শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

‘স্বামী পড়াতে না চাইলে সংসার ছেড়ে দেব’

আপডেট : ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৩০

দীর্ঘ ১৮ মাস পর গত রোববার খুলেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। মিতু আক্তার, জিন্নাত, তানজিলা, খাদিজা ও কাকুলি (সবগুলো ছদ্মনাম) সবাই দশম শ্রেণির ছাত্রী। তারা করোনাকালীন বন্ধের আগে নিয়মিত ক্লাস করত। 

ক্লাস শুরুর প্রথম দিনে (১২ সেপ্টেম্বর) দেখা গেছে তারা সবাই অনুপস্থিত। সহপাঠীদের থেকে খোঁজ নিয়ে শিক্ষকেরা জানতে পারেন, করোনাকালীন স্কুল বন্ধের সময় তাদের বিয়ে হয়ে গেছে। এখন তারা সবাই শ্বশুরবাড়ি। তাদের মধ্যে জিন্নাত মা হয়েছে, আরও অনেকে মা হতে চলেছেন।

রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলা রাধানগর ইউনিয়নের পাঠানপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে অনেক নারী শিক্ষার্থীই এমন বাল্যবিবাহের শিকার হয়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন জানান, তাঁর স্কুলের দুই শ্রেণির আরও ১৫ জন ছাত্রীর বিয়ে হয়েছে। তাদের মধ্যে ছয় জন অবশ্য বিদ্যালয়ে এসেছে।

অল্প বয়সে নতুন সংসারের বোঝা ঘাড়ে এসে পড়েছে এসএসসি পরীক্ষার্থী মুনমুন, স্বপ্না ও আশরিফা এবং দশম শ্রেণির রুমি আক্তার, মরিয়ম ও মিতু আক্তারের। তারা স্কুল শুরুর প্রথম দিনে বিদ্যালয়ে আসে। নিজেদের বিয়ের প্রসঙ্গে আজকের পত্রিকাকে বলে, তাদের অমতে বাবা-মা বিয়ে দিয়েছেন। লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার শর্তে শ্বশুরবাড়ির লোকজন তা মেনে নেন। এ কারণে তারাও বিয়ে মেনে নিয়েছে।

বিদ্যালয়ে আসা বিবাহিত এক ছাত্রী বলে, আমি লেখাপড়া করে অনেক দূরে যেতে চাই। আমার স্বামী অনার্সে পড়ে। কোনো কারণে যদি স্বামী আমাকে পড়াতে না চান, তাহলে আমি স্বামীর সংসার ছেড়ে দেব। তবু লেখাপড়া ছাড়ব না। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে বিয়ে দেওয়া এক অভিভাবক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এখন সময়টা খারাপ। সবার হাতে হাতে মোবাইল। মেয়ের কখন কী ঘটে যায়, ঠিক নাই। তাই ভালো ঘরের ছেলে পেয়ে মেয়েকে বিয়ে দিয়ে দিয়েছি। 

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বিয়েগুলোর নিবন্ধন করেছেন সুমন নামে এক ব্যক্তি। তবে তিনি নিকাহ নিবন্ধক নন। গোপীনাথপুর ইউনিয়নের নিকাহ নিবন্ধক শহীদুল ইসলামের বই ব্যবহার করে তিনি বাল্যবিবাহের নিবন্ধন করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। 

সুমনের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাঁকে পাওয়া যায়নি। তবে শহীদুল ইসলাম সুমনকে নিকাহ নিবন্ধক বই দেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, তাঁর এলাকার বিয়েগুলো অন্য এলাকায় চলে যাওয়ার কারণে লালদীঘি গ্রামের সুমনকে নিকাহ নিবন্ধক বই দিয়েছিলেন। তবে, শহীদুল ইসলাম দাবি করেন, সুমন রাধানগর পাঠানপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের কোনো ছাত্রীর বিয়ে নিবন্ধন করেননি। 

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আরশাদ হোসেন বলেন, বাল্যবিয়ের কারণে অপুষ্টিতে ভোগা শিশুর জন্ম হতে পারে। আবার মায়ের অপুষ্টির পাশাপাশি প্রসবকালীন মৃত্যুঝুঁকিও থাকে।

তবে কেউ অভিযোগ না দেওয়ায় এই এলাকায় বাল্যবিবাহের বিষয়ে কিছু জানেন না উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রেহেনুমা তারান্নুম।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ২০ বছর ধরে দুর্ভোগের জীবন পৌরবাসীর

    ২০ বছর ধরে দুর্ভোগের জীবন পৌরবাসীর

    ‘রাস্তাটার জন্য এলাকাত বিয়ার সম্বন্ধ আইসে না’

    ‘রাস্তাটার জন্য এলাকাত বিয়ার সম্বন্ধ আইসে না’

    শিক্ষার্থীদের মাঠে ফেরাতে দুমকিতে শিক্ষকদের ফুটবল ম্যাচ

    শিক্ষার্থীদের মাঠে ফেরাতে দুমকিতে শিক্ষকদের ফুটবল ম্যাচ

    যুবলীগে পদ বঞ্চিত হয়ে ঈর্ষা থেকে বন্ধুকে গুলি

    যুবলীগে পদ বঞ্চিত হয়ে ঈর্ষা থেকে বন্ধুকে গুলি

    ভয়ভীতি দেখাতেই সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব

    ভয়ভীতি দেখাতেই সাংবাদিক নেতাদের ব্যাংক হিসাব তলব

    ২০ বছর ধরে দুর্ভোগের জীবন পৌরবাসীর

    ২০ বছর ধরে দুর্ভোগের জীবন পৌরবাসীর

    দেশে এল সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ ডোজ টিকা

    দেশে এল সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ ডোজ টিকা

    ‘রাস্তাটার জন্য এলাকাত বিয়ার সম্বন্ধ আইসে না’

    ‘রাস্তাটার জন্য এলাকাত বিয়ার সম্বন্ধ আইসে না’

    হেফাজত নেতা মুফতি রিজওয়ান গ্রেপ্তার

    হেফাজত নেতা মুফতি রিজওয়ান গ্রেপ্তার

    বিজেপির দুবারের মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় যোগ দিলেন তৃণমূলে

    বিজেপির দুবারের মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় যোগ দিলেন তৃণমূলে

    দ্বিতীয়বারের মতো গিনেস বুকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পার্থ

    দ্বিতীয়বারের মতো গিনেস বুকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পার্থ