সোমবার, ২০ মে ২০২৪

সেকশন

 

ইউনেসকোর ইনটেনজিবল কালচারাল হেরিটেজের স্বীকৃতি পেল রিকশাচিত্র

আপডেট : ০৬ ডিসেম্বর ২০২৩, ২১:৩৪

বাহারি ও শৌখিন পরিবহন হিসেবে ঢাকায় রিকশার আগমন ঘটে ১৯৪৭-এর দেশভাগের পর। ছবি: সংগৃহীত বাংলাদেশের রিকশা ও রিকশাচিত্রকে ‘ইনটেনজিবল কালচারাল হেরিটেজ’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে ইউনেসকো। ৫ নভেম্বর আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানার কাসান শহরে বসে ইউনেসকোর আইসিএইচের (ইনটেনজিবল কালচারাল হেরিটেজ) আন্তর্দেশীয় কমিটির ১৮তম বৈঠক। সেখানে গতকাল মঙ্গলবারের আসরে এ স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

আয়োজনে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেওয়ার পরে দেখানো হয় রিকশাচিত্রের ওপরে একটি ছোট প্রামাণ্যচিত্র। 

এ স্বীকৃতির ফলে আট দশক ধরে চলমান রিকশাচিত্রকর্ম একটি বৈশ্বিক ঐতিহ্য হিসেবে ইউনেসকোর স্বীকৃতি লাভ করল। ছয় বছর ধরে এ চিত্রকর্মের নিবন্ধন ও স্বীকৃতির প্রক্রিয়া চলমান থাকলেও প্রথম চেষ্টায় তা ব্যর্থ হয়। তবে ২০২২ সালে পুনরায় নথিটি জমাদানের সুযোগ দেওয়া হলে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে এবং প্যারিসে বাংলাদেশ দূতাবাসের সহযোগিতায় সম্পূর্ণ নথিটি নতুনভাবে প্রস্তুত করা হয়। 

রিকশাচিত্রে সিনেমার নায়ক–নায়িকা। শিল্পী: আলী নূর সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এবং সংস্কৃতিসচিব খলিল আহমদ এক বিবৃতিতে এই অর্জনকে বাংলাদেশের জন্য বিরল সম্মান হিসেবে অভিহিত করেছেন। এ ছাড়া নিবন্ধন ও স্বীকৃতির প্রক্রিয়ায় অগ্রণী ভূমিকা রাখায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাংলা একাডেমি, জাতীয় জাদুঘর ও প্যারিসের বাংলাদেশ দূতাবাসকে অভিনন্দন জানান তাঁরা। 

১৫ নভেম্বর ৪২তম সাধারণ পরিষদের সভায় বাংলাদেশ ইউনেসকো নির্বাহী পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়। 

ইতিহাস বলছে, ১৮৭০ সাল নাগাদ রিকশা উদ্ভাবিত হয়। বিশ শতকের প্রথম ভাগে অবিভক্ত বাংলায় রিকশার প্রবর্তন ঘটে। কাছাকাছি সময়ে পূর্ববঙ্গেও রিকশার প্রচলন হয়। ঢাকার সূত্রাপুরের এক বাঙালি জমিদার এবং ওয়ারী অঞ্চলের একজন মাড়োয়ারি ছয়টি রিকশা কিনে ঢাকায় প্রবর্তন করেন বলে জানা যায়।

বাংলাদেশে এর প্রচলন ঘটে সাইকেল রিকশার, মানুষে টানা রিকশা নয়। বাহারি ও শৌখিন পরিবহন হিসেবে ঢাকায় রিকশার আগমন ঘটে ১৯৪৭-এর দেশভাগের পর। রিকশাচিত্রের সূত্রপাত হয় এই সময় থেকেই। পঞ্চাশ ও ষাটের দশক থেকে রিকশাচিত্র তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে জনপ্রিয় হতে থাকে। 

রিকশাচিত্রের মূল লক্ষ্য রিকশাকে সুসজ্জিত ও আকর্ষণীয় করা হলেও ধীরে ধীরে এই আর্টের প্রভাব অন্যান্য কাজেও পড়ে। বিশেষ করে চলচ্চিত্রের পোস্টারের কথা উল্লেখ করা যায়। ষাটের দশকে রিকশাচিত্র করা হতো মূলত শীর্ষস্থানীয় চলচ্চিত্র তারকাদের প্রতিকৃতি অবলম্বনে। পরে এতে যুক্ত হয় নানা কিছু। 

বতসোয়ানায় ইউনেসকোর ইনটেনজিবল কালচারাল হেরিটেজের আন্তর্দেশীয় কমিটির ১৮তম বৈঠকে বাংলাদেশ। ছবি: সংগৃহীত স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে মুক্তিযুদ্ধ, গ্রামের জনজীবন, প্রাকৃতিক দৃশ্য, প্রাণী, পাখি, ট্রাফিক কন্ট্রোল করছে একটা শিয়াল, রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছে একটা বাঘ, পাশে স্কুলবালকের মতো ব্যাগ কাঁধে খরগোশ ছানা চলছে ইত্যাদি মোটিফ রিকশাচিত্রে যুক্ত হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন মিথ বা ধর্মীয় কিংবদন্তিকে বিষয় করে রিকশায় ছবি আঁকা হয়। যেমন মুসলিম উপাখ্যানের দুলদুল, বোরাক কিংবা আরব্য রজনীর উপাখ্যান—আলাদিনের আশ্চর্য প্রদীপ ও দৈত্য, রাজকন্যা, রাজপ্রাসাদ ইত্যাদি। 

রিকশাচিত্র ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে। তাই এই ঐতিহ্যকে বাঁচাতে ইউনেসকো এই বাহনকে ইনটেনজিবল কালচারাল হেরিটেজ ঘোষণা করল। 

এর আগে বাংলাদেশের বাউলগান (২০০৮), জামদানি বুননশিল্প (২০১৩), মঙ্গল শোভাযাত্রা (২০১৬) ও শীতলপাটি বুননশিল্পের (২০১৭) পর পঞ্চম বিমূর্ত ঐতিহ্য হিসেবে ইউনেসকোর ‘ইনটেনজিবল কালচারাল হেরিটেজ হিসেবে স্বীকৃতি পায়।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা ব্যবস্থার বিধিমালা প্রণয়ন করা হয়েছে: পরিবেশমন্ত্রী

    কিরগিজস্তানে বিদেশি শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা, বাংলাদেশিদের সতর্ক থাকার পরামর্শ

    ৩০ শতাংশ বেতন বাড়ানোর দাবিতে সরকারি কর্মচারীদের কর্মসূচি

    আন্তর্জাতিক জাদুঘর দিবস: নিদর্শন পড়ে আছে অযত্ন-অবহেলায়

    জার্মানিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের নিজস্ব ভবন নির্মাণ শুরু

    ব্যস্ত দিন কাটল ডোনাল্ড লুর, রাজনৈতিক ও নাগরিক অধিকার পরিস্থিতির খোঁজ নিলেন

    আইসিবির শাখায় শাখায় ঘুরেও মিলছে না টাকা

    হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত ইরানের ইসলামি বিপ্লবের সন্তান কে এই ইব্রাহিম রাইসি 

    ইতিহাস গড়ার পর গার্দিওলা কি ম্যান সিটি ছাড়ার ইঙ্গিত দিলেন

    ব্রাহ্মণপাড়ায় সোনালু ফুলে শোভিত প্রকৃতি

    নিম্ন আদালতে পদ খালি, তবু হচ্ছে না বিচারকদের পদায়ন

    হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত ইরানের প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী