Alexa
রোববার, ২৯ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

মঙ্গলে ৫০ একর প্রাকৃতিক বনায়ন করার পরিকল্পনা দিলেন বিজ্ঞানী

আপডেট : ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১৪:১৪

পল স্মিথের প্রস্তাবিত বনায়ন। ছবি: সংগৃহীত  বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনিতে প্রায়ই পৃথিবীর বাইরের কোনো গ্রহে একটি স্বচ্ছ অবকাঠামোর ভেতরে গাছপালা ও প্রাণী দিয়ে পূর্ণ কৃত্রিম পরিবেশের কথা উল্লেখ করা হয়। সম্প্রতি ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষক, উদ্ভিদবিদ ও পরিবেশবিদ পল স্মিথ কৃত্রিমভাবে মঙ্গল গ্রহে প্রাকৃতিক পরিবেশ তৈরির একটি বিশদ প্রস্তাব তৈরি করেছেন। গত মাসে তিনি ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব অ্যাস্ট্রো বায়োলজিতে প্রস্তাবটি প্রকাশ করেন। মঙ্গলের বুকে এক ‘ক্ষুদ্র পৃথিবী’ নির্মাণের প্রস্তাবই বলা যায় একে। 

সি-নেটের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, স্মিথের প্রস্তাবে মঙ্গলে পৃথিবীর বাস্তুতন্ত্রের অনুকরণে মূলত প্রাকৃতিক সংরক্ষণের কথা বলা হয়েছে। এই প্রাকৃতিক সংরক্ষণ মানুষের জন্য একটি আশ্রয়স্থল এবং খাদ্য ও কাঁচামাল সরবরাহ করবে। প্রস্তাবটিকে প্রাথমিকভাবে শুধুই একটি ধারণা মনে হতে পারে অনেকের কাছে। তবে স্মিথ এই পরিকল্পনার মৌলিক ধারণাগুলোকে তুলে ধরেছেন তাঁর প্রস্তাবে। এ ছাড়া, সম্ভাব্য অনেকগুলো চ্যালেঞ্জের মধ্যে কয়েকটির সমাধানও দিয়েছেন স্মিথ। 

প্রস্তাবে মঙ্গল গ্রহের বায়ুমণ্ডল, তাপমাত্রা, ঋতু, আবহাওয়া, মাধ্যাকর্ষণ, ক্ষতিকারক রশ্মির বিকিরণ এবং সূর্যালোক সম্পর্কিত অন্যান্য চ্যালেঞ্জ নিয়ে আলোচনা করেছেন স্মিথ। তিনি প্রাণীদের একটি তালিকা তৈরি করেছেন, যেগুলোতে মঙ্গলের জন্য প্রস্তাবিত প্রাকৃতিক সংরক্ষণে বসবাস করতে পারবে। 

স্মিথ তাঁর তালিকায় রেখেছেন জুনিপার ও বার্চ উদ্ভিদ। প্রাণীদের মধ্যে স্মিথ রেখেছেন মাটির জীবাণু, ছত্রাক ও কেঁচো এবং মাকড়সার মতো অমেরুদণ্ডী প্রাণী। 

উল্লেখ্য, মানুষ ছাড়া অন্য মেরুদণ্ডী প্রাণী যেমন—পাখি, মাছ ও র‍্যাকুন এই তালিকায় নেই। এসব প্রাণী মঙ্গলে স্বাভাবিক জীবন পাবে না, তাই তাদের বহির্জাগতিক আবাসস্থলে থাকতে বাধ্য করার নৈতিক দিক নিয়েও কথা বলেছেন স্মিথ। 

ছবি: পর্তুগিজ ডিজিটাল আর্টিস্ট আর্তুর রোজার সৌজন্যে  স্মিথ অবশ্য পৃথিবীর হুবহু অনুকরণে কোনো বন তৈরির কথা বলছেন না। তিনি বলেন, ‘প্রাকৃতিক সংরক্ষণটির যাঁরা নকশা করবেন, তাঁদের এই প্রজাতিগুলোকে পরিবেশের উপাদান হিসেবে বিবেচনা করা উচিত। যারা একত্রিত হয়ে একটি বাস্তুতন্ত্র গড়ে তুলতে পারবে। হুবহু পৃথিবীর মতো বনের ধারণা এখনো বাস্তবসম্মত নয়। কিন্তু নতুন বাস্তুতন্ত্র গড়ে তোলা, এর উন্নতি এবং এটি অপ্রত্যাশিত উপায়ে কাজ করবে—এমনটা আমরা ভাবতেই পারি।’ 

তবে এই প্রস্তাব বাস্তবায়নে কী পরিমাণ খরচ হতে পারে তা স্মিথ ভাবেননি। তিনি বলেন, ‘মানুষকে মহাকাশে পাঠানোই যথেষ্ট ব্যয়বহুল একটি প্রক্রিয়া। সেখানে আপনি ধারণা করে নিতে পারেন মঙ্গলের বুকে এ ধরনের একটি পরিকল্পনা বাস্তবে রূপ দেওয়া কতটা ব্যয়বহুল হতে পারে?’ 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     
    স্মরণ

    যে ভিটামিনের আবিষ্কারে প্রাণ বেঁচেছে লাখো মানুষের

    ক্যানসার চিকিৎসায় রোবট সাপ

    জানেন কি

    আইনস্টাইন কখনো মোজা পরেননি

    জানেন কি

    মিল্কিওয়ে গ্যালাক্সিতেই ‘সূর্য’ আছে ৪০ হাজার কোটি

    জানেন কি

    আস্ত ব্লেডও হজম করতে পারে মানুষ

    পৃথিবীতে আছড়ে পড়তে যাচ্ছে নাসার স্যাটেলাইট

    ক্ষমা করার সুফল পাবে তো আওয়ামী লীগ?

    এমন ঐক্য যদি সব ক্ষেত্রে হতো!

    সুচিত্রা সেনের মঞ্চনাটক

    সৌদিতে গিয়েই মেসিকে ছাড়িয়ে গেছেন রোনালদো

    দায়িত্বজ্ঞানহীনতা

    দেশাত্মবোধক গানে শুরু আওয়ামী লীগের জনসভা