Alexa
রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 
ফুটবল বিশ্বকাপ

পেনাল্টি শ্যুটআউটে স্পেনকে কাঁদিয়ে কোয়ার্টারে মরক্কো

আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:২৩

স্পেনকে টাইব্রেকারে হারিয়ে শেষ আটে মরক্কো। ছবি: সংগৃহীত ‘ইতিহাস নিজেই নিজের পুনরাবৃত্তি ঘটায়’-স্পেনের সঙ্গে এই প্রবাদটি একেবারে ভালোভাবে মিলেছে। ২০১৮,২০২২-দুই বিশ্বকাপে টাইব্রেকারেই দ্বিতীয় রাউন্ডে আটকে গেছে স্পেনের যাত্রা। গত বিশ্বকাপে স্পেনকে কাঁদিয়েছিল রাশিয়া, এবার স্পেনকে কাঁদিয়ে ইতিহাস গড়েছে মরক্কো। পেনাল্টি শ্যুটআউটে স্পেনকে ৩-০ গোলে হারিয়ে আফ্রিকান সিংহরা পৌঁছে গেছে কোয়ার্টারে।

পেনাল্টি শ্যুটআউটে প্রথম শট নেয় মরক্কো। আর প্রথম সুযোগেই লক্ষ্যভেদ করেন মরক্কোর এই বদলি খেলোয়াড়। স্পেনের প্রথম শট নেন পাবলো সারাবিয়া, তা আটকে যায় গোলপোস্টে। এরপর মরক্কোর দ্বিতীয় গোলটি করেন হাকিম জিয়েচ। স্পেনের দ্বিতীয় আক্রমণ করতে আসেন কার্লোস সোলার। এটা ঠেকিয়ে দিয়েছেন মরক্কোর মরক্কোর গোলরক্ষক ইয়াসিন বোনো। মরক্কোর পক্ষে তৃতীয় আক্রমণ নেন বদর বিনুন। তবে এটা ঠেকিয়ে দেন স্প্যানিশ গোলরক্ষক উনাই সিমন। এবার স্পেনের পক্ষে তৃতীয় আক্রমণ নিতে আসেন সার্জিও বুসকেতস। বুসকেতসকেও হতাশ করেন বোনো। এরপর আশরাফ হাকিমি গোল করলে উল্লাসে মাতে পুরো মরক্কোর ডাগআউট।

আক্রমণাত্মক ফুটবলে স্পেনকে ক্ষণে ক্ষণে চমকে দেওয়া মরক্কো তাদের প্রথম সুযোগ পেয়েছিল ৩৩ মিনিটে। ২৫ গজ দূর থেকে নেওয়া নুসাইর মাজরাউয়ির শটে গতি থাকলেও সেই শট ঠেকাতে তেমন বেগ হতে হয়নি স্প্যানিশ গোলরক্ষক উনাই সিমনকে। স্পেনের ওপর মরক্কো তাদের আধিপত্য দেখিয়েছে দ্বিতীয়ার্ধেও। প্রথমার্ধের মতো এই অর্ধেও আফ্রিকান অ্যাটলাস সিংহরা তটস্থ করে রাখল স্প্যানিশ রক্ষণকে। এল নেসরি, হাকিম জিয়েশরা ক্রমেই চাপ বাড়াচ্ছিলেন স্পেন রক্ষণে তবে উনাই সিমন ছিলেন সতর্ক। তবে গোল হওয়ার মতো আক্রমণ করতে পারেনি কোনো দলই। তিকি তাকায় অধিকাংশ সময় বলের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের পায়ে রাখলেও মাঝমাঠ একটা সময় বেশ ভোগালো স্পেনকে। একটা সময় বাধ্য হয়ে ‘বিস্ময় বালক’ গাভিকে তুলে নিতে বাধ্য হলেন লুইস এনরিকে। উঠে যাওয়ার আগে একটা রেকর্ড নিজের করেছেন গাভি। ১৮ বছর ১২৩ দিন বয়সী গাভি বিশ্বের দ্বিতীয় কম বয়সী ফুটবলার যিনি বিশ্বকাপের নকআউটে ছিলেন শুরুর একাদশে। ১৯৫৮ বিশ্বকাপে ১৭ বছর বয়সে এই রেকর্ড গড়েছিলেন পেলে।

শেষ সময়ে এসে দুই দলই মরিয়া হয়ে খেলেছে গোলের জন্য। ৮৬ মিনিটে হাকিমির পাস থেকে বক্সে শট নিয়েছিলেন ওয়ালিদ শেদিরা। সেই শট ঠেকান উনাই সিমন। অতিরিক্ত সময়ে আবারও শট নিলেন তবে এবারও সেই সিমনই ঠেকালেন শট। একদম অন্তিম সময়ে ম্যাচ জেতার সুযোগটা যেন ফেলে দিল স্পেন। দানি ওলমোর নেওয়া শটে যদি রদ্রি কিংবা নিকোলাস উইলিয়ামস যদি পা গলাতে পারতেন তাইলেই ম্যাচটা জিতে যায় স্পেন। গোল না হওয়ায় শেষে তাই খেলা গড়িয়েছে অতিরিক্ত সময়ে।

১০৪ মিনিটে সেরা সুযোগটা হারিয়েছে মরক্কো। স্পেনের দুই খেলোয়াড়কে ফাঁকি দিয়ে শটটা ভালোই নিয়েছিলেন শেদিরা। তবে এবারও স্পেনের সহায় সিমন। কোনো রকমে গোল ঠেকান স্প্যানিশ গোলরক্ষক। অতিরিক্ত সময় যত গড়িয়েছে, দুই দলই আক্রমণাত্মক হয়ে খেলেছে। তবে কেউ কারও গোলমুখ খুলতে না পারায় কাতার বিশ্বকাপ দেখল দ্বিতীয় পেনাল্টি শ্যুটআউট।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    রনির ঝড়ে বৃথা গেল হৃদয়ের ফিফটি

    দেশের ক্রিকেটারদের ‘কমনসেন্স’ নিয়ে প্রশ্ন কুমিল্লা কোচের

    ‘হাথুরুর কাছে নিশ্চয়ই জাদুর কাঠি আছে’

    ভিনিসিউসকে ফাউল করে নিষিদ্ধ ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার

    রিজওয়ানের ফিফটিতে কুমিল্লার জয়

    রামোসের কাছে মেসিই সর্বকালের সেরা

    ৫ ইউনিটের চেষ্টায় পাহাড়তলী বাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

    ‘তুর কলিজায় এতবল আসে কোত্থেকে, সামনাসামনি আয়’

    শিবগঞ্জে ট্রাক-প্রাইভেট কারের মুখোমুখি সংঘর্ষ, ভাই-বোন নিহত

    ‘হিরোকে যারা জিরো বানাতে এসেছে, তারাই জিরো হয়েছে’

    আঙিনায় জোড়া বাঘ, বনরক্ষীদের শ্বাসরুদ্ধকর ২০ ঘণ্টা

    আগারগাঁওয়ের চাপ কমাতে ঢাকায় পাসপোর্ট অফিসের সীমানা পুনর্নির্ধারণ