Alexa
রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

অভয়নগরে চাল সংগ্রহে ব্যর্থ খাদ্যগুদাম

আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ১৩:২৬

অভয়নগরে চাল সংগ্রহে ব্যর্থ খাদ্যগুদাম যশোরের অভয়নগরে চাল সংগ্রহের নির্ধারিত সময় শেষ হচ্ছে আগামীকাল ৮ ডিসেম্বর। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো চালই সংগ্রহ করতে পারেনি উপজেলা খাদ্য গুদাম কর্তৃপক্ষ। কারণ সরকারনির্ধারিত দামে কেউ চাল দিচ্ছে না।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকারনির্ধারিত চালের মূল্য থেকে বাজার মূল্য বেশি থাকায় চাল সংগ্রহ করা সম্ভব হচ্ছে না। যে কারণে চালকল মালিকদের সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ ইতিমধ্যে একদফা বাড়িয়েছে সরকার। কিন্তু তাতেও কোনো কাজ হয়নি। এ অবস্থায় চালকল মালিকদের সঙ্গে আজ বুধবার আবার বসছেন খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

আগে চাল সংগ্রহের চুক্তির সময়সীমা ১৭ থেকে ২৬ নভেম্বর নির্ধারণ করা হলেও পরবর্তী সময়ে তা ৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত বর্ধিত করা হয়। কিন্তু বর্ধিত সময় শেষ হতে আর মাত্র 
এক দিন বাকি থাকলেও উপজেলার কোনো চালকল এখন পর্যন্ত চুক্তিবদ্ধ হয়নি।

সূত্র জানায়, গত ২৭ নভেম্বর যশোর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) নিত্যানন্দ কুন্ডু অভয়নগর উপজেলা খাদ্য গুদামে চাল সংগ্রহ ত্বরান্বিত করতে মিল মালিকদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসেন। উপজেলার ২১টি চালকলের মালিকেরা বৈঠকে উপস্থিত হন। সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী তাদের দ্রুত চাল সরবরাহের জন্য চুক্তিবদ্ধ হওয়ার তাগিদ দেওয়া হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক চালকল মালিক জানিয়েছেন, বাজার মূল্যের চেয়ে সরকার নির্ধারিত চালের মূল্য কেজিপ্রতি ৪ থেকে ৫ টাকা কম। এই দরে চাল দিলে তারা লোকসানের মুখে পড়বেন। যে কারণে তাঁরা গুদামে চাল সরবরাহে অনীহা প্রকাশ করেছেন।

আদিত্য মজুমদার চাল মিলের হিসাবরক্ষক তিলক পাল বলেন, ‘ভারত থেকে চাল আমদানি করতে খরচ পড়ছে ৪৫ টাকা ৪৬ পয়সা। অথচ আমাদের সরকার ৪২ টাকা করে মূল্য বেঁধে দিয়েছে। তবে বুধবার বিকেলে আবার চালকল মালিকদের সঙ্গে বৈঠক রয়েছে।’

একই ধরনের অভিযোগ করেন এ রহমান পরশ চালকলের জুয়েল, তীর্থ মজুমদার চালকলের মানস। তাঁরা জানান, এখন পর্যন্ত কোনো চালকল মালিক চাল দিতে চুক্তিবদ্ধ হননি।

নওয়াপাড়া খাদ্যগুদাম সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ২ হাজার ৯২০ মেট্রিকটন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী ২০২৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সংগ্রহ চলমান থাকবে। তবে এখনো এক কেজি চালও সংগ্রহ করা সম্ভব হয়নি। কোনো চালকল মালিক চুক্তিবদ্ধ হয়নি।

এ ব্যাপারে নওয়াপাড়া খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসিএলএসডি) অসীম কুমারও বাজার মূল্যের চেয়ে সরকার নির্ধারিত মূল্যের পার্থক্যের কথা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, ‘তবু আমরা মিল মালিকদের সঙ্গে আলোচনা করে চাল সংগ্রহের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। আশা করি, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সরকারি নীতিমালা মেনেই চাল সংগ্রহ সম্পন্ন হবে।’

অসীম কুমার আরও বলেন, ‘আগামীকাল (বুধবার) এ বিষয় নিয়ে মিল মালিকদের সঙ্গে বসব। আশা করি, খাদ্যগুদামে চাল দিতে মিলাররা চুক্তিবদ্ধ হবেন।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    প্রলোভন দেখিয়ে তামাক চাষ

    পথের পাশে টিউলিপের শোভা

    কোনো মালিকই তোয়াক্কা করেন না ইটভাটা আইন

    কর্মসৃজনের শ্রমিক দিয়ে হলো কাবিখার কাজ

    ভোটের মাঠে

    ছিন্নভিন্ন জাপা, সুযোগ নেবে বিএনপি

    রসের হাঁড়িতে তালা

    ৫ ইউনিটের চেষ্টায় পাহাড়তলী বাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

    ‘তুর কলিজায় এতবল আসে কোত্থেকে, সামনাসামনি আয়’

    শিবগঞ্জে ট্রাক-প্রাইভেট কারের মুখোমুখি সংঘর্ষ, ভাই-বোন নিহত

    ‘হিরোকে যারা জিরো বানাতে এসেছে, তারাই জিরো হয়েছে’

    আঙিনায় জোড়া বাঘ, বনরক্ষীদের শ্বাসরুদ্ধকর ২০ ঘণ্টা

    আগারগাঁওয়ের চাপ কমাতে ঢাকায় পাসপোর্ট অফিসের সীমানা পুনর্নির্ধারণ