Alexa
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 

লাদেনের আর কোনো অনুমান সত্য না হোক

আপডেট : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৬:২৯

হামিদ মীর বিশ বছর আগে ৯/১১ হামলার সাত সপ্তাহ পর সর্বশেষ সাংবাদিক হিসেবে হামিদ মীর ওসামা বিন লাদেন এর সাক্ষাৎকার নেন। সে সময় আফগানিস্তানে মার্কিন বিমান হামলা চলছিল। তিনি বেশ গর্ব করেই বলেছিলেন, তিনি এমন এক ফাঁদ পেতেছেন, যার শেষ হবে আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের অপমানিত হওয়ার মধ্য দিয়ে, ঠিক যেমনটা ঘটেছিল (সাবেক) সোভিয়েত ইউনিয়নের সঙ্গে। তিনি সে সময় এমনকি তালেবান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার সংলাপের সম্ভাবনা নিয়েও মন্তব্য করেছিলেন।

দুই দশক কেটে গেছে। বিন লাদেন নিহত হয়েছেন। কিন্তু তাঁর এই অনুমানগুলো সত্য হয়েছে। সত্যে পরিণত হওয়া তাঁর এমন অনুমানের সংখ্যা শুধু এখানেই সীমিত নয়। বিন লাদেনকে খুঁজে বের করে তাঁকে হত্যা করতে সমর্থ হওয়ায় মার্কিনরা অবশ্য কিছুটা সান্ত্বনাও খুঁজে নিতে পারে। কিন্তু পুরো চিত্র এতটা আশাব্যঞ্জক নয়। আলকায়েদা এখনো আফগানিস্তানে আছে।

আর তাদের নানা শাখা-প্রশাখা বিশ্বের নানা প্রান্তে যুদ্ধ বা যুদ্ধাবস্থার জন্ম দিচ্ছে। ইসলামিক স্টেটের (আইএস) উত্থান দেখিয়ে দিয়েছে যে বিন লাদেন ও তাঁর অনুসারীদের চেয়েও এই ধারা আরও কট্টর হতে পারে। আমি ঠিক জানি না, যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমের বাকি দেশগুলো এই পাঠ ঠিকঠাক নিয়েছে কি না। 

আফগানিস্তানের তোরাবোরা পর্বতের এক গুহায় ১৯৯৭ সালে বিন লাদেনের সঙ্গে প্রথম সাক্ষাতের সময় তাঁর ভবিষ্যদ্বাণী ছিল—যুক্তরাষ্ট্র খুব দ্রুত (একক) পরাশক্তি হিসেবে সামনে আসবে। আরও বিস্ময়কর অনুমান ছিল—যুক্তরাষ্ট্র ও ভারতের বিরুদ্ধে আফগানিস্তান, পাকিস্তান, ইরান ও চীন জোট বাঁধবে।

যুক্তরাষ্ট্র নিশ্চিতভাবেই এখনো পরাশক্তিই। তবে তাঁর পরের ভবিষ্যদ্বাণীটি ফলতে শুরু করেছে। তালেবান সরকারকে সবুজ সংকেত দিয়েছে ইরান। আর তালেবানের দিক থেকে চীনকে বলা হয়েছে, তারা যদি তাদের স্বীকৃতি ও সহায়তা দেয়, তবে উইঘুর মুসলিমদের বিরুদ্ধে করা চীনের অপরাধ তারা ক্ষমা করে দিতে রাজি আছে। প্রত্যুত্তরে চীন আফগানিস্তানের নতুন সরকারকে সহায়তা হিসেবে ৩ কোটি ১০ লাখ ডলার পাঠিয়েছে।

বিন লাদেন বুঝেছিলেন, যুক্তরাষ্ট্রের শক্তি ও ক্ষমতা তার শত্রুদের একটি সাধারণ কারণের পেছনে ঐক্যবদ্ধ হতে বাধ্য করবে। তিনি বুঝেছিলেন, যুক্তরাষ্ট্রের শক্তিই তার সবচেয়ে বড় দুর্বলতা।

৯/১১ হামলার পর ইরাক থেকে সিরিয়া, লেবানন থেকে ফিলিস্তিন—বিভিন্ন যুদ্ধের খবর আমি সংগ্রহ করেছি। দেখেছি, বিন লাদেন মুসলমানদের কাছ থেকে সম্মান পাচ্ছেন তাঁর ধর্মীয় আদর্শের কারণে নয়, বরং ইরাকে মার্কিন দখলদারি ও মুসলিম বিশ্বের বিভিন্ন পুতুল সরকারের প্রতি ওয়াশিংটনের সমর্থনের প্রতিক্রিয়া হিসেবে। ৯/১১ হামলার পর সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী কলিন পাওয়েল, কন্ডোলিৎসা রাইস, হিলারি ক্লিনটন, জন এফ কেরি এবং বহু মার্কিন শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তার সাক্ষাৎকার আমি নিয়েছি। প্রত্যেকেই সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নিজেদের সফল বলে দাবি করেছেন। কিন্তু এই যুদ্ধ যে আরও সন্ত্রাসের জন্ম দিচ্ছে, সে বিষয়ে তাঁদের তেমন কোনো ধারণা আছে বলে মনে হয়নি। ইরাকে মার্কিন অভিযানের নেতিবাচক প্রভাবের উদাহরণ হিসেবে ইসলামিক স্টেট সামনে এল।

এটা সত্য যে, যুক্তরাষ্ট্র খুঁজে খুঁজে বহু আলকায়েদা নেতাকে হত্যা করেছে। তালেবান ও আইএস নেতাদের ড্রোন হামলায় হত্যা করেছে। এর সঙ্গে এও তো সত্য, এসব হামলা শত শত নতুন আত্মঘাতী হামলাকারীর জন্ম দিয়েছে। আফগানিস্তানে মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনীর বিরুদ্ধে তালেবানের সবচেয়ে বড় অস্ত্র হয়ে উঠেছিল এই আত্মঘাতীরাই। এখন অবশ্য তালেবানকে ইসলামিক স্টেটের আত্মঘাতী হামলাকারীদের মোকাবিলা করতে হচ্ছে।

সামরিক শক্তি কিছু সমস্যার সমাধান দিতে পারলেও সঙ্গে আরও কিছুর জন্ম দেয়। বিন লাদেন যুক্তরাষ্ট্রকে সামরিক শক্তির ব্যাপক ব্যবহারে উসকানি দিয়েছিলেন। কারণ তিনি বুঝেছিলেন, এটি সমস্যা সমাধানের চেয়ে বহুগুণ বেশি সমস্যার জন্ম দেবে। কোনো দেশের স্বার্থ হাসিলের জন্য যুদ্ধই একমাত্র পথ নয়।

ওয়াশিংটনের উচিত হবে না অতীতের ভুল আবার করা। ১৯৮৯ সালে সোভিয়েত বাহিনীর আফগানিস্তান ত্যাগের পর যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্ররা দেশটি ছেড়ে চলে আসে। এটি আফগানিস্তানকে নিয়ে যায় গৃহযুদ্ধের দিকে, যার চূড়ান্ত ফল ছিল তালেবান। এখন দেশটি আবার একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত হওয়ার দ্বারপ্রান্তে।

সাবেক ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে দোহার আলোচনায় যে চুক্তি হয়েছিল, তা বাস্তবায়নে তালেবানকে চাপে রাখার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র চাইলে বিন লাদেনকে ভুল প্রমাণ করতে পারে। অন্য দেশকে হামলার জন্য আফগানিস্তানকে ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না—এই মর্মে তালেবান যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, তাতে তাদের স্থির থাকতে চাপ দিতে পারে যুক্তরাষ্ট্র। তালেবানের ক্ষমতা দখলে বাইডেন প্রশাসনের অখুশি অবোধ্য নয়। কিন্তু তাদের এ-ও বুঝতে হবে যে, তাদের কিছু সুবিধা রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তানের সম্পদ স্থগিত করেছে। দেশ চালাতে হলে তালেবানের এ অর্থের দরকার। যুক্তরাষ্ট্রের উচিত বিষয়টিকে ব্যবহার করা, যাতে তালেবান দেশের ক্ষমতাকাঠামোয় নারী ও অন্য রাজনৈতিক মতাদর্শের লোকেদের স্থান করে দেয়।

এটা অস্বীকারের কোনো উপায় নেই যে আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্রের চলে যাওয়া সব জায়গায় ইসলামি জঙ্গিদের শক্তি জোগাবে। কিন্তু যদি দেশটিতে শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিতে তালেবান ব্যর্থ হয়, তবে এর ফল আরও খারাপ হতে পারে। একটি ব্যর্থ রাষ্ট্রই ওসামা বিন লাদেনের মতো লোকেদের জন্য সবচেয়ে আকর্ষণীয় স্থান। তিনি দুর্বল সুদান থেকে ১৯৯৬ সালে আফগানিস্তানে পাড়ি দিয়েছিলেন। আর ৯/১১ হামলার পরিকল্পনাকে এগিয়ে নিয়েছিলেন। ১৯৯৮ সালে নেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি আমাকে বলেছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র তাঁকে হত্যা করতে পারে। কিন্তু তাঁকে কখনো জীবিত ধরতে পারবে না। তাঁর এই ভবিষ্যদ্বাণীও সত্য ছিল। চলুন তাঁর আর কোনো অনুমানকে সত্যে পরিণত হতে না দিই।

(মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টে প্রকাশিত লেখাটি লেখকের অনুমতি সাপেক্ষে প্রকাশিত হলো।)

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    লকডাউন নয়, টিকা ও মাস্ক পরার ওপর গুরুত্বারোপ বাইডেনের

    বিশ্বে করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু বেড়েছে

    বিশ্বে ওমিক্রনে শনাক্ত ১৫০, আফ্রিকার দেশগুলোর ওপর ৭০ দেশের নিষেধাজ্ঞা

    ওমিক্রন

    ভারতের করা ‘ঝুঁকির’ তালিকায় বাংলাদেশ

    ওমিক্রন উচ্চঝুঁকির, বিশ্বকে প্রস্তুতি নেওয়ার আহ্বান ডব্লিউএইচওর

    হট্টগোলের মধ্যেই বাতিল ভারতের কৃষি বিল

    শেরপুরে স্বেচ্ছাসেবক দলের মশাল মিছিলে পুলিশের বাধা

    ট্রাক-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে কলেজছাত্র নিহত

    উড়োজাহাজের ধাক্কায় কক্সবাজারে ২ গরুর মৃত্যু, রক্ষা পেলেন ৯৪ জন যাত্রী

    পটুয়াখালীতে ইউনিয়ন আ. লীগের কমিটি নিয়ে উত্তাপ, কাল অর্ধদিবস হরতাল

    তথ্যমন্ত্রীকে নিয়ে ফেসবুকে অপপ্রচার: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা

    পরের ব্যালন ডি’অর বেনজেমার হাতে দেখছেন রিয়াল কোচ