Alexa
শনিবার, ২২ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

যুক্তরাষ্ট্রের গণহত্যা যেভাবে শক্তিশালী করেছে তালেবানকে 

আপডেট : ০৮ নভেম্বর ২০২১, ১৫:২৯

২০ বছর পর আবারও আফগানিস্তানের ক্ষমতায় এসেছে তালেবান। রয়টার্স ফাইল ছবি ভয়াবহ ৯/১১ হামলার ২০ বছর পূর্তি আজ। এই হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে আফগানিস্তানে যুদ্ধ শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র। তাদের অভিযোগ ছিল, জঙ্গিগোষ্ঠী আলকায়দাকে সমর্থন করছে বর্তমানের আফগানিস্তানের শাসকগোষ্ঠী তালেবান। আর এই অভিযোগে ২০ বছর আগে আফগানিস্তানে অভিযান শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের হাতে আফগানিস্তানে অসংখ্য মানুষ নিহত হয়েছে, যাদের সঙ্গে ৯/১১ হামলা কিংবা তালেবানের সঙ্গে কোনো যোগসাজশ ছিল না। আফগানিস্তানে চালানো এই গণহত্যাই তালেবানের প্রতি আফগান জনগণের সমর্থন আরও বাড়িয়েছে।

আফগানিস্তানের পাঞ্জওয়াই জেলার জাঙ্গাবাদ গ্রামের জনগণ ১১ সেপ্টেম্বর হামলার ২০ বছর পূর্তির আগে নিজেদের গ্রামে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাদের হাতে নিহতদের সংখ্যা গুনছিল। তারা জানায়, যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীর স্টাফ সার্জেন্ট রবার্ট বেলসের হাতেই ওই গ্রামের কয়েক পরিবার নিহত হয়েছে। একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, রবার্ট বেলস কমপক্ষে ১৬ জনকে হত্যা করেছেন, যাদের মধ্যে নয়টি শিশু ছিল।

ভুক্তভোগীদের মধ্যে একজন হাজি মুহাম্মাদ ওয়াজির। তাঁর পুরো পরিবারই হারিয়েছে মার্কিন সেনাদের হাতে। তিনি জানান, ২০১২ সালের ১১ মার্চ মার্কিন সেনাসদস্য রবার্ট বেলসে তাঁর স্ত্রী, চার পুত্র, চার কন্যা এবং দুজন আত্মীয়কে হত্যা করেন।

হাজি মুহাম্মাদ ওয়াজির বলেন, 'এটি আমার জন্য কঠিন ছিল। আমি খুশি যে মার্কিন সেনারা আফগানিস্তান ছেড়েছে। আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞ।'

জাঙ্গাবাদের পাঁচজন বাসিন্দা যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানকে জানান, তাঁদের ৪৯ জন আত্মীয় নিহত হয়েছেন মার্কিন হামলায়। আর এই শোকই তাঁদের তালেবানকে সমর্থন দিতে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে।

আফগানিস্তানের পাঞ্জওয়াই জেলার তালেবান কমান্ডার ফাইজানি মৌলভি সাহেব বলেন, গণহত্যার কারণে মানুষ অস্ত্র হাতে তুলে নিতে বাধ্য হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের গণহত্যায় মানুষ আমাদের আরও বেশি সমর্থন দিয়েছে। বিশেষ করে ২০১২ সালে যুক্তরাষ্ট্র ব্যাপক গণহত্যা চালানোর পর এই সমর্থন বেড়েছে।

৯/১১ হামলার প্রায় ২০ বছর পর মার্কিন সৈন্য আফগানিস্তান ছেড়ে চলে গেছে। দেশটির ক্ষমতায় আবারও এসেছে তালেবান। আলকায়েদা এখনো আছে। আফ্রিকায় সাহারা মরুভূমির দক্ষিণের দেশগুলোতে আলকায়েদা সবচেয়ে বেশি ক্ষমতাশালী। তবে আফগানিস্তানের ভেতরেও এখন আলকায়েদার সদস্য রয়েছে। অনেকেই আশঙ্কা করছেন, উগ্র এই গোষ্ঠী আবার আফগানিস্তানে তাদের ঘাঁটি গাড়তে সচেষ্ট হবে।

আরও পড়ুন:

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    সংখ্যাগরিষ্ঠের সহিংসতায় বিভক্ত হচ্ছে ভারত

    ফিরে দেখা

    তালেবান শাসনে নারী স্বাধীনতা কোন পথে

    বছরজুড়ে নতুন নতুন রূপে ফিরে এসেছে করোনা

    ৯/১১ হামলার তদন্তবিষয়ক গোপন নথি প্রকাশ করেছে এফবিআই

    নাইন ইলেভেন

    যুক্তরাষ্ট্রের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত বুশ

    লাদেনের আর কোনো অনুমান সত্য না হোক

    নানার মৃত্যুর খবরেও অনশনে অনড় মরিয়ম

    ভিয়েতনামের ‘মননশীলতার পিতা’ হ্যন আর নেই

    রামেকে করোনা উপসর্গে দুজনের মৃত্যু

    আইপিএলের নিলামে সাকিব-মোস্তাফিজের ভিত্তিমূল্য ২ কোটি রুপি