শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪

সেকশন

 

বৃষ্টির ধারা এপ্রিলেও থাকবে, বাড়বে গরম

আপডেট : ০১ এপ্রিল ২০২৩, ০৯:৪৪

ফাইল ছবি মার্চের শেষ সপ্তাহের মতো এপ্রিলেও বৃষ্টি হবে। তবে এপ্রিলে গরম বাড়বে। উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে। বিভিন্ন স্থানে মাঝারি ও তীব্র কালবৈশাখী হতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তর গতকাল শুক্রবার এমন পূর্বাভাস দিয়েছে।

গত মার্চের শেষ সপ্তাহে দেশের বিভিন্ন স্থানের বৃষ্টিকে স্বাভাবিক বলছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। বলেছে, গতকাল স্বাভাবিকের চেয়ে ৬ শতাংশ বেশি বৃষ্টি হয়েছে। টাঙ্গাইলে সর্বোচ্চ ৬৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। ঢাকায় হয়েছে ২৮ মিলিমিটার। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল বান্দরবানে ৩৪ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নিকলীতে ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ এ কে এম নাজমুল হক আজকের পত্রিকাকে বলেন, ফেব্রুয়ারি মাসে মার্চ নিয়ে এমন পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল। মার্চে স্বাভাবিকের চেয়ে যে পরিমাণ বেশি বৃষ্টি হয়েছে, তা স্বাভাবিক হিসেবেই গণ্য করা হয়। সাধারণত ১০ শতাংশ কমবেশি হয়ে থাকে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তিন মাস মেয়াদি পূর্বাভাস বলছে, এপ্রিলেও দেশে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। এ মাসে বঙ্গোপসাগরে এক থেকে দুটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এর একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে।

এপ্রিলে দেশের উত্তর থেকে মধ্যাঞ্চল পর্যন্ত দুই থেকে তিন দিন বজ্র, শিলাবৃষ্টিসহ মাঝারি বা তীব্র কালবৈশাখী এবং দেশের অন্যান্য অঞ্চলে চার থেকে পাঁচ দিন বজ্র, শিলাবৃষ্টিসহ হালকা বা মাঝারি ধরনের কালবৈশাখী হতে পারে। এ ছাড়া এপ্রিলে উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে একটি তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে, যা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি হতে পারে। অন্যান্য অঞ্চলে দুই থেকে তিনটি মৃদু (৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি) বা মাঝারি (৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস) তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

নাজমুল হক আরও বলেন, মার্চে বৃষ্টিপাতে তেমন কোনো পরিবর্তন আসেনি। এপ্রিলেও আসার সম্ভাবনা কম।

এদিকে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (ব্রি) বলছে, এমন আবহাওয়ার পর ধানে পোকা ধরার প্রবণতা বাড়তে পারে। বর্তমানে সারা দেশে ধানগাছ সর্বোচ্চ কুশি ও থোড় অবস্থায় রয়েছে। তাই কালবৈশাখী, বৃষ্টি ও পরবর্তী অবস্থায় তাপমাত্রা এবং আর্দ্রতা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ধানে মাজরা পোকা, বাদামি গাছফড়িং, পাতা মোড়ানো পোকা ও গান্ধি পোকার আক্রমণ বাড়তে পারে। তাই ঝড়-বৃষ্টির পর জমিতে জমে থাকা পানি সরিয়ে ফেলার এবং বৃষ্টির সময় কীটনাশক দেওয়া থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দিয়েছে ব্রি।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    টাকায় বড় হয় স্বাস্থ্যসেবা দল

    ‘ব্যাংক ধ্বংসে মালিকেরা সহায়তায় সরকার’

    জাহাজে পণ্য পরিবহন: নিরাপত্তা ব্যয় ট্রিপে বেড়েছে ১ লাখ ডলার

    এক উপজেলা চান ৩ মহিলা কর্মকর্তা

    নওয়াপাড়া নদীবন্দর: ভাটা মানেই জাহাজের বিপদ

    ঝালকাঠিতে সড়ক দুর্ঘটনা: উঁচু সেতুর ঢালে বেড়ে যায় গতি

    টঙ্গীর তুরাগ নদ থেকে অজ্ঞাতপরিচয় যুবকের লাশ উদ্ধার

    সালাহর গোলের রাতে ক্লপের কীসের আক্ষেপ 

    মায়ার ভাতিজা বউ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হচ্ছেন ভাইস চেয়ারম্যান

    ইসরায়েলি হামলার পর আবারও তেহরানে বিমান চলাচল শুরু

    মাখো মাখো মুরগীর রোস্ট

    শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ভোট দিতে পারছেন না যেসব তারকা শিল্পী