বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪

সেকশন

 

নাইজারে অভ্যুত্থান: ফরাসি সেনা ও রাষ্ট্রদূত প্রত্যাহারে মাখোঁর নির্দেশ

আপডেট : ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ১৭:২২

ফরাসি সৈন্যদের উপস্থিতির প্রতিবাদে নাইজারে বিক্ষোভ। ছবি: এএফপি নাইজারে অভ্যুত্থানের পর দেশটি থেকে ফরাসি সেনা এবং রাষ্ট্রদূতকে সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ‍ইমানুয়েল মাখোঁ। তিনি বলেছেন, ‘কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আমাদের রাষ্ট্রদূত এবং কয়েকজন কূটনীতিক ফ্রান্সে ফিরে আসবেন।’

মাখোঁ আরও বলেছেন, ‘নাইজারে ফরাসি সামরিক সহযোগিতার সমাপ্তি টানা হচ্ছে এবং কয়েক মাসের মধ্যে সৈন্যরাও দেশটি ত্যাগ করবে।’

গত জুলাইয়ে নাইজারের ক্ষমতা দখলকারী সামরিক জান্তা ফ্রান্সের এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে। জান্তা এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘এই রোববার সার্বভৌমত্বের দিকে আরেক ধাপ এগিয়ে গেল নাইজার।’

পশ্চিম আফ্রিকার স্থলবেষ্টিত দেশ নাইজারে এখন প্রায় দেড় হাজার ফরাসি সৈন্য অবস্থান করছেন। ফরাসি সৈন্যদের উপস্থিতির প্রতিবাদে রাজধানী নিয়ামেতে কয়েক মাস ধরেই নিয়মিতভাবে বিক্ষোভ হয়েছে। তারই ফলে সৈন্য প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিল ফ্রান্স।

বৃহত্তর সাহেল অঞ্চলে ইসলামপন্থী জঙ্গিদের বিরুদ্ধে ফ্রান্সের অভিযান এবং সেখানে প্যারিসের প্রভাব বিস্তারের প্রচেষ্টায় সৈন্য প্রত্যাহারের পদক্ষেপটিকে বড় এক আঘাত হিসেবেই দেখা হচ্ছে। ফ্রান্সের টিএফওয়ান এবং ফ্রান্স টু চ্যানেলের কাছে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল মাখোঁ বলেছেন, ‘অভ্যুত্থানকারীদের কাছে জিম্মি হবে না ফ্রান্স।’

নাইজারের ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ বাজুমকে দেশটির কারাগারে রেখেছে অভ্যুত্থানকারীরা। মোহাম্মদ বাজুমকে এখনো দেশটির ‘একমাত্র বৈধ কর্তৃত্ব’ এবং ‘জিম্মি’ হিসেবে অভিহিত করেছেন মাখোঁ। ফরাসি প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘জাতিগত বিরোধের নিষ্পত্তি ঘটাতে এবং রাজনৈতিক কাপুরুষতার বিরুদ্ধে তিনি (মোহাম্মদ বাজুম) কিছু সাহসী সংস্কার চালিয়েছিলেন বলেই এই অভ্যুত্থানের লক্ষ্যবস্তু হয়েছেন।’

পশ্চিম আফ্রিকার বেশ কয়েকটি সাবেক ফরাসি উপনিবেশের মধ্যে একটি হচ্ছে নাইজার; যেখানে সেই দেশের সামরিক বাহিনী সম্প্রতি ক্ষমতা দখল করেছে। বুর্কিনা ফাসো, গিনি, মালি ও চাদের পথ অনুসরণ করেছে নাইজার। পশ্চিম আফ্রিকায় সর্বশেষ অভ্যুত্থান হয়েছিল গত আগস্টে, গ্যাবনে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এই অঞ্চলে ফ্রান্সবিরোধী মনোভাব বেড়েছে অনেক বেশি। স্থানীয় অনেক রাজনীতিবিদ প্যারিসের বিরুদ্ধে এই অঞ্চলে নব্য ///ঔপনিবেশিক নীতি পরিচালনার অভিযোগ তুলেছে, যা অস্বীকার করেছে ফ্রান্স।

ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ‍ইমানুয়েল মাখোঁ। ছবি: এএফপি সাহেলে ভাগনার গ্রুপের ক্রমেই বাড়তে থাকা প্রভাবও বাড়িয়েছে পশ্চিমাদের মাথাব্যথা। পশ্চিমাদের অভিযোগ হচ্ছে, ভাগনার গ্রুপ এই অঞ্চলে মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং কিছু দেশে সামরিক শাসন প্রতিষ্ঠায় সাহায্য করেছে।

ফ্রান্সের সমর্থিত আঞ্চলিক অর্থনৈতিক জোট ইকোওয়াস নাইজারের ক্ষমতায় মোহাম্মদ বাজুমকে পুনর্বহাল করার দাবি জানিয়ে অভ্যুত্থানকারীদের প্রতি হুমকিও দিয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তা কার্যকরের কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি।

গত ২৬ জুলাই মোহাম্মদ বাজুমকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করে অভ্যুত্থানকারীরা। এরপর গত আগস্টে দেশটিতে ফরাসি রাষ্ট্রদূত সিলভেইন ইত্তেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে নাইজার ত্যাগ করতে বলে সামরিক নেতারা। কিন্তু প্যারিস নাইজারের সামরিক সরকারকে বৈধতা দেয়নি। সিলভেইন ইত্তেও নাইজার ছেড়ে যাননি।

মাখোঁর বিবৃতির কয়েক ঘণ্টা আগে নাইজারের আকাশপথে ফরাসি এয়ারলাইনসকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে দেশটির অভ্যুত্থানকারী নেতারা। আঞ্চলিক এয়ার সেফটি অর্গানাইজেশন (এএসইসিএনএ) বলেছে, নাইজারের আকাশসীমা ফরাসি বিমান বা ফ্রান্সের চার্টার্ড বিমান যেমন এয়ার ফ্রান্স ব্যতীত সব জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যিক ফ্লাইটের জন্য উন্মুক্ত। পূর্বানুমতি না পাওয়া পর্যন্ত নাইজারের আকাশপথ সব সামরিক এবং অন্য বিশেষ ফ্লাইটের জন্য বন্ধ থাকবে বলে এএসইসিএনএর বার্তায় বলা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে এএফপিকে এয়ার ফ্রান্স জানিয়েছে, নাইজারের আকাশসীমার ওপর দিয়ে তাদের কোনো বিমান এমনিতেও উড়ছে না।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    পারমাণবিক অস্ত্রের পেছনে প্রতি সেকেন্ডে ব্যয় হচ্ছে সাড়ে ৩ লাখ টাকা 

    পারমাণবিক সক্ষমতা আরও বাড়াচ্ছে ইরান: আইএইএ

    রাশিয়ার জব্দ করা সম্পদ নিজ স্বার্থে ইউক্রেনে ব্যবহার করতে চায় জি-৭ 

    কঙ্গোয় নৌকাডুবে ২১ শিশুসহ ৮৬ জন নিহত

    যুদ্ধে মৃত্যুর সংখ্যা ৩০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ: গবেষণা

    নিখোঁজ বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে, মালাবির ভাইস প্রেসিডেন্ট নিহত

    বন্ধুর গোপনাঙ্গ কেটে নিজেরও কাটলেন তরুণ, হাসপাতালে মৃত্যু

    এবারও কি চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা নাকি অন্য কেউ

    বিদেশি ফলে ভরছে দেশের মাঠ, ৫টির চাষ সবচেয়ে বেশি

    বাংলাদেশের সুপার এইটের ম্যাচ দেখবেন কোথায় 

    রোহিঙ্গাদের কারণে এনআইডি পেতে ৩২ উপজেলার মানুষের ভোগান্তি

    রাজধানীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২