Alexa
শনিবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

রেলের ইয়ার্ডকে পতিত জমি দেখিয়ে ইজারা

আপডেট : ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৪:৫৭

রেলওয়ের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী রেলওয়ের সদ্য অবসরে যাওয়া এক কর্মচারীর ছেলেকে এই ইয়ার্ড  লিজ দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যশোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়ার চেঙ্গুটিয়া রেলস্টেশনের পরিত্যক্ত কোয়ার্টারসহ ইয়ার্ডকে পতিত জমি দেখিয়ে ইজারা (লিজ) দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী যোগসাজশ করে ওই ইয়ার্ড রেলওয়ের সদ্য অবসরপ্রাপ্ত এক কর্মচারীর ছেলেকে লিজ দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এদিকে ওই ইয়ার্ডে তিন প্রজন্ম থেকে বসবাস করে আসা রেলওয়ের মৃত ভূমিহীন কর্মচারীর পরিবারসহ সাতটি পরিবারকে উচ্ছেদের চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এমনকি উচ্ছেদে ব্যর্থ হয়ে ওই পরিবারগুলোর সদস্যদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির চেষ্টা করা হচ্ছে।

তবে ওই পরিবারগুলোর সদস্যদের দাবি, তাঁরা ইতিপূর্বে অনেকবার এই জমি লিজ নেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন। এখন এই জমি অন্যকে লিজ দেওয়া হয়েছে। তাই এই জায়গা তাঁরা ছাড়বেন না।

গতকাল সোমবার সরেজমিনে নওয়াপাড়ার চেঙ্গুটিয়া রেলস্টেশনে গিয়ে দেখা যায়, স্টেশনসংলগ্ন পরিত্যক্ত সরকারি কোয়ার্টার এবং এর গা ঘেঁষে সাতটি পরিবার ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছে। এরই একপাশে বসবাস করছেন রেলস্টেশনে কর্মরত কর্মচারীরা।

জানা গেছে, এই জায়গা পতিত দেখিয়ে রেলওয়ের সদ্য অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী মুক্তার মিস্ত্রির ভাতিজা এবং পাঁচ বছর আগে অবসরপ্রাপ্ত হাবিবুর রহমান মিস্ত্রির ছেলে মিরাজ হোসেন গোপনে রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে লিজ নিয়েছেন। বর্তমানে সেখানে বসবাসরত ব্যক্তিদের উচ্ছেদে তাঁরা মরিয়া হয়ে উঠেছেন।

ডকে বসবাসরত রেলওয়ের মৃত কর্মচারী (ওয়েম্যান) শাহজাহান মোল্লার স্ত্রী শাহিদা বেগম বলেন, ‘বিয়ের পর থেকেই স্বামীর সঙ্গে এখানে বসবাস করে আসছিলাম। ১৫ বছর আগে রেলওয়েতে কর্মরত অবস্থায় শাবলের আঘাতে স্বামী মারা যান। চার ছেলেমেয়ে নিয়ে এখানেই বসবাস করে আসছি। বর্তমানে মিরাজ জায়গা ছেড়ে দিতে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে। এমনকি প্রাণনাশেরও হুমকি দেওয়া হয়েছে। রেলওয়ের পুলিশ পরিচয়ে দুজন এসে জায়গা ছেড়ে দিতে বলে গেছে।’

তালাকপ্রাপ্ত ও ভূমিহীন মিনা বেগম (৩২) এবং তাঁর ভাই মামুন (১৭) বলেন, ‘ডকের ওই ঘরেই আমাদের জন্ম। বাপ-দাদারাও এখানেই বসবাস করে গেছেন। আমাদের নামে এই জায়গার ডিসিআর করে দেওয়ার কথা বলে ১০ হাজার করে টাকাও নেওয়া হয়েছে। কিন্তু পরে আমাদের না জানিয়ে গোপনে মিরাজকে ওই জায়গা পতিত দেখিয়ে লিজ দেওয়া হয়েছে। জীবন গেলেও আমরা এই জায়গা ছেড়ে কোথাও যাব না।’

এ ব্যাপারে বক্তব্য জানতে মিরাজ হোসেনের ব্যবহৃত মোবাইল নম্বরে ফোন দিয়ে তা বন্ধ পাওয়া যায়।

যশোর রেলওয়ের ১৭ নম্বর কাচারির আমিন আব্দুল মতিন স্টেশনের ডকের জায়গা পতিত দেখিয়ে লিজ দেওয়ার কথা স্বীকার করেন। স্টেশনের ডক ও সরকারি কোয়ার্টারের জায়গা লিজ দেওয়ার বিধান আছে কি না, জানতে চাইলে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে সাক্ষাতে কথা বলবেন বলে জানান।

নওয়াপাড়া রেলস্টেশনে দায়িত্বরত পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) সোহাগ কুমার শর্মা ওই পরিবারগুলোকে উচ্ছেদের জন্য হুমকি-ধমকি দেওয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, যেহেতু জায়গাটি একজন লিজ নিয়েছেন, তাঁর পক্ষে রেলওয়ে পুলিশ ওই জায়গায় যেতে পারে। তবে কাউকে হুমকি-ধমকি দেওয়া হয়নি।

রেলওয়ের পাকশী জোনের কর্মকর্তা মো. নুরুজ্জামান বলেন, ‘ভুক্তভোগীরা সেখানে অবৈধভাবে বসবাস করছেন। তাঁরা আবেদন করলে বিষয়টি খতিয়ে দেখব।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ইসির সেই জয়নাল এখনো তৎপর

    কে হচ্ছেন নতুন রানি

    গোলরক্ষক বাবার স্ট্রাইকার ছেলে

    ফকিরাপুলের হোটেলগুলো ‘আদমের হাট’

    সায়েদ আলীর পরম মমতা

    শাহরুখ ফিরলেন রাজার মতোই

    মেসিদের শিরোপা রক্ষার লড়াই যুক্তরাষ্ট্রে

    হাকিমি-জিয়েশদের মতো ছেলেদের গড়ার স্বপ্ন বাবা হাকিমের

    এবার আরও বড় শাস্তি সোহানের, রউফকে সতর্কতা

    ইসির সেই জয়নাল এখনো তৎপর