Alexa
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

কর ফাঁকি: উচ্চ আদালতের আদেশে ঘনিষ্ঠ সহযোগীকে হারালেন নেতানিয়াহু

আপডেট : ২৩ জানুয়ারি ২০২৩, ১৩:১৯

আরিয়েহ দেরি (বামে) ও প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। ছবি: টুইটার উচ্চ আদালতের আদেশ মেনে ইসরায়েলের স্বরাষ্ট্র এ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব থাকা আরিয়েহ দেরিকে বরখাস্ত করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। তিনি নেতানিয়াহুর ঘনিষ্ঠ সহযোগী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে। 

এর আগে কর ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগে আরিয়েহ দেরিকে মন্ত্রীর পদ থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দিয়েছিলেন ইসরায়েলের সুপ্রিম কোর্ট। তখন আদালত বলেছিল, ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় আরিয়েহ দেরির নিয়োগ অবৈধ হয়ে গেছে। 

গতকাল রোববার (২২ ডিসেম্বর) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আরিয়েহ দেরিকে বরখাস্ত করার পদক্ষেপ নিয়েছেন। 

গত শনিবার নেতানিয়াহু সরকারের বিচার বিভাগীয় সংস্কার পরিকল্পনার বিরুদ্ধে রাজধানী তেল আবিবে বিক্ষোভ করেছে লাখ লাখ মানুষ। তারা নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়েছে। এ ছাড়া জেরুজালেম এবং অন্যান্য ইসরায়েলি শহরেও হাজার হাজার মানুষ বিক্ষোভ করেছে। এর পরদিনই দেরিকে বরখাস্ত করলেন নেতানিয়াহু। 

সিএনএন জানিয়েছে, নেতানিয়াহুর বিচারমন্ত্রী ইয়ারিভ লেভিন এ মাসের শুরুতে বিচার বিভাগীয় সংস্কারের ঘোষণা দেন। এরপর থেকে বিক্ষোভ শুরু হয় ইসরায়েলে। কারণ বিক্ষোভকারীরা মনে করছেন, বিচার বিভাগের সংস্কার করা হলে রাজনীতিবিদেরা বিচারক নিয়োগের ক্ষমতা পাবেন। এতে বিচার বিভাগের স্বাধীনতা খর্ব হবে। এর মধ্যে গত সপ্তাহে সুপ্রিম কোর্ট বলেছে, আরিয়েহ দেরির বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। তিনি যেহেতু ফৌজদারি অপরাধে সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন, সুতরাং তিনি আর মন্ত্রিত্বের পদে থাকতে পারেন না। তাঁকে অবশ্যই বরখাস্ত করতে হবে। আদালতের এই আদেশ বিক্ষোভের আগুনে নতুন করে ঘি ঢেলেছে। নেতানিয়াহুবিরোধী বিক্ষোভ তৃতীয় সপ্তাহে গড়িয়েছে। 

দেরির রাজনৈতিক দলের নাম শাস পার্টি। গত বছরের নভেম্বরের নির্বাচনে শাস পার্টি ১১টি আসন জিতেছিল। তারা নেতানিয়াহু জোটের গুরুত্বপূর্ণ শরিক ছিল। শাস পার্টি আদালতের সিদ্ধান্তকে ‘স্বেচ্ছাচারী ও নজিরবিহীন’ বলে অভিহিত করেছে। 

শনিবারের বিক্ষোভে যোগ দিয়েছিলেন ইসরায়েলের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইয়ার ল্যাপিড ও প্রাক্তন প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেনি গ্যাটজসহ বিরোধী নেতারা। ইয়ার ল্যাপিড এক টুইটার পোস্টে বলেছেন, যারা দেশকে ভালোবাসে এবং দেশের গণতন্ত্র, আদালত ও সাধারণ মানুষের জীবন রক্ষা করতে চায়, তারা এখানে বিক্ষোভ করতে এসেছিল। জয় না হওয়া পর্যন্ত আমরা হাল ছাড়ব না। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     
     

    সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল ইসরায়েল

    আইএমএফের ঋণ পেয়েও কেন বাকিতে তেল কিনতে চায় বাংলাদেশ

    গণতন্ত্রের প্রতীক আফগান নারী কৌঁসুলিরা এখন স্পেনের শরণার্থী

    যুক্তরাজ্যে ১২ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বড় ধর্মঘট, রাস্তায় নেমেছেন পাঁচ লাখ শ্রমিক

    সৌদি আরবে এক বছরে ১৪৭ জনের মৃত্যুদণ্ড

    ইরানে প্রকাশ্যে নেচে ভাইরাল যুগলকে ১০ বছরের কারাদণ্ড

    নারী ইউপি সদস্যর নামে ৩ সহায়তার কার্ড! 

    নারী ইউপি সদস্যকে জুতাপেটা, বিচার দাবিতে সড়ক অবরোধ

    হিরো আলমকে তাচ্ছিল্য করা রাজনৈতিক শিষ্ঠাচার বহির্ভূত ও বৈষম্যমূলক: টিআইবি

    জাবির মাদকবাহী অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় রিকশাচালক নিহত, গর্ভের সন্তান হারালেন নারী

    মানিকছড়িতে শিক্ষকের মারধরে হাসপাতালে ভর্তি শিক্ষার্থী 

    পুলিশের প্রতিবেদনে ৫ আসামি নির্দোষ, কারাগারে পাঠালেন আদালত