Alexa
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

বিশ্বনাথ মেতেছে পলো বাওয়া উৎসবে

আপডেট : ২২ জানুয়ারি ২০২৩, ১৮:১৯

সিলেটের বিশ্বনাথে পলো বাওয়া উৎসবে মাছ ধরতে ব্যস্ত কয়েক গ্রামের মানুষ। ছবি: আজকের পত্রিকা সিলেটের বিশ্বনাথের উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে মাছ ধরার উৎসব ‘পলো বাওয়া’ পালিত হয়েছে। গতকাল শনিবার উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের গোয়াহরি গ্রামের দক্ষিণের (বড়) বিলে উৎসব শুরু হয়। যা আগামী ১৫ দিন পর্যন্ত চলবে। এতে অংশ নেয় গ্রামের কয়েক শতাধিক মানুষ। 

এ বছর মাছ বেশি থাকায় বিলে আগে ভাগেই পলো বাওয়া হলো। প্রতিবছর ঠান্ডার সময় এ উৎসব হয়। স্বল্প পানি ও কচুরিপানা না থাকায় মাছ নিয়ে ঘরে ফিরছেন অনেকই। শিকার করা মাছের মধ্যে ছিল বোয়াল, শোল, মিরকা, কারপু, বাউস, ঘনিয়া ও রুইসহ বিভিন্ন জাতের মাছ। 

গোয়াহরি গ্রামের ঐতিহ্য অনুযায়ী প্রতি বছরের মাঘ মাসে এই পলো বাওয়া উৎসব হয়। এবারও বিলে মাছ বেশি থাকায় এলাকাবাসী মিলে এ সময় পলো বাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। ‘পলো বাওয়া’ উৎসবকে কেন্দ্র করে গোয়াহরি গ্রামে গত কয়েক দিন ধরে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছিল। এই উৎসব আগামী ১৫ দিন চলবে।

গোয়াহরি গ্রামের পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে এই পনেরো দিন বিলে মাছ ধরায় আটল (নিষেধাজ্ঞা) নেই। এই পনেরো দিনের ভেতরে বিলে হাত দিয়ে মাছ ধরা হবে এবং কেউ চাইলে পেলান জান (হাতা জাল) দিয়ে মাছ ধরতে পারবেন। 

পলো বাওয়া এই উৎসবে অংশ নিতে গতকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে গোয়াহরি গ্রামের শৌখিন মানুষ বিলের পারে এসে জমায়েত হতে থাকেন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বিলের পারে লোকসমাগম বাড়তে থাকে। পূর্ব নির্ধারিত সময় সকাল সাড়ে ১০টা হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সবাই এক সঙ্গে বিলে নেমে পড়েন। ঝপ ঝপ শব্দে শুরু হয় পলো বাওয়া। প্রায় ২ ঘণ্টাব্যাপী এ উৎসবে গোয়াহরি গ্রামের সব বয়সী পুরুষ অংশ নেন। 

সরেজমিনে গোয়াহরি বিলে গিয়ে দেখা যায়, মাছ ধরতে সবাই পলো নিয়ে বিলের পাশে বসে আছেন। যাদের পলো নেই তাঁরা মাছ ধরার ছোট ছোট বিভিন্ন জাল দিয়ে মাছ শিকার করেন। এ সময় মাছ ধরার দৃশ্য উপভোগ করতে বিলের পাড়ে শিশু থেকে বৃদ্ধরা ভিড় জমান। 

প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ছেলে বুড়ো মিলিয়ে প্রায় ৫ শতাধিক লোক পলো বাওয়া উৎসবে অংশ নেয়। বিল থেকে অন্যান্য বছরের তুলনায় মাছ শিকার হয়েছে বেশি। 

গোয়াহরি গ্রামের সুনা উল্লাহ বলেন, ‘পলো বাওয়া উৎসব আমাদের গ্রামের একটি ঐতিহ্য। আমার কাছে পলো বাওয়া উৎসব খুব মজার বিষয়। শত ব্যস্ততার মধ্যেও আমি এ উৎসবে আসি। আমাদের গ্রামবাসী যুগ যুগ ধরে এই উৎসব পালন করে আসছেন।’
 
মাদ্রাসা শিক্ষক গোয়াহরি গ্রামের মাওলানা লুৎফুর রহমান আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘আমি একটি মাদ্রাসার শিক্ষক। এই মাছ ধরায় অংশ নিতে পেরেছি তাই আমার খুব আনন্দ লাগছে।’

যুক্তরাজ্যপ্রবাসী লিটন মিয়া ও খালিক মিয়া বলেন, পলো দিয়ে মাছ শিকার একটি মজার বিষয়। যুক্তরাজ্যে তাঁরা পলো বাওয়ায় অনেক বছর দেখেননি। এবার এ উৎসব দেখতে পেরে আনন্দের কথা জানান।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ঝিনাইদহে আগুনে পুড়ে নারীর মৃত্যু

    সাটুরিয়ায় সড়কের কাজে ধীর গতি, জনদুর্ভোগ চরমে

    বাকি খাইয়ে প্রায় দেউলিয়া, ঢাবির জসীমউদ্দিন হলের ক্যানটিন বন্ধ

    বাঘায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এক যুবক গ্রেপ্তার

    সংবাদ প্রকাশের পর চট্টগ্রামে রেলের সেই কর্মচারীর অবৈধ দোকান উচ্ছেদ

    মাছ কাটা নিয়ে ঝগড়া, গায়ে আগুন দিয়ে গৃহবধূর ‘আত্মহত্যা’

    বাহাদুর শাহ পার্ক

    ঝিনাইদহে আগুনে পুড়ে নারীর মৃত্যু

    যৌতুক অভিশপ্ত ও ঘৃণিত প্রথা

    চিকিৎসা খাতে অবদান রাখছে রোবট

    নতুন ডানায় পরবর্তী প্রজন্মের বাণিজ্যিক বিমান

    স্মার্টফোন বিক্রিতে এগিয়ে ছিল যারা