শনিবার, ২২ জুন ২০২৪

সেকশন

 

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনসহ ৩ সংস্থার কাজ নিয়ে মন্ত্রীর অসন্তোষ 

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২৩, ২০:০১

চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে সমন্বয় সভা। ছবি: আজকের পত্রিকা চট্টগ্রামে তিন সংস্থার কার্যক্রম নিয়ে সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। সভায় তিন সংস্থার প্রতিনিধিদের থেকে কাজের সবশেষ অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাইলে তাঁদের উত্তর মন্ত্রীকে সন্তুষ্ট করতে পারেনি।

আজ শনিবার দুপুর ৩টার দিকে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ এবং স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের উন্নয়ন কার্যক্রম নিয়ে এ সমন্বয় সভা হয়। 

সভায় চট্টগ্রামে তিন সংস্থার প্রতিনিধির কাছে চলমান কাজের অগ্রগতি জানতে চান মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। তখন কোনো প্রতিনিধি বলেন, কাজের অগ্রগতি নিয়ে বৈঠক হয়েছে। আবার কোনো প্রতিনিধি বলেন, কমিটি হয়েছে। 

এই ধরনের বক্তব্যে অসন্তোষ প্রকাশ করেন তাজুল ইসলাম বলেন, ‘এর আগেও অনেকবার সমন্বয় সভায় একই ধরনের কথা শুনেছি। এই ধরনের কথা আর শুনতে চাই না। কাজ কতটুকু হয়েছে, শেষ হয়েছে কি-না তাই বলুন।’

সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন সিটি করপোরেশনের মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী, শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী, স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মুহম্মদ ইবরাহিম এবং তিন সংস্থার প্রতিনিধিরা।

চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতার প্রকল্পের অগ্রগতি বিষয়ে মন্ত্রী জানতে চাইলে সিটি করপোরেশনের প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম বলেন, এই প্রকল্পের অগ্রগতি সম্পর্কে বিভাগীয় তিন সংস্থার মধ্যে সভা আয়োজন করা হয়েছে।

এ সময় মন্ত্রী প্রশ্ন করেন, ‘প্রতি মাসে সভার আয়োজন করতে বলা হয়েছে। নির্দিষ্ট করে বলেন, আপনারা কয়টি সভা আয়োজন করেছেন।’ উত্তরে সংস্থার প্রতিনিধিরা বলেন, ‘এই পর্যন্ত নয়টি সভা আয়োজন করা হয়েছে।’ 

সমন্বয় সভায় প্রতিনিধিরা বলেন, চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতা নিরসনে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের দুটি, সিটি করপোরেশনের একটি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের একটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। 

মন্ত্রী সিটি করপোরেশন ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রকল্পের অগ্রগতি জানতে চাইলে, প্রকল্পগুলো এখনো আগের অবস্থায় রয়েছে বলে জানান প্রতিনিধিরা।   

সেনাবাহিনীর অধীনে থাকা প্রকল্পের অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চেয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের প্রতি অনেক অভিযোগ রয়েছে। সেনাবাহিনীর অধীনের প্রকল্পগুলো কাজের নাকি অগ্রগতি নেই। আপনারা নাকি কাজ করেন না।’

এ সময় সেনাবাহিনীর প্রতিনিধিরা বলেন, ‘প্রায় ৩৩টি খালের মধ্যে ১৭টির খনন কাজ শেষ হয়েছে। বাকিগুলোরও কাজ এক বছরের মধ্যে শেষ হবে।’

মন্ত্রণালয়ের অনুমতি না নিয়ে দোকান ভাড়ার বিষয়ে প্রশ্ন তোলেন মন্ত্রী। এ সময় মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, ‘চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন দেশের অন্যান্য সিটি করপোরেশনের মতো নয়। তাদের আয়বর্ধক প্রকল্প থেকে আয় আসে। আমাদের তা নেই। সে জন্য দোকান ভাড়া দিয়ে আয় করার চেষ্টা করে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    রোহিঙ্গা তরুণকে জন্মসনদ দেওয়ার অভিযোগে ইউপি সচিব গ্রেপ্তার

    ১৯০০ সালের পার্বত্য চট্টগ্রাম শাসনবিধি বাতিলের ষড়যন্ত্র চলছে: সন্তু লারমা

    চবিতে জানালার গ্রিল চুরি করে ধরা ছাত্রলীগ নেতা, মুচলেকায় মুক্তি

    রামগতিতে গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় থানায় মামলা, স্বামী গ্রেপ্তার

    কক্সবাজারে পাহাড়ধস, অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীসহ যুবক নিহত

    মৌসুম শুরু হলেও চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনায় মিলছে না কাঙ্ক্ষিত ইলিশ

    আটপাড়ায় বাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের দায়ে সুপারভাইজারকে জরিমানা

    সংকট নেই, তবু বাড়ল সবজি, মাছের দাম

    চাঁপাইনবাবগঞ্জে ইজারা ছাড়াই ৬ ফেরিঘাট থেকে ‘টোল’ আদায়