মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪

সেকশন

 

শ্রীপুর

প্রতিবছর ছোট হয় ৪ নদী, বাড়ে জমি

আপডেট : ১৬ জানুয়ারি ২০২৩, ১৪:০১

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার নদীগুলো দিন দিন ছোট হচ্ছে, বড় হচ্ছে তীরের ফসলি জমি। স্থানীয় বাসিন্দাদের দখলের কারণে প্রতিবছর নদীর প্রস্থ কমছে। ছোট্ট ফসলের জমি কয়েক বছরের ব্যবধানে হয়েছে প্রশস্ত। নদীপাড়ের জমির মালিকেরা প্রতিবছর অল্প অল্প করে ভরাট করে দখলের ফলে হুমকিতে পড়ছে উপজেলার চারটি নদী।

সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার শীতলক্ষ্যা, মাটিকাটা, খিরু, সুতিয়া নদীর তীরের জমিতে পুরোদমে বোরো ধান আবাদ চলছে। নদীর তীর ভরাট করে এসব খেত বানানো হয়েছে। ছোট ধানখেতগুলো কয়েক বছরের ব্যবধানে কয়েক গুণ বড় হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, নদীর পাড়ের জমির মালিকেরা প্রতিবছর আস্তে আস্তে নদীর জমি ভরাট করে ফসলি জমি বড় করছেন। উপজেলার বরমী ইউনিয়নের মাটিকাটা নদীর প্রবেশমুখে কালীমন্দিরের পাশের অংশ দখলের দিক থেকে এগিয়ে। এ ছাড়া এই নদীর বালিয়াপাড়া গ্রামের কয়েক কিলোমিটার, শীতলক্ষ্যা নদীর নান্দিয়া সাঙ্গুন গ্রামের বড় একটি অংশ, সুতিয়া নদীর নান্দিয়া সাঙ্গুন অংশ ও খিরু নদীর ধামলই অংশে কয়েক কিলোমিটার তীর দখল করে বোরো আবাদ করা হয়েছে।

বরমী ইউনিয়নের বাসিন্দা কৃষক নূরুল হক বলেন, মাটিকাটা নদীর তীরের জমি তাঁর, তাই একটু সুবিধা নিয়েছেন। প্রতিবছর খেতের আল ভেঙে যাওয়ায় নতুন করে আল বাঁধতে হয়। একটু এদিক-সেদিক হয়।

খিরু নদের তীরের কৃষক ওসমান আলী বলেন, ‘শুধু আমি না, ধামলই থেকে ভালুকা পর্যন্ত কমবেশি সবাই একটু একটু করে নিচে যাচ্ছে। আমিও তাদের দলেই।’ তাঁদের জমি বড় হয় কীভাবে, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পানি কমে গেলে প্রতিবছর একটু একটু করে বাড়ানো হয়।

শীতলক্ষ্যা নদীর তীর দখল করে বোরো আবাদ করেছেন কৃষক আব্দুস ছাত্তার। তিনি বলেন, ‘এসব নদীর জমি না। আমাদের কাগজপত্র আছে। হয়তো কিছু জমি ভরাট করা হয়েছে। বর্ষাকালে ভেঙে গেলে পুনরায় খেত ঠিক করতে গরমিল হয়। তা ছাড়া দখল তো আর আমি একা করছি না।’

জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মনজুর আহমেদ চৌধুরী বলেন, নদী দখলের এটি একটি বাস্তব চিত্র। নদীগুলো রক্ষার জন্য নদীপাড়ের জমির মালিকদের নিয়ে সচেতনতামূলক সেমিনার করতে হবে। এ বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের ভূমিকা রাখতে হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. তরিকুল ইসলাম বলেন, নদী রক্ষায় উপজেলা প্রশাসন সব সময় সজাগ থেকে কাজ করছে। এ ধরনের দখল রোধে করণীয় ঠিক করে যথাযথ আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। পাশাপাশি নদীগুলোর সীমানা নির্ধারণ করে খননের আওতায় নিয়ে আসার বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে দেওয়া হবে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    আধুনিক জবাইখানা স্বপ্নই রয়ে গেল

    এসএসসিতে সাফল্য: শত প্রতিকূলতা জয়, তবু দুশ্চিন্তায় ওরা

    সাভার পৌর এলাকায় ইমারত আইন না মেনেই নির্মিত হচ্ছে ভবন

    বগুড়া-সিরাজগঞ্জ রেলপথ: ঋণের বিলম্বে ঝুলছে প্রকল্প

    উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

    টাঙ্গাইলের হারুন-আজিজুলের স্ত্রীরই রয়েছে ৪ কোটি টাকা করে

    সোনাদিয়া প্যারাবনে দখলদারের থাবা, নেতৃত্বে রাজনৈতিক নেতা

    এয়ারপডে পানি ঢুকলে

    দুঃস্বপ্ন দেখলে পাঁচ করণীয়

    ভূমধ্যসাগরে ভাসতে থাকা ৩৫ বাংলাদেশি উদ্ধার

    সিলেটে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ, ৩টি মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ

    রেইনড্যান্স চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশের ছবি ‘ডেথ অ্যান্ড ল্যান্ডস্কেপ’

    সপ্তাহে ২৫০-৫০০০ টাকা পর্যন্ত সেভিংস খোলা যাচ্ছে বিকাশ অ্যাপে