Alexa
মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

খুলনায় বেড়েছে চালের দাম, সবজিতেও অস্বস্তি

আপডেট : ২০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪:৪৭

খুলনা নগরীর শেখপাড়া বাজার। ছবি: আজকের পত্রিকা  খুলনায় চালের বাজার অস্থিতিশীল। কাঁচা মরিচের দামে নেই নিয়ন্ত্রণ। ভরা মৌসুমেও শীতকালীন সবজির দামে অস্বস্তিতে ক্রেতারা। তবে ডিমের দাম কিছুটা কমেছে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ২ টাকা। খুলনার বাজারে সব ধরনের মোটা চাল ৪৫ থেকে ৫৩ টাকা, মাঝারি চাল ৫৫ থেকে ৫৯ টাকা, চিকন চাল ৬০ টাকা ৭৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

নগরীর শেখপাড়া বাজারে মো. আনোয়ার হোসনে নামের এক বিক্রেতা বলেন, বৈরী আবহাওয়ার কারণে চালের দাম বেড়েছে। চাল প্রক্রিয়া করে বাজারে আসতে দেরি হচ্ছে ঘন কুয়াশার কারণে। ফলে দাম কিছুটা বেড়েছে। 

খুলনায় প্রতি হালি ডিম বিক্রি হচ্ছে ৪২ টাকা। এদিকে ভরা মৌসুমেও সবজির দাম সাধারণ ক্রেতাদের নাগালের বাইরে। খুলনার টুটুপাড়া, শেখপাড়া, দোলখোলা, দৌলতপুর, মিস্ত্রিপাড়া গল্লামারী ও সন্ধ্যা বাজার ঘুরে দেখা গেছে শীতকালীন সবজির সরবরাহ বেশি থাকলেও দাম নিয়ে অসন্তোষ ক্রেতাদের। বাজারে ফুলকপি প্রতি কেজি ২০ থেকে ২৫ টাকা, বাঁধাকপি ২০ টাকা, বেগুন ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, লালশাক ২৫ থেকে ৩০ টাকা, টমেটো ৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। অন্যদিকে কাঁচা মরিচের দাম ১০০ টাকা থেকে ১৬০ কেজি।

কাওসার নামের এক বিক্রেতা বলেন, সবজির দাম কিছুটা কম। তবে কাঁচা মরিচের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে। সরবরাহ কমের কারণে কাঁচা মরিচের দাম বেশি বলে তিনি জানান। এদিকে ডিমের দাম হালিতে ২ টাকা কমেছে। 

শেখপাড়া বাজারের ব্যবসায়ী আমিন বলেন, এক সপ্তাহের ব্যবধানে ডিমের দাম কমেছে। তবে বাজারে দাম নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে ক্রেতাদের। 

ক্রেতা মো. আলাউদ্দিন হক বলেন, ভরা মৌসুমেও শীতের সবজির দাম বেশি। চালের দামও বেশি। চাল-ডাল ও তেল-চিনির দাম সামর্থ্যের বাইরে। পণ্যের দাম বাড়ছে, বাড়ছে না আয়। 

আরাফাত হোসেন অনিক নামের আরেক ক্রেতা বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রশাসনের নিয়মিত নজরদারি প্রয়োজন। 

খুলনা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক মফিদুল ইসরাম টুটুল বলেন, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের মাধ্যমে পণ্যের দাম বাড়ান। তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযানের দাবি জানান এই ব্যবসায়ী। 

খুলনার সিনিয়র কৃষি বিপণন কর্মকর্তা শাহরিয়ার আকুঞ্জি বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণে নিয়মিত অভিযান চলছে। ভবিষ্যতে আরও অভিযান চালানো হবে। 

খুলনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের বটিয়াঘাটা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. রবিউল ইসলাম বলেন, অনাবৃষ্টি ও খরার কারণে এ বছর আউশের ফলন প্রত্যাশিত হয়নি। এ ছাড়া উত্তরবঙ্গে কুয়াশার কারণে চাল বাজারজাতকরণে কিছুটা সময় লাগছে। এতে বেড়েছে চালের দাম। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    সাটুরিয়ায় সড়কের কাজে ধীর গতি, জনদুর্ভোগ চরমে

    বাকি খাইয়ে প্রায় দেউলিয়া, ঢাবির জসীমউদ্দিন হলের ক্যানটিন বন্ধ

    বাঘায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এক যুবক গ্রেপ্তার

    সংবাদ প্রকাশের পর চট্টগ্রামে রেলের সেই কর্মচারীর অবৈধ দোকান উচ্ছেদ

    মাছ কাটা নিয়ে ঝগড়া, গায়ে আগুন দিয়ে গৃহবধূর ‘আত্মহত্যা’

    ফজর নামাজ পড়তে বেরিয়েছিলেন বৃদ্ধ, লাশ মিলল হাওরে

    শুরু হচ্ছে সিসিমপুরের নতুন মৌসুম

    এভাবেও প্রচারণা হয়!

    বাস্তবতা দিয়ে গড়া প্রতিটি দৃশ্য

    মনসুর কি হারিয়ে যাবেন

    ক্ষমা পেলেও পদ পাচ্ছেন না

    জানেন কি

    সাপের মতো বিষ তৈরির ক্ষমতা আছে মানুষেরও