামানোর কোনো পথ নেই? এরা কি এতটাই বেপরোয়া আর অপ্রতিরোধ্য যে, কেউই তাদের থামাতে পারছে না? আমরা মনে করি, এটা কমিয়ে এনে একপর্যায়ে তা থামানো সম্ভব। এ জন্য প্রথম কাজ হবে পরিবারের, অভিভাবকদের। তাঁরা তাঁদের সন্তানদের বোঝাবেন। ইমাম, পুরোহিত, শিক্ষকেরা এসব এলাকার মানুষ ও উঠতি ছেলেদের এর কুফল বুঝিয়ে সচেতন করতে পারেন।

যারা এ অপরাধে জড়াচ্ছে, তাদের আইনের আওতায় আনতে পারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। আর মাদকসেবীদের পাঠানো যায় নিরাময় কেন্দ্রে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ আক্রান্ত এলাকাগুলোয় সচেতনতামূলক প্রচারণার কর্মসূচি নিতে পারে। পুরো বিষয় সংশ্লিষ্ট সবাইকে কঠোর নজরদারির মধ্যে রাখতে হবে। সচেতনতার পাশাপাশি আইনের প্রয়োগও করতে হবে। একটি সভ্য সমাজে অনন্তকাল কারও মজার জন্য কারও জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলা চলতে পারে না।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ব্যাংকারদের প্রতি ভালোবাসা

    ব্যাংকারদের প্রতি ভালোবাসা

    নতুন শিক্ষাক্রম: সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ

    নতুন শিক্ষাক্রম: সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ

    গা শিউরে ওঠে

    গা শিউরে ওঠে

    প্রবাসীদের আর কত ভোগাবেন?

    প্রবাসীদের আর কত ভোগাবেন?

    নুরুলের দল: কোথায় শক্তি, কোথায় বল?

    নুরুলের দল: কোথায় শক্তি, কোথায় বল?

    ই-কমার্স রেগুলেটরি অথোরিটি গঠন করতে হাইকোর্টে রিট

    ই-কমার্স রেগুলেটরি অথোরিটি গঠন করতে হাইকোর্টে রিট

    কাপ্তাই লেকে নিখোঁজের ১৭ ঘণ্টা পর সাবেক ইউপি সদস্যের মরদেহ উদ্ধার

    কাপ্তাই লেকে নিখোঁজের ১৭ ঘণ্টা পর সাবেক ইউপি সদস্যের মরদেহ উদ্ধার

    কৃষক দলের নতুন কমিটির সভাপতি তুহিন, সম্পাদক বাবুল

    কৃষক দলের নতুন কমিটির সভাপতি তুহিন, সম্পাদক বাবুল

    কক্সবাজারে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ২, পাঁচ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ 

    কক্সবাজারে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ২, পাঁচ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ 

    ধর্ষণের অভিযোগে ময়মনসিংহ জেলা স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতি গ্রেপ্তার

    ধর্ষণের অভিযোগে ময়মনসিংহ জেলা স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতি গ্রেপ্তার

    ফুটবলে ‘আড়ালের আলাদিন’ সেট পিস কোচরা

    ফুটবলে ‘আড়ালের আলাদিন’ সেট পিস কোচরা