Alexa
রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

১০ ডিসেম্বর থেকে নতুন স্বপ্ন দেখবে মানুষ: মির্জা ফখরুল

আপডেট : ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:০১

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ফাইল ছবি  আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশ অবশ্যই অনুষ্ঠিত হবে জানিয়ে নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের কোনো দ্বিধা না রাখার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ সময় তিনি বলেছেন, ‘সেই সমাবেশ থেকে নতুন স্বপ্ন দেখবে মানুষ।’

আজ মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর গুলশানের একটি রেস্তোরাঁয় বিএনপি আয়োজিত ‘ভায়োলেন্স অ্যান্ড পলিটিক্স অব ব্লেমিং’ শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনায় সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন তিনি। 

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘১০ ডিসেম্বরের সমাবেশ নিয়ে মনে কোনো দ্বিধা রাখবেন না। সেদিন অবশ্যই ঢাকায় সমাবেশ হবে। সেই সমাবেশ থেকে নতুন স্বপ্ন দেখবে মানুষ। সেদিন থেকে আরও তীব্রভাবে মানুষ মাঠে নামবে।’ 

জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলন বন্ধ করতে সরকার চক্রান্ত শুরু করেছে উল্লেখ করে ফখরুল বলেন, ‘বিভিন্নভাবে খবর পেয়েছি প্রায় ২০০ বাস তৈরি করা হয়েছে পুড়িয়ে দেওয়ার জন্য। ছাত্রলীগ-যুবলীগ নামধারী কিছু সন্ত্রাসীকে প্রত্যেকটি ওয়ার্ডে রেডি রাখা হয়েছে। তারা নাকি সন্ত্রাস প্রতিরোধ করবে। সরকার আবারও পুরোনো খেলায় মেতেছে।’ 

বাংলাদেশের মানুষ জেগে উঠেছে জানিয়ে ফখরুল বলেন, ‘এখন উঠে দাঁড়াতে হবে এবং সামনে এগোতে হবে। এই সরকার নির্বাচিত নয়। এরা ১৫ বছর ধরে দেশের মানুষের ওপর নিপীড়নের স্টিম রোলার চালাচ্ছে। এই সমস্যা বিএনপির একার সমস্যা না। এইটা জাতীয় সমস্যা।’ 

আলোচনা সভায় রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক দিলারা চৌধুরী বলেন, ‘২০০৮ সালে লগি-বৈঠা আন্দোলন করে শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসেছিল। এমন সংঘাতের রাজনীতি বন্ধ হওয়া উচিত।’ 

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি বলেন, আওয়ামী লীগের স্বৈরাচারী ব্যবস্থার বিপরীতে জনগণের সামনে একটি গণতান্ত্রিক জবাবদিহিমূলক ব্যবস্থা তুলে ধরতে হবে। 

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, যেকোনো স্বৈরাচার সরকার কিছু বয়ান তৈরি করে। উন্নয়নের গণতন্ত্র, জঙ্গিবাদ দমন এই সরকারের বয়ান। এদের পুতুপুতু করে কিছু করা যাবে না। 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেন, সারা বছর পল্টনের বাইরে জনসভা করতে চাইলে বলা হয়েছে দলীয় কার্যালয়ের সামনে করেন। এখন নয়াপল্টনে করতে চাইছি, বলছে অন্য কোথাও করেন। সরকার নার্ভাস হয়ে পড়েছে, সে কারণে এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি করছে যাতে আমরা সমাবেশ করতে না পারি। 

স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, এই সরকার গায়ের জোরে ক্ষমতায় এসেছে এবং আবারও থাকতে চাইছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছে, ১০ তারিখের সমাবেশে কোনো বাঁধা দেওয়া হবে না। কিন্তু স্থান নিয়েই প্রথম বাঁধা এসেছে। আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতারা ঢাকার চারপাশে পাহারা বসাচ্ছে। 

বিএনপির গোলটেবিল বৈঠকে রাশিয়া, ইরান, অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য, নরওয়ে, যুক্তরাষ্ট্র, জাতিসংঘ ও মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশের দূতাবাসের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও আন্তর্জাতিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ ও অ্যাডভোকেট ফারজানা শারমিন পুতুলের সঞ্চালনায় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বেগম সেলিমা রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দীন, জয়নাল আবেদীন, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, প্রচার সম্পাদক শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এনিসহ প্রমুখ।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    হিরো আলম জিরো হয়েছে, ফখরুলের স্বপ্নভঙ্গ: ওবায়দুল কাদের

    হিরো আলমকে প্রশাসন জিততে দেয়নি: জোনায়েদ সাকি

    ১১ ফেব্রুয়ারি সারা দেশে ইউনিয়ন পর্যায়ে পদযাত্রা করবে বিএনপি

    ‘সংসদকে ছোট করতে হিরো আলমকে প্রার্থী করেছে বিএনপি’

    ফ্যাসিবাদী সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে: মির্জা ফখরুল

    আ.লীগ উপকমিটির সদস্য হতে চাইলেন মাহী, কাদেরের আশ্বাস

    ৫ ইউনিটের চেষ্টায় পাহাড়তলী বাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

    ‘তুর কলিজায় এতবল আসে কোত্থেকে, সামনাসামনি আয়’

    শিবগঞ্জে ট্রাক-প্রাইভেট কারের মুখোমুখি সংঘর্ষ, ভাই-বোন নিহত

    ‘হিরোকে যারা জিরো বানাতে এসেছে, তারাই জিরো হয়েছে’

    আঙিনায় জোড়া বাঘ, বনরক্ষীদের শ্বাসরুদ্ধকর ২০ ঘণ্টা

    আগারগাঁওয়ের চাপ কমাতে ঢাকায় পাসপোর্ট অফিসের সীমানা পুনর্নির্ধারণ