সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

সেকশন

 

মালির রাজা মানসা মুসার ঐতিহাসিক হজযাত্রা

আপডেট : ২৬ মে ২০২৩, ০৮:৩২

১৩১২ থেকে ১৩২৭ সাল পর্যন্ত মানসা মুসা মালি শাসন করেন। এই সময়কে মালি সাম্রাজ্যের স্বর্ণকাল বলা হয়। ছবি: সংগৃহীত

আফ্রিকার ইতিহাসে সবচেয়ে প্রভাবশালী শাসকদের একজন মালির রাজা মানসা মুসা। ১৪ শতকের প্রথমার্ধে দুই যুগ পশ্চিম আফ্রিকা শাসন করেন। বিপুল পরিমাণ স্বর্ণের মালিকানা এবং ইসলামের বিভিন্ন সেবার কারণে ইতিহাসে বিখ্যাত হয়ে আছেন। তাঁর জীবনের সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা—১৩২৪ সালে ৬০ হাজার লোকের বিশাল বহর নিয়ে হজে গমন। লিখেছেন মো. ফজলুল আলম।

১৩১২ থেকে ১৩২৭ সাল পর্যন্ত মানসা মুসা মালি শাসন করেন। এই সময়কে মালি সাম্রাজ্যের স্বর্ণকাল বলা হয়। তাঁর পরদাদা সুনজাতা ছিলেন সাম্রাজ্যটির প্রতিষ্ঠাতা। মালিংকে জাতি নিয়ে সুনজাতা একটি জাতিবাদী রাষ্ট্র গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন, তবে তাঁর উত্তরসূরি প্রভাবশালী মানসা মুসা বহুজাতিক ইসলামি সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠায় ব্রতী হয়েছিলেন। তারই ধারাবাহিকতায় ১৩২৪ সালে তিনি পবিত্র হজব্রত পালন করতে বের হন।

মালি থেকে মক্কায় যেতে মানসা মুসা এক বছরের বেশি সময় নিয়েছিলেন। নাইজার নদী দিয়ে মেমা, ওয়ালাতা, তেঘাজা হয়ে তিনি মধ্য আফ্রিকার অন্যতম বড় বাণিজ্যকেন্দ্র তুয়াতে আসেন। তুয়াত তখন সব ধর্মের মানুষের প্রিয় বাণিজ্যকেন্দ্র ছিল। এরপর তিনি মিসরে পৌঁছান। পিরামিডের কাছে তাঁবু গাড়েন। মিসরের সুলতানের জন্য ৫০ হাজার স্বর্ণমুদ্রা উপহার পাঠান। সুলতান তাঁকে প্রাসাদে আমন্ত্রণ জানান।

টাইম ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদনে মুসাকে সর্বকালের সেরা ধনীদের একজন আখ্যা দেওয়া হয়েছে। হজযাত্রায় তিনি বিপুল পরিমাণ স্বর্ণ সঙ্গে নিয়েছিলেন। পথে পথে মানুষের মধ্যে তা বিতরণ করেন। মিসরে তিনি এত বেশি স্বর্ণ বিতরণ করেন যে সেখানে স্বর্ণের দাম ২৫ শতাংশ কমে গিয়েছিল। হজের পুরো সফরে তিনি এত বেশি দান করেন যে মক্কা থেকে ফেরার সময় কায়রো পৌঁছে তাঁকে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে অর্থ ধার নিতে হয়েছিল।

ইসলাম সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান না থাকলেও মানসা মুসা ধর্মপ্রাণ ছিলেন। পুরো আফ্রিকায় তাঁর ব্যাপক দাপট ছিল। ইবনে বতুতা লিখেছেন, অন্য রাজা-বাদশাহর মতো মুসাও মানুষের সমীহ পেতে লালায়িত থাকতেন। প্রজারা তাঁকে হাঁটু গেড়ে বসে সম্মান জানাত। হজের সফরে কায়রো পৌঁছালে এভাবেই তাঁকে সম্মান জানায় মিসরের লোকজন। এ ছাড়া মুসার প্রাসাদের আরেকটি প্রথা ছিল, প্রজাদের অতি সুন্দরী কন্যা থাকলে তাকে রাজার বিছানায় যেতে হতো। অবশ্য মানসা মুসা পরে এসব ইসলামবিরোধী কাজ থেকে বিরত হন।

মামলুক আমলের বিচারক ইবনে আমির হাজিবের সূত্রে ইবনে বতুতা বলেছেন, মানসা মুসা আন্তরিকতার সঙ্গে নামাজ পড়তেন এবং কোরআন তিলাওয়াত করতেন। তিনি নিজে আদেশ জারি করতেন না, একজন মুখপাত্রের মাধ্যমে জনগণের কাছে বার্তা পাঠাতেন। লেখালেখির জন্যও তাঁর দরবারে আলাদা কর্মকর্তা ছিলেন।

ইবনে বতুতা আরও বলেন, হজের সফরে মুসা বিশাল বাহিনী নিয়ে গিয়েছিলেন। হাজার হাজার মানুষ, দেহরক্ষী, ঘোড়া ও উটের বিশাল বহর এবং রঙিন সব পতাকা নিয়ে তিনি মক্কায় রওনা করেছিলেন। সঙ্গে ছিল তাঁর স্ত্রী ইনারি কুনাতে। স্ত্রীর সঙ্গে ছিল ৫০০ দাসদাসীর বিশাল বহর। তবে স্ত্রী ইনারি মানসা মুসাকে ভয় পেতেন এবং সম্মান করতেন।

মানসা মুসার ঐতিহাসিক এই হজযাত্রা মালিতে ইসলামের বিকাশে অবদান রেখেছিল। পুরো আফ্রিকা ও ইউরোপে মালির গৌরব ও মর্যাদা বেড়েছিল। হজ থেকে ফেরার সময় তিনি আন্দালুসের বিখ্যাত এক স্থপতিকে সঙ্গে নিয়ে যান। তাঁর মাধ্যমেই মধ্যযুগে আফ্রিকার স্থাপত্যবিস্ময় টিম্বক্টু শহর গড়ে তুলেছিলেন তিনি। মহানবী (সা.)কে সম্মান জানিয়ে তাঁর চারজন বংশধরকেও বরকত নেওয়ার জন্য মালি সাম্রাজ্যে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন।

ইতিহাসবিদ লেভজিয়ন বলেছেন, মানসা মুসার হজযাত্রার কথা মুসলিম, অমুসলিম, পশ্চিম আফ্রিকা ও মিসরের ঐতিহাসিক দলিলপত্রে লেখা আছে। ইউরোপের ইতিহাসেও মালির সমৃদ্ধ সাম্রাজ্য ও মানসা মুসার কথা পাওয়া যায়। মসজিদ নির্মাণ ও মুসলিম বিশ্বের পণ্ডিতদের মালিতে আমন্ত্রণের জন্য তিনি বিখ্যাত হয়ে আছেন। 

সূত্র: অ্যাবাউট ইসলাম ডটনেট

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    নামাজ ভঙ্গের ১৮ কারণ

    হজের প্রেক্ষাপট ও আধ্যাত্মিক গুরুত্ব

    মহানবী (সা.) কখন নবুওয়ত লাভ করেন

    ভারতে জ্ঞানের আলো ছড়াচ্ছে যে মসজিদ

    বদনজর থেকে বাঁচতে ৩ করণীয়

    দাম্পত্য সম্পর্কে শয়তানের প্ররোচনা

    ১০২ কিমি বেগে উপকূলে ঘূর্ণিঝড় রিমালের আঘাত, জোয়ার-জলোচ্ছ্বাসে প্লাবণ

    উপকূল জুড়ে চলছে রিমালের তাণ্ডব

    এবার কাতার এয়ারওয়েজের বিমান ঝোড়ো বাতাসের কবলে, আহত ১২

    শর্ত পূরণ না করায় সহজ ডটকমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার সুপারিশ সংসদীয় কমিটির

    চলতি বছর ডেঙ্গু দেশের জন্য অশনিসংকেত

    এমআরসিপিতে সর্বোচ্চ নম্বরের রেকর্ড গড়লেন ডা. হালিম