Alexa
রোববার, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

মশার কামড়ে কোমায় যুবক, করতে হয়েছে ৩০টি অপারেশন 

আপডেট : ২৮ নভেম্বর ২০২২, ২৩:২৭

 এশিয়ান টাইগার মশা। ছবি: উইকিপিডিয়ার সৌজন্যে  মশা বিরক্তিকর প্রাণী কোনো সন্দেহ নেই। কখনো কখনো তো মশার কামড়ে মারাত্মক ডেঙ্গু ও ম্যালেরিয়ার মতো রোগও হতে পারে। কিন্তু মশার কামড়ে কেউ কোমায় চলে গেছে এবং সেখান থেকে ফিরতে ৩০টি অপারেশনের মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে এমন বিষয়টি নিঃসন্দেহে অবাক করার মতো। তবে এমন ঘটনাই ঘটেছে জার্মানিতে। 

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি স্টারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জার্মান ওই যুবকের নাম সেবাস্তিয়ান রৎশ্কা। ২৭ বছরের ওই যুবক বাস করেন দেশটির রডারমার্ক শহরে। সময়টা ২০২১ সালের গ্রীষ্মকাল। সেই বছরই এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতে পড়ে রৎশ্কা। 

ডেইলি স্টারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সে বছর এশিয়ান টাইগার নামে পরিচিত এক প্রজাতির মশা কামড়ে দেয় তাঁকে। শুরুতে সামান্য সর্দির মতো কিছু লক্ষণ দেখা দেয় তাঁর। তবে এর চেয়েও ভয়াবহ অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে তাঁকে। এই বিষয়ে রৎশ্কা জানিয়েছেন, তাঁর পায়ের দুটি আঙুল আংশিকভাবে কেটে ফেলতে হয়েছে। সব মিলিয়ে ৩০টি অপারেশন করতে হয়েছিল এবং তিনি ৪ সপ্তাহ কোমায় ছিলেন। শুধু তাই নয়, রক্তে বিষক্রিয়াসহ কলিজা, কিডনি, হৃৎপিণ্ড এবং ফুসফুসের কর্মদক্ষতা কমে যাওয়ার মতো বিষয়ের সঙ্গে লড়তে। 

এখানেই শেষ নয়। শরীরের যে স্থানে মশা কামড়েছিল, সেখানে তৈরি হওয়া ফোড়া অপসারণ করে তাঁর ঊরুর ত্বক প্রতিস্থাপন করতে অপারেশন করতে হয়েছিল। রৎশ্কা ভেবেছিলেন, তাঁর বেঁচে থাকার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। কারণ চিকিৎসকেরা তাঁর আক্রান্ত স্থানের টিস্যুর বিশ্লেষণ করে দেখতে পেয়েছিলেন এক ধরনের ভয়াবহ ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া তাঁর বাম ঊরু পর্যন্ত প্রায় অর্ধেক কোষ ধ্বংস করে দিয়েছিল।

নিজের জীবনের ভয়াবহ অভিজ্ঞতা বলতে গিয়ে ডেইলি স্টারকে রৎশ্কা বলেছিলেন, ‘আমি কখনো বিদেশে যাইনি। তাই কামড় আমি এই দেশেই খেয়েছি। তারপর হঠাৎ করেই বিষয়টি ছড়িয়ে পড়া শুরু করল। আমাকে শয্যাশায়ী হয়ে গিয়েছিলাম, জ্বর এসেছিল ভয়াবহ মাত্রায়। আমি এতটাই দুর্বল ছিলাম যে, খুব কম সময়ই একা বাথরুমে যেতে পারতাম। আমি ভেবেছিলাম, সব শেষ। হঠাৎ একদিন আমি দেখলাম যে, আমার ধূসর রঙের প্যান্টটি সম্পূর্ণ ভিজে গেছে এবং হঠাৎ করেই আমার বাম ঊরুতে একটি বিশাল ফোড়া তৈরি হয়েছে। ডাক্তাররা খুব দ্রুত অনুমান করলেন যে এশিয়ান টাইগার মশার কামড়।’ 

চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়ে রৎশ্কা সেরে উঠলেও তিনি এখনো পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠেননি। বর্তমানে চিকিৎসাকালীন ছুটিতে রয়েছেন। 

উল্লেখ্য, এশিয়ান টাইগার—ফরেস্ট মসকুইটো নামেও পরিচিত—সাধারণত দিনের বেলায় কামড়ায়। এই মশার কামড়ে ইস্টার্ন ইকুইন এনসেফালাইটিস (ইইই), জিকা ভাইরাস, ওয়েস্ট নাইল ভাইরাস, চিকুনগুনিয়া এবং ডেঙ্গু জ্বরের মতো ক্ষতিকারক রোগ ছড়াতে পারে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ৩ মাসের শিশুকে ৫১ বার গরম রডের সেঁক, অবশেষে মৃত্যু 

    ৮০ বছর পর ফের জার্মান ট্যাংকের মুখোমুখি রাশিয়া: পুতিন

    পাকিস্তানের মসজিদে আত্মঘাতী হামলায় নিহতদের অধিকাংশই পুলিশ কর্মকর্তা 

    ইউক্রেনে যুদ্ধবিমান পাঠাবেন না বাইডেন

    ইউক্রেনে যুদ্ধবিমান পাঠাবে না জার্মানি: চ্যান্সেলর শুলজ

    জার্মানির বিদ্যালয়গুলোতে তীব্র শিক্ষক সংকট

    ৫ ইউনিটের চেষ্টায় পাহাড়তলী বাজারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

    ‘তুর কলিজায় এতবল আসে কোত্থেকে, সামনাসামনি আয়’

    শিবগঞ্জে ট্রাক-প্রাইভেট কারের মুখোমুখি সংঘর্ষ, ভাই-বোন নিহত

    ‘হিরোকে যারা জিরো বানাতে এসেছে, তারাই জিরো হয়েছে’

    আঙিনায় জোড়া বাঘ, বনরক্ষীদের শ্বাসরুদ্ধকর ২০ ঘণ্টা

    আগারগাঁওয়ের চাপ কমাতে ঢাকায় পাসপোর্ট অফিসের সীমানা পুনর্নির্ধারণ