শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১

সেকশন

 

ভূমিকম্পে দেশের বেশির ভাগ স্থাপনা নিয়ে সংশয় ত্রাণ প্রতিমন্ত্রীর

আপডেট : ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:৪৫

প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা রাখেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। ছবি: আজকের পত্রিকা দেশের প্রধান শহরগুলোতে মানুষ বাড়ার পাশাপাশি পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আবাসিক-অনাবাসিক স্থাপনাও। এসব স্থাপনার মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান। বড় ধরনের ভূমিকম্পে সেগুলো টিকে থাকা নিয়েও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি। 

ঢাকার বাবুবাজারে আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস-২০২১ উপলক্ষে 'ভূমিকম্প ও অগ্নিকাণ্ডে করণীয়' বিষয়ক সচেতনতামূলক মহড়ায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভূমিকম্পের মতো দুর্যোগে নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে প্রয়োজনীয় খোলা জায়গাও নেই আমাদের বড় শহরগুলোতে। অভিযোগ রয়েছে দেশে ভবন নির্মাণে বিল্ডিং কোড মানা হয় না। ফলে মাঝারি ধরনের ভূমিকম্পও বিপর্যয়ের কারণ হতে পারে। আর বড় ধরনের ভূমিকম্প ডেকে আনতে পারে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়। 

ভূমিকম্পের বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেতে সব ধরনের স্থাপনা দুর্যোগ মোকাবিলার উপযোগী করে গড়ে তুলতে সরকার কাজ করছে বলে জানান এনামুর রহমান। তিনি বলেন, ‍‍‍‍পূর্ব প্রস্তুতি থাকলে যেকোনো দুর্যোগে জানমালের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনা সম্ভব। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভূমিকম্প এমন একটি প্রাকৃতিক দুর্যোগ যার পূর্বাভাস দেওয়ার উপায় এখনো বের হয়নি। বড় ধরনের ভূমিকম্পে ক্ষয়ক্ষতি কতটা নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে তা বলা মুশকিল, তবে জনসচেতনতা ও পূর্ব প্রস্তুতি থাকলে যে কোন দুর্যোগ মোকাবিলা করে জানমালের ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার সে কাজটাই করে যাচ্ছে। 

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে স্থানীয় সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ সেলিম উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা করেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রঞ্জিত কুমার সেন, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজ্জাদ হোসাইন এবং স্থানীয় কাউন্সিলর মো. জাহাঙ্গীর হোসেন। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ‘সিভিল সোসাইটি বলে এখন কিছু নেই, কথা বললেই হয়রানি’

    ‘সিভিল সোসাইটি বলে এখন কিছু নেই, কথা বললেই হয়রানি’

    আজ প্রচারণা শেষ, ১৬১ ইউপিতে ভোট সোমবার

    আজ প্রচারণা শেষ, ১৬১ ইউপিতে ভোট সোমবার

    ১২-১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের জন্য ফাইজারের টিকার ব্যবস্থা হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী 

    ১২-১৭ বছরের শিক্ষার্থীদের জন্য ফাইজারের টিকার ব্যবস্থা হচ্ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী 

    মামলা জটিল, সমাধান অনেক দূর

    মামলা জটিল, সমাধান অনেক দূর

    কণ্ঠ হারিয়েছেন বাপ্পী লাহিড়ি? ছেলে বললেন, ‘একেবারেই মিথ্যে’

    কণ্ঠ হারিয়েছেন বাপ্পী লাহিড়ি? ছেলে বললেন, ‘একেবারেই মিথ্যে’

    সিগারেটের আগুন না দেওয়ায় হোটেল মালিককে ঘুষি মেরে হত্যা

    সিগারেটের আগুন না দেওয়ায় হোটেল মালিককে ঘুষি মেরে হত্যা

    বৈরী আবহাওয়ার বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবি নিখোঁজ ১

    বৈরী আবহাওয়ার বঙ্গোপসাগরে ট্রলার ডুবি নিখোঁজ ১

    কাঁকড়া চাষ হতে পারে সুন্দরবন নির্ভর জনগোষ্ঠীর অন্যতম বিকল্প কর্মসংস্থান

    কাঁকড়া চাষ হতে পারে সুন্দরবন নির্ভর জনগোষ্ঠীর অন্যতম বিকল্প কর্মসংস্থান

    দিনাজপুরে মসজিদ আটককৃতদের মধ্যে ১১ জনের নামে মামলা

    দিনাজপুরে মসজিদ আটককৃতদের মধ্যে ১১ জনের নামে মামলা