মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

বগুড়ায় পুলিশের চাপে বাড়ল গরুর মাংসের দাম

আপডেট : ২৯ মার্চ ২০২৩, ০৭:৫৬

বগুড়ার গাবতলীর কদমতলীর ‘গোশত্ ঘরে’ ৫৮০ টাকা দরে গরুর মাংস কিনতে ভিড় লেগে থাকে। ছবি: আজকের পত্রিকা বগুড়ার গাবতলী উপজেলার মাংস ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম ওরফে কালু কসাই। দুই দিন আগেও তিনি ৫৫০ টাকা কেজি দরে গরুর মাংস বিক্রি করতেন। কিন্তু বাদ সাধে পুলিশ। দাম বাড়াতে নজরুলকে দেওয়া হয় চাপ। পরে একপ্রকার বাধ্য হয়েই প্রতি কেজিতে ৩০ টাকা বাড়িয়ে এখন বিক্রি করছেন ৫৮০ টাকা দরে।  

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বগুড়া শহরের সবখানে গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৭০০ টাকা কেজি দরে। আর গ্রামের হাটবাজারগুলোতে দাম রাখা হচ্ছে ৬৫০ টাকা কেজি। বাজারের এমন পরিস্থিতিতেও বগুড়া শহর থেকে ১৪ কিলোমিটার দূরে গাবতলীর নশিপুর ইউনিয়নের কদমতলী গ্রামে রাস্তার ধারে ৫০০ টাকা কেজি দরে গরুর মাংস বিক্রি করে আসছিলেন নজরুল। এক বছর আগেই এই দামে মাংস বিক্রি শুরু করেন তিনি।   

কথা হলে নজরুল জানান, কদমতলীতে ব্যবসা শুরুর আগে তিনি ২৫ বছর মাংস বিক্রি করেছেন বাগবাড়ি হাটে। সেখানে একটি গরু জবাই করলে খাজনা দিতে হতে হয় ৪ হাজার টাকা। এ কারণে সেখানে কম দামে মাংস বিক্রির সুযোগ নেই। পরে কদমতলী গ্রামের রাস্তার ধারে ৫০০ টাকা কেজি দরে মাংস বিক্রি শুরু করেন। বাগবাড়ি হাটে প্রতি কেজি মাংস ৬৫০ টাকায় বিক্রি শুরু হলে নজরুলও কেজিতে ৫০ টাকা বাড়িয়ে ৫৫০ টাকায় বিক্রি করেন।

কম দামে মাংস বিক্রির বিষয়টি জানাজানি হলে দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন নজরুলের দোকানে ভিড় করেন। গতকাল সকালে কদমতলী মোড়ে নজরুলের মাংসের দোকানের সামনে কথা হয় সোনাতলা উপজেলার বালুয়াহাট এলাকার বাসিন্দা মনজুরুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘ফেসবুকে দেখেছি এই মোড়ে মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকা কেজি দরে। অন্য জায়গার তুলনায় এক কেজি মাংসে ১০০ টাকা কম। এ কারণে এখানে মাংস কিনতে এসেছি।’

অন্য ব্যবসায়ীরা যেখানে ৭০০ টাকা নেন, সেখানে তিনি এক কেজি গরুর মাংস ৫০০ টাকায় বিক্রি করতে পারেন কীভাবে—এমন প্রশ্নের উত্তরে নজরুল ওরফে কালু কসাই বলেন, ‘এখন সপ্তাহে অন্তত ২৫টি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে। অধিক বিক্রি কম লাভ এই নীতিতে ব্যবসা করি।’

দাম বাড়াতে পুলিশ চাপ দিয়েছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘আমার এখানে কম দামে মাংস পাওয়ায় ক্রেতারা ভিড় করছেন। এতে বাগবাড়ি হাটে মাংস বিক্রি বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে। এ কারণে দুই দিন আগে বাগবাড়ি পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ এসে মাংসের দাম ৫৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৬০০ টাকা কেজি করতে বলেন। পুলিশের কথা না শুনলেও ঝামেলা আছে। তাই কেজিতে ৩০ টাকা বাড়িয়ে ৫৮০ টাকায় বিক্রি করছি।’

তবে মাংসের দাম বাড়াতে ব্যবসায়ীকে চাপ দেওয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন গাবতলীর বাগবাড়ি পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ পরিদর্শক মোহাম্মদ কামরুজ্জামান। তিনি আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমরা দাম বাড়ানোর কথা বলিনি। বাগবাড়ি হাটের মাংস ব্যবসায়ীদের সঙ্গে তাঁর (কালু কসাই) প্রতিযোগিতা রয়েছে। এ কারণে তিনি কখনো দাম বাড়ান আবার কখনো কমান।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    খাগড়াছড়ি পাহাড়ে রঙিন আম, বেশি দাম

    আশ্রয়ণের ঘর বরাদ্দ আছে, পরিবার নেই

    ধীরগতিতে নামছে পানি থামছে না নদীভাঙন

    ধানের দামে হতাশ দিনাজপুরের কৃষকেরা

    সাক্ষাৎকার

    চরিত্রের ব্যাপ্তি নিয়ে দর্শকের মতো আমিও হতাশ

    সাগর জাহানের নাটকে জোভান ও সাদিয়া

    শেখ হাসিনা দেশকে বিক্রি করে না: প্রধানমন্ত্রী

    আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন পরীমণি 

    উত্তরা ব্যাংকে চাকরির সুযোগ

    যে শঙ্কায় বিয়ে করছেন না সালমান, জানালেন বাবা সেলিম খান

    বাগেরহাটে প্রতিপক্ষের হামলায় মাছ ব্যবসায়ী নিহত

    আজকের পত্রিকায় চাকরির সুযোগ